কেজিএফ: জিরো’র জন্য হুমকি?

এটা বলিউডের কোনো সিনেমা নয়। তবুও, এটার সাথে একটি বলিউড সিনেমার রিলিজের সম্পর্ক আছে। সেটি হচ্ছে শাহরুখ খানের ‘জিরো’।

কান্নাড়া এই সিনেমার নাম কেজিএফ। ৮০ কোটি বাজেটে নির্মিত এই সিনেমা রিলিজ পাবে ২১ ডিসেম্বর অর্থাৎ জিরোর রিলিজ ডেটে।

কান্নাড়া ভাষা ছাড়াও আরও ৬টি ভাষায় রিলিজ পাবে এই সিনেমাটি যার মাঝে চাইনিজ আর জাপানিজ ভাষাও রয়েছে!

ট্রেলারটা জাস্ট একবার দেখলেই আপনি বুঝবেন, ২১ তারিখে জিরো বেশ ভাল একটা ধাক্কা খাবে। কেজিএফের ট্রেলারে যে লুক,যে ফিল আর যে ‘রওনেস’ আপনি পাবেন, বিশ্বাস করেন আর নাই করেন, বলিউডের কোন সিনেমাতেই এই জিনিসটা পাই না। সেটা আমির, শাহরুখ বা সালমান যত ভিএফএক্সই ইউজ করেন না কেন।

খানদের প্রতি সম্মান রেখেই বলছি, এই যে তাদের সিনেমা আসার আগেই বা সিনেমা রিলিজের পরে সিনেমা জঘন্য হলেও তাদের সিনেমা নিয়ে এত আলোচনা, এত কামড়াকামড়ি, ট্রেলারের ভিউ নিয়ে এত কথা কাটাকাটি হয়- এই সমস্ত জিনিসগুলো আমার মতে প্রাপ্য আসলে সাউথ ইন্ডিয়ানরা। আমি আজ পর্যন্ত বুঝলাম না ট্রেলার ভিউয়ের রেকর্ড নিয়ে এত লাফিয়ে লাভটা কি যদি দিনশেষে সিনেমাটা ভালো না হয়?

প্রতি বছর একটা পর একটা এত দুর্দান্ত কাজ করে যাচ্ছে তারা নীরবে, তুলনাই হয় না। এই বছর ‘রাতসানান’ নামের তামিল থ্রিলারের মতো একটা থ্রিলারও আমি আজ পর্যন্ত বলিউড এ পাই না। একটা সময় বুকে ব্যথা উঠে গিয়েছিল আমার টেনশনের চোটে।

এমন না যে খুব কম থ্রিলার দেখেছি, ডেনমার্কের, স্পেনের, ফ্রান্সের থ্রিলারও দেখা আছে আমার। কিন্তু সাউথ ইন্ডিয়ানরা আসলেই দুর্দান্ত! প্রতিবার নিজেদের চ্যালেঞ্জের মুখে ছুঁড়ে দিচ্ছে তারা গল্পে, চিত্রনাট্যে আর অভিনয়ে। আর বলিউড সম্ভবত এখনও মনে করে চ্যালেঞ্জ মানেই হচ্ছে- কোটি টাকা ব্যয় আর অনেক ভিএফএক্স। কিছু ব্যতিক্রম এখানে আলোচ্য নয়।

কেজিএফের মতো এরকম একটা রোলে শাহরুখ যদি থাকতো – আফসোস! স্বপ্নই থেকে যাবে মনে হয়। খুবই মজার আর অদ্ভুত ব্যাপার হচ্ছে, কেজিএফ সিনেমাটির পরিবেশ হিসেবে আছে ফারহান আখতারের এক্সেল এন্টারটেইনমেন্ট যারা কিনা শাহরুখের সাথে ডন সিরিজ করেছিল।

যতবড় শাহরুখ আর বলিউড ভক্তই হন না কেন আপনি, ট্রেলারটা দেখলেই বুঝবেন এটি জিরোর ট্রেলারের চেয়ে কোন অংশেই কম না বরং বেশ কিছু অংশে এগিয়েই থাকবে। তবে বোঝার পরে স্বীকার করবেন কিনা, সেটা আপনার একান্ত ব্যক্তিগত ব্যাপার!

https://www.mega888cuci.com