মোটা কিংবা পাতলা হন, ভালবাসুন নিজেকে

ফ্যাশন নয়, আমি আরামকে বেশি গুরুত্ব দেই। আমি নিশ্চিত করি যেন, পোশাকটা ভারি না হয়। মাপটা ঠিক থাকাও জরুরী। আমি কাপড়ে গুরুত্ব দেই। শরীরে দিলে যেন খসখসে না লাগে।

কোনো অ্যাওয়ার্ড নাইট বা লাল গালিচায় গেলে আমি আমার চেহারা নিয়ে অনেক রকম পরীক্ষা-নিরীক্ষা করি। তখন হয়তো আমাকে নিজের আরাম বিসর্জন দিতে হয়। তবে ছোটখাটো অনুষ্ঠানে আমি বিশাল কোনো হিল বা ভারি কোনো পোশাক পরি না।

মানুষের মন্তব্য আমি খুব বেশি দেখি না। তাই জানি না, আদৌ আমি সমালোচিত হচ্ছি কি না। সত্যি কথা বলতে, সমালোচনা খারাপ কিছু না। সমালোচনায় যদি কারো মধ্যে ইতিবাচক পরিবর্তন আসে, তাহলে ক্ষতি কি!

ব্যক্তিগত ভাবে আমার দিপীকা পাড়ুকোন আর কঙ্গনা রনৌতের স্টাইল পছন্দ। আমি মনে করি, নিজেদের পোশাকে ওরা খুব দারুণ ভাবে মানিয়ে যায়।

যখন শ্যুটিং থাকে না, তখন আমি অনেক কিছু করি। ঘুরতে যাই, বন্ধুদে সাথে দেখা করি। পড়াশোনা করি, ছবি দেখি। কখনো লেখালেখির চেষ্টা করি। আমি প্রচুর খাই আর রান্না করি। আমি ঘুমাই, ব্যায়াম করি, আমার কুকুরের সাথে খেলি।

নিজের ব্যায়াম করার ভিডিও আমি কখনো শেয়ার করি না। এটা আমার কাছে ভুতুড়ে মনে হয়। আমি ইয়োগা করি, দৌড়াই, সাঁতার কাটি। এই তিনটা জিনিস আমি ভালবেসে করি। আমি আসলে সব কিছুই খাই।

যখন ছুটিতে থাকি, তখন আসলে খাওয়া-দাওয়ার কোনো ঠিক ঠিকানা থাকে না। তাই, এরপর স্বাস্থ্যসম্মত খাওয়া দাওয়ার চেষ্টা করি, যাতে ওজন ছিক থাকে। স্বাভাবিক ওজন ফিরে পেলে আবারো খাওয়া দাওয়া শুরু করি।

আমার মিষ্টি খুব পছন্দ। আইসক্রিম, তিরামিসু, খোঁয়াসো – মিষ্টি মাত্রই সেটা আমার পছন্দ। আমার প্রিয় রং কালো। আমার ওয়ারড্রোভ বোঝাই কালো রঙা জামা।

আমাদের সমাজে, সবাই চায় আদর্শ একটা শেপ আর সাইজ পেতে। চারা যায় সবচেয়ে ছোট সাইজে ফিট হয়ে যেতে। বিষয়টা এমন হওয়া উচিৎ না। সবার উচিৎ, নিজেদেরকে তারা যেমন সেভাবেই স্বীকার করে নেওয়া। শেপ, সাইজ কিংবা বাহ্যিক দর্শনের ব্যাপারে সমাজ কিংবা পপ কালচারের ধ্যান-ধারণাকে এত মাথায় রাখার কিছু নেই।

আমি যেমন, সেভাবেই নিজেকে ভালবাসতে হবে, মোটা না পাতলা – কোনো কিছুতেই কিছু যায়-আসে না। নিজেকে ভালবাসতে হবে। তবে, আগে নিজের মূল্য বুঝতে হবে। এটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

__________

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে কথাগুলো বলেছেন ভারতীয় অভিনেত্রী রাধিকা আপতে।

 

https://www.mega888cuci.com