হাতুরুসিংহে এখন এক ডানা কাটা পরী!

শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের (এসএলসি) কথা উঠলেই লোকাল বাস গানটার কথা মনে পড়ে। ওরা যেমন আদর করে ঘরে তোলে, তেমনি ঘাড় ধরে নামায়। চান্দিকা হাতুরুসিংহেকে কেস স্টাডি হিসেবে দেখলে বিষয়টা আবারো প্রমাণিত হবে।

পেশাদারিত্বের তোয়াক্কা না করে চান্দিকা হাতুরুসিংহে চুক্তির মাঝপথেই, অনেকটা গোপনে যোগ দিয়েছিলেন শ্রীলঙ্কা শিবিরে। নতুন কোচ হিসেবে তাঁকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে নিয়েছিল এসএলসি। এবং বরাবরের মত সেখানেও তিনি সর্বময় ক্ষমতা পান। ঠাঁই পান নির্বাচকদের প্যানেলে।

পুরনো শীষ্য অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসকে অনেক বুঝিয়ে শুনিয়ে অধিনায়কের পদ দেন হাতুরুসিংহে। সেই ট্রাম্প কার্ড ব্যর্থ হলে তাঁকে টেনে নামান। ম্যাথুসও দল থেকে জায়গা হারিয়ে কোনো সৌজন্যতা করেননি, বরং বোর্ডকে দেওয়া চিঠিতে হাতুরুসিংহেকে যথাসাধ্য ধুয়ে দিয়েছেন।

তখন থেকেই বোর্ডের সাথে হাতুরুসিংহের টানাপোড়েনের সূচনা। এর সাথে প্রভাবক হিসেবে যোগ হয় মাঠের পারফরম্যান্সের বেহাল দশা। এসএলসি একটু দেরীতে হলেও বুঝতে পারে ভদ্রলোককে এত ক্ষমতা দিয়ে নিজেদের জন্য বিপদই ডেকে এনেছেন তারা।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) যেটা পারেনি, সেটাই করে দেখালো শ্রীলঙ্কা। চান্দিকা হাতুরুসিংহে এখন আর দেশের ভেতরে বা বাইরে দল নির্বাচনে কোনো প্রভাব খাটাতে পারবেন না। তাকে নির্বাচকদের প্যানেল থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

এই ব্যাপারটাও সম্ভব হয়েছে স্বয়ং ক্রীড়ামন্ত্রী হারিন ফার্নান্দোর হস্তক্ষেপে। তিনি নতুন যে নির্দেশ জারি করেছেন, তাতে সাফ বলা হয়েছে, শুধু স্কোয়াড নয়, নির্দিষ্ট ম্যাচের একাদশ নির্ধারণেও হাতুরুসিংহের কোনো প্রভাব থাকবে না। এখন থেকে একাদশ নির্বাচনের কাজটা করবেন অধিনায়ক, ম্যানেজার ও আসান্থা ডি মেলের নেতৃত্বাধীন নির্বাচক কমিটি। নির্বাচক কমিটিতে আরো আছেন ব্রেন্ডন ‍কুরুপ্পু, হেম্ত বিক্রমারত্নে ও চামিন্দা মেন্ডিস।

এই কাজটা বাংলাদেশেই হয়ে গেলে হয়তো ক্যারিয়ারের দারুণ একটা সময়ে থাকতেই বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাকে টি-টোয়েন্টি দল থেকে অবসর নিতে হয় না।

ক্রীড়ামন্ত্রীর এই নির্দেশাবলী সম্বলিত চিঠিতে সই করে ফেলেছেন ক্রীড়াসচিব চুলান্দা পেরেরা। এই চিঠি পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে অস্ট্রেলিয়ায়। সেখানেই এখন সিরিজ খেলতে ব্যস্ত শ্রীলঙ্কা দল। এর অর্থ হল আগামী এক ফেব্রুয়ারি থেকে অনুষ্ঠিতব্য ক্যানবেরা টেস্ট থেকেই নয়া এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র এটাও সাফ জানিয়ে দিয়েছে যে, ‘কোচকে নির্বাচক প্যানেলে রাখার ব্যাপারটা এসএলসির সংবিধান বিরোধী ঘটনা।’

এই সিদ্ধান্তের প্রেক্ষাপটে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটে সহসাই একটি পালাবদল হয়ে যেতে পারে। কারণ চান্দিকা হাতুরুসিংহে এখন ডানা কাটা পরী। লঙ্কান গণমাধ্যমের দাবী, এই ডানা কাটা পরী হয়তো ক্ষোভ থেকে পদত্যাগ করে বসতে পারেন। সকল নজর এখন তাই এই ডানা কাটা পরীর দিকে!

– শ্রীলঙ্কার ডেইলি মিরর অবলম্বনে

https://www.mega888cuci.com