মুশফিক, টেক ইট ইজি!

শুরুটা করলেন মুশফিকই। বাঁ দিক থেকে প্র‍থম ছবিটা দেখেন। ডানহাতি ব্যাটসম্যান হয়ে বামহাতি শট খেলছেন তিনি। এই বলেই অনর্থক কেয়ারলেস একটা শট (রিভার্স সুইপ) খেলতে গিয়ে আউট হয়ে গেলেন খুব কম রানেই।

তারপর দেখেন মাথা নিচু করে বেরিয়ে যাচ্ছেন তিনি মাঠ থেকে।

এই দু’টি দৃশ্য স্বাভাবিক মুশফিকের জন্য।

তবে পরের এক মিনিটের মধ্যে শুরু হওয়া ঘটনাগুলি খুবই অস্বাভাবিক। যা জাতীয় দলের অন্যতম কান্ডারি, জেন্টলম্যান মুশফিকুর রহিমের চরিত্রকে প্রতিনিধিত্ব করেনা।

একজন টিন এইজ বা বিশ-একুশ বয়সী দর্শক অথবা টাইগার ফ্যান গ্যালারি থেকে মন্তব্য ছুঁড়ে দিলেন – ‘মাথাটা উঠায়া যান। যা হওয়ার হইছে।’

দর্শকের মন্তব্যটা হুবহু এভাবে হয়তো ছিলোনা। কিন্তু এর কাছাকাছিই ছিলো। যা বারবার বলে যাচ্ছিলো সেই তরুণ খেলা/ম্যাচসংশ্লিষ্ট কয়েকজনের চাপের মুখে। ছেলেটাকে জোর করেই স্টেডিয়াম থেকে বেরও করে দেয়া হয়েছিলো মুশফিকের প্রতিক্রিয়ার পর।

কি করেছিলেন মুশফিক ?

মন্তব্য সহ্য করতে না পেরে রেগেমেগে ঢুকে পড়েছিলেন গ্যালারিতে। তারপর ছবিতে যেভাবে দেখছেন, দর্শকটির উপর তার রাগ ঝাড়ছেন এবং বলছেন এমন কাজ ভবিষ্যতে না করতে। তার সংগে না করে অন্য কারো সংগে করলে ব্যাপারটা খারাপ হতে পারতো- এমন কথাও নাকি বলছিলেন মুশফিক।

ধরেই নিলাম দর্শক অন্যায় করেছে অথবা বাড়াবাড়ি করেছে আমাদের সম্মানিত এই ক্রিকেটারের প্রতি শাউট/কমেন্ট করে। কিন্তু তাতে রিয়্যাক্ট করে গ্যালারিতে ঢুকে পড়া কি কোনোভাবেই ঠিক হয়েছে মুশফিকের ?

আমি বলবো, অবশ্যই ঠিক হয় নাই। তাকে ‘অ্যাঙ্গার ম্যানেজমেন্ট’ জানতে হবে। অবশ্যই এইসব অর্থহীন এবং ঝুঁকিপূর্ণ রাগকে নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে। গ্যালারিতে ঢুকে পড়ে তিনি তো আক্রমণেরও শিকার হতে পারতেন!

কোনো আক্রমণাত্মক বা অসভ্য প্রকৃতির দর্শক-সমর্থককে শাসন করা, দমন করা বা শাস্তি দেওয়ার কাজটা নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা মানুষদের অথবা বিসিবির। এই কাজ অবশ্যই খেলোয়াড়দের না!

খেলোয়াড়দের ওভার রিয়্যাক্ট করার ঘটনা ক্রিকেট বিশ্বে এই প্রথম না। তবে ক্রিকেটের এই যুগে তারকা খেলোয়াড়দের যে পরিমান তিরস্কার, টিটকারি এমনকি গালিও শুনতে হয় উপমহাদেশের অনেক মাঠে তার প্রতিবাদে গ্যালারিতে বসা দর্শককে কনফ্রন্ট করতে যাওয়া বা ধাওয়া দিতে যাওয়ার সাহস বা বোকামি করেন খুব কম খেলোয়াড়ই। খুব কম বলতে ব্যাপারটা প্রায় শূন্যের কোঠায় এখন।

গতকাল জাতীয় দলের প্র‍্যাকটিস ম্যাচে ঘটে যাওয়া ঘটনা নিয়ে মুশফিকুর রহিমকে নিজের সংগেই বসতে হবে কিছুক্ষণ। নিজেকে বোঝাতে হবে।

মুশফিক, শান্ত থাকুন। নিজেকে শান্ত রাখুন, নিয়ন্ত্রন করুন। টেক ইট ইজি!

https://www.mega888cuci.com