একজন কোয়ালিটি পেস বোলিং অলরাউন্ডার যে কতটা দরকার!

মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের ভবিষ্যৎ ও সম্ভাবনায় আমি বরাবরই রোমাঞ্চিত। তার পরও আজকে সাইফ আমাকে চমকে দিয়েছেন!

প্রতিপক্ষ ভুলে যাই। এই ছেলেটা ৫ মাস পর ফিরেছেন! চমকে গেছি, কারণ লম্বা চোট কাটিয়ে ফেরার পর প্রথম ম্যাচেই সাইফের এমন পারফরম্যান্স আমি অন্তত আশা করিনি।

শেষ ওভারে তিনটি ছক্কা, কোনোটাই পিউর স্লগ নয়। জেনুইন ক্রিকেট শট। টাইমিং আর পাওয়ার মিলিয়ে দারুণ দারুণ দারুণ!

বোলিংয়ের ক্ষেত্রে প্রতিপক্ষের ব্যাটিংয়ের মান থেকে খুব চ্যালেঞ্জিং ছিল না। কিন্তু ছেলেটা ভয়ঙ্কর একটা পিঠের চোট কাটিয়ে এসেছে, গত ৫ মাসে কেবল একটিই ম্যাচ খেলেছেন বিসিএলে দুই সপ্তাহ আগে, ক্লান্তিকর ও কষ্টদায়ক পুনবার্সন প্রক্রিয়া পেরিয়ে এসেছেন, তার পর প্রথম ম্যাচেই সবকিছু ঠিকঠাক করা, ৫ ওভারের প্রথম স্পেলে ৬ রান দিয়ে ২ উইকেট। আবারও, দারুণ দারুণ দারুণ!

ক্যাপ্টেন-টিম ম্যানেজমেন্ট তাকে প্রথম ম্যাচেই খেলিয়েছেন, ব্যাটিংয়ে ভালো সুযোগ, বোলিংয়ে নতুন বল দিয়েছেন, তাদেরও কৃতিত্ব প্রাপ্য আস্থা রাখার জন্য।

একটাই চাওয়া ভাই, পথ হারাস না প্লিজ, ভেসে যাস না – একজন কোয়ালিটি পেস বোলিং অলরাউন্ডার যে আমাদের কতটা দরকার!

__________

মাশরাফির বোলিংয়ে অস্বস্তির ছাপ ছিল কিছু। দীর্ঘদিন পর মাঠে নামার পর সেটি অস্বাভাবিক নয়। ম্যাচ প্র্যাকটিসের ঘাটতিও একটা ব্যাপার। তবে ভালো ব্যাপার হলো, ছন্দে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছেন। উইকেট দুটিও দারুণ কাজে দেবে নিজেকে তার ফিরে পেতে। আজকের পর আত্মবিশ্বাস বাড়বে, রিদম ফিরবে। চোট-টোট না পেলে কার্যকারিতাও বাড়বে, নিজের সেরা আপন চেহারায় ফিরবেন।

আপাতত অধিনায়ক হিসেবে উইকেটের সেঞ্চুরিতে অভিনন্দন। ক্যারিয়ারের এই পর্যায়ে মনের আনন্দে খেলে যেতে চান, আশা করি এই আনন্দ ভ্রমণ হবে গোটা ক্যারিয়ারের মতোই চমকপ্রদ ও স্মরণীয়।

– ফেসবুক ওয়াল থেকে

https://www.mega888cuci.com