তারকাদের বিয়ে নিয়ে লুকোচুরি = প্রতারণা!

সালমান শাহ যেখানেই সিনেমার শুটিং করতেন, স্ত্রী সামিরাকে সঙ্গে করে নিয়ে যেতেন। ঢালিউডের শীর্ষ নায়ক হয়েও, জনপ্রিয়তা ধসের আশংকায় নিজের বিবাহিত জীবন লুকাননি।

ক্যারিয়ারের শীর্ষে থাকা অবস্থাতেই মৌসুমী বিয়ে করেন এবং তার দাম্পত্য জীবনের কথা সবাই জানত। একই ভাবে ক্যারিয়ারের শীর্ষে থাকা অবস্থাতেই রিয়াজ বিয়ে করেন তিনাকে এবং সেই বিয়ে হয় ঢাকঢোল পিটিয়েই৷ একেই ব্যাপার পূর্নিমার বেলাতেও। কোন লুকোচুরি করেননি বিয়ে নিয়ে।

কিন্ত, বর্তমানে ঢালিউডে চলছে বিয়ে নিয়ে লুকোচুরির আলাদা ট্রেন্ড। নায়ক নায়িকাদের অনেকেই বিয়ে করেন চুপিসারে আর বিয়ের খবর প্রকাশ পায় কয়েক বছর পর৷

শাকিব খান-অপু বিশ্বাসের ঘটনা নিশ্চয়েই আপনার অজানা নয়। বেশ কয়েক বছর সংসার করার পর, এরপর বাচ্চা-সহ টেলিভিশনে উপস্থিত হয়ে অপু জানিয়ে দেন বিয়ের খবর। এর আগে খান সাহেব বিয়ে সংক্রান্ত ব্যাপারে শুধু বলেই গেছেন বিয়ের জন্য পাত্রী খোজা হচ্ছে, হ্যান ত্যান। সাক্ষাৎকারে অপু বলেছেন এই কয়েক বছরে তাকে বেশ কয়েকবার গর্ভপাত করানো হয়েছে। এবারও একেই কাজ হলে ভবিষ্যতে আর মা হতে নাও পারেন এই ভাবনা থেকেই ছেলে জয়কে পৃথিবীর আলো দেখান তিনি।

অভিনেতা ইমন, শিখাকে বিয়ে করেন অনেক আগেই৷ কিন্তু সেই খবর লুকিয়েছিলেন বেশ কয়েক বছর। অভিনেত্রী সিমলার গোপন বিয়ের ব্যাপারটি প্রকাশ্যে আসে স্বামী পলাশের বিমান ছিনতাই নামক কমেডি মঞ্চস্থ হওয়ার পর।

আর সর্বশেষ ছুঁয়ে দিলে মন’ চলচ্চিত্রের পরিচালক শিহাব শাহীনের সঙ্গে নায়িকা জাকিয়া বারী মম’র বিয়ের জোর গুঞ্জন চললেও মুখে কুলুপ এঁটে থাকার পর চতুর্থ বিয়েবার্ষিকীতে এসে আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ের খবর জানালেন তারা। ২০১৫ সালের ২০ নভেম্বর পারিবারিকভাবে বিয়ে করেছেন এই জুটি।

তারকাদের বিয়ে নিয়ে কেন এই লুকোচুরি ? ক্যারিয়ারে ধস নামার ভয়। অনেকে মনে করেন বিয়ের খবর প্রকাশ্যে এলে দর্শকদের কাছে তাদের গ্রহণযোগ্যতা কমে যাবে। ভক্তরা আর পছন্দের তারকাকে নিয়ে ফ্যান্টাসিতে ভুগবেনা।

ভারতের দিকে তাকাই।

ছেলে-মেয়ে, স্ত্রী গৌরী ও বোন শাহনাজ লালারুখ খানের সাথে শাহরুখ

গৌরিকে বিয়ের করার পরেই সাধারণ শাহরুখ খান থেকে বলিউড বাদশা হয়েছেন শাহরুখ। যেখানেই গেছেন গৌরিকে বগলদাবা করে নিয়ে গেছেন। চল্লিশোর্ধ্ব বিবাহিত মাধুরী দিক্ষিত ‘আজা নাচলে নাচলে’ গানে নেচে দর্শক বুকে কাঁপন ধরিয়ে দেন। ঐশ্বরিয়ারা বিয়ের ব্যাপার গোপন রাখেননি। বিবাহিত হয়েও রমা থেকে সুচিত্রা সেন হয়ে সুচিত্রা বাঙালির মনের অন্দরমহল থেকে ড্রয়িং রুমের ফটোতে জায়গা করে নিয়েছেন।

ভেতরে ট্যালেন্ট থাকলে, স্ক্রিপ্ট, অভিনয়, ভালো হলে দর্শক এমনিতেই পছন্দের তারকাকে নিয়ে ফ্যান্টাসিতে ভুগবে। অযথা বিয়ের মত পবিত্র বন্ধনকে নিয়ে লুকোচুরি করে মিথ্যে বলার দরকার হয়না।

তারকা হলেই বিয়ের খবর জানাতে হবে এই রকম ধরাবাধা নিয়ম নেই বটে। কিন্তু বিবাহিত হয়েও কোন তারকা যখন সাক্ষাৎকারে বলেন ‘যখন বিয়ে করব তখন সবাইকে জানাবো’ তখন সেটা দর্শকদের কিংবা মিডিয়া কর্মীদের সাথে এক প্রকার প্রতারনাই। পরে সিস্টেমে পড়ে গোপন বিয়ের খবর ফাঁস হলে ঐ মিথ্যে বলার জন্য ঐ তারকার প্রতি সেই সম্মানটা আর থাকেনা!

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।