একজন ‘ওয়ান উইম্যান আর্মি’

আইন ও সালিশ কেন্দ্র’র গত ৩১ মার্চের হিসাব বলছে, শেষ তিন মাসে দেশে ১৮৭ জন নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। এর মধ্যে ১৯ জন খুন হয়েছেন, আর দু’জন আত্মহত্যা করেছেন। এর বাইরে আরো ২১ জন নারীর ওপর ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে।

এখানেই শেষ নয়, আরো ২৭ জন নারীর ওপর চলেছে যৌন নির্যাতন। এদের মধ্যে একজন আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন। দু’জন পুরুষ যৌন নির্যাতনের প্রতিবাদ করতে গিয়েও খুনের শিকার হয়েছেন।

এই পরিসংখ্যানকে পেছনে ফেলে চুপচাপ দৈনন্দিন জীবন চালিয়ে যেতে নারাজ ছিলেন একটি বেসরকারী ব্যাংকে কর্মরত আফসানা কিশোয়ার লোচন। তাই তিনি উত্তরার রাজলক্ষী ও আজমপুর এলালার ফুটওভার ব্রিজের ওপর একটি প্ল্যাকার্ড নিয়ে দাঁড়িয়ে যান গত এপ্রিলে।

প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল – ‘একজন পুরুষই পারে আগামীকালের একটি সম্ভাব্য ধর্ষণ বন্ধ করতে।’ তারপর হ্যাশট্যাগে লেখা ‘ধর্ষণ বন্ধ করুন’, ‘বি আ রিয়েল ম্যান’, ‘স্টপ রেইপ’। ঘণ্টাখানেক দাঁড়িয়ে থেকে তিনি জানিয়েছেন প্রতিবাদ।

আফসানা মনে করেন, ধর্ষণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হলে প্রত্যেককে তাঁদের নিজেদের জায়গা থেকে কিছু একটা করতে হবে।  তিনি বলেন, ‘আমি একাই দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেই। আমার মনে হয়েছে, আর ৫০ জন লোকের জন্য অপেক্ষা করার চেয়ে একটা দাঁড়িয়ে যাওয়াই ভাল সিদ্ধান্ত।  কে কি ভাবছে সেদিকে আমি লকষ্য করি নি। কেউ খুব কড়া দৃষ্টি দিয়ে আমাকে দেখেছে। কেউ এসে উপদেশ দিয়েছে। আমি সেসবে কান দেইনি। কেবল নিজের দায়িত্বটুকু পালন করেছি।’

আফসানা তাঁর সামাজিক দায়িত্বটা পালন করেছেন। আমরা করছি কি?

https://www.mega888cuci.com