সম্পর্ক বাঁচাতে চান? ফেসবুকে এই কাজগুলো এড়িয়ে চলুন

ফেসবুককে এখন আর কোনো ভাবেই আমাদের জীবন থেকে আলাদা করা যায় না। আর কখনো কখনো এটা আমাদের সম্পর্কগুলোকেও নিয়ন্ত্রণ করে। তাই কেউ ব্যক্তিগত সম্পর্কগুলোর ব্যাপারে সিরিয়াস হলে কিছু ব্যাপার এড়িয়ে চলা উচিৎ। কারণ, এসব বিষয়গুলো একটি মধুর সম্পর্ককে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে।

ফেসবুকে অভিযোগঅনুযোগ পরিহার করুন

সমস্যার সমাধানে বরং নিকটতম বন্ধুর সাহায্য নিন এবং মুখোমুখী বসে বোঝাপরা করুন; সবচেয়ে ভালো হয়, আপনি নিজেই পার্টনারের সঙ্গে একান্তে  কথা বলে  ঝামেলা মিটিয়ে ফেলুন।

সাবেক প্রেমিক-প্রেমিকার ছবি রাখবেন না

সম্পর্ককে মধুময় ও শান্তিপূর্ণ রাখতে চাইলে কোনক্রমেই প্রক্তনের ছবি রাখবেন না; চাই তা অতীতের হোক অথবা বর্তমানের। ছবিগুলো আপনার কাছে যদি কোন গুরুত্ব না-ও রাখে,  আপনার পার্টনারের জন্য সত্যি তা অস্বস্তিকর হতে পারে।

অনুমতি ছাড়া সঙ্গীর ছবি পোস্ট করবেন না

বিশেষত একান্ত ছবি যা তার ইমেজকে ক্ষুণ্ন করতে পারে। যেমন ঘুমে থাকাবস্থায় তার ছবি আপনার কাছে খুব মনোমুগ্ধকর  মনে হতে পারে। সমস্যা নেই, ছবি তুলে নিজের কাছে রেখে দিন। কিন্তু সেটা পোস্ট করলে অবশ্যই অনুমতি নিন।

গোয়েন্দাগিরি করবেন না

প্রেমের সম্পর্ক দাঁড়িয়ে থাকে বিশ্বাসের উপর। বিশ্বাসের প্রমাণ স্বরূপ হতে পারে সে আপনাকে পাসওয়ার্ড শেয়ার করেছে। কিন্তু তাই বলে তার ইনবক্সে ঢুকে মেসেজ পড়া, অনলাইনে তার কার্যক্রম মনিটরিং করা, তার ফ্রেন্ডলিস্ট থেকে কাউকে ছাঁটাই করা– এসবের অধিকার আপনার নেই। প্রত্যেকেরই, আপনাদের দুজনেরও,  ব্যক্তিগত বিষয় রক্ষা করবার অধিকার রয়েছে।

ফেইক আইডি খুলবেন না

কিছু মানুষ এটা করে থাকে বিশ্বাসের ঘাটতি থেকে। অথবা কেবল ভালো লাগে বলে কাজটি করে। কিন্তু পরিশেষে এটা অপ্রয়োজনীয় ঝামেলা, বিরক্তি ও তিক্ততার সৃষ্টি করে।

বিব্রতকর মন্তব্য করবেন না

‘আমার স্বামীর জন্য এই কাজ করাটা খুবই লজ্জাকর’, ‘এমন খোলা মনের একজন স্ত্রী পেয়ে তুমি খুবই ভাগ্যবান; কিন্তু আমার জন মোটেই এরকম নয়!’ অথবা, ‘আমার স্বামী আবারও অ্যানিভার্সারির কথা ভুলে গেছে!’- এসব বলা থেকে নিজেকে সংযত রাখুন। আপনি যখন কাউকে ভালোবাসেন, তখন তাকে বিব্রত করা তো আর আপনার চাওয়া হতে পারে না, তাই না?

এক সঙ্গে থাকাকালে ফেসবুকে ব্যস্ত থাকবেন না

হতে পারে আপনাকে সঙ্গ দেয়ার জন্য সে কোন মিটিং বা পারিবারিক আসর বাতিল করে এসেছে। এখন আপনার এ কাজটি মন খুলে কথাবার্তা বলার ক্ষেত্রে বাধা ও অস্বস্তির সৃষ্টি করবে।

 

ফেসবুকে কলহে জড়াবেন না

সব প্রেমিক-প্রেমিকার মধ্যেই সমস্যা হয়। কিন্তু পাবলিক প্লেসে মীমাংসা করতে চাওয়া কোন সমাধান নয়। বিষয়টিকে বরং  ব্যক্তিগত পর্যায়ে রেখে সমাধান করে নিন।

 সঙ্গীর  নামে নিজে পোস্ট করবেন না

যদি গোপনীয়তা ভঙ্গ করাটা মন্দ কিছু হয়, আপনি কল্পনা করতে পারেন তাঁর নামে পোস্ট, কমেন্ট, অথবা টেক্সট করা কতটা খারাপ তে পারে? বিশ্বাসের ঘাটতি আপনার সম্পর্ককে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে, কিন্তু এই কাজটি নিশ্চিতভাবেই একটি মধুর সম্পর্ককে ধ্বংস করে দিবে।

অন্যের সঙ্গে প্রেমের অভিনয় করবেন না

এমনকি যদি এটা ক্ষতিকর মনে না-ও হয়, আপনাদের কখনো সাক্ষাত না-ও হয়ে থাকে এবং শারীরিক কোন বিষয় না-ও ঘটে থাকে; আপনি যদি সত্যিই আপনার সঙ্গীকে ভালোবাসেন, এই কাজ করার কোন সুযোগ নেই।

– বিপজেটিভ.কম অবলম্বনে

https://www.mega888cuci.com