তুরিন মেতেছে রোনালদোয়, রোনালদো কি পারবেন তুরিন মাতাতে?

রোনালদো এখন তুরিনের। ক্লাবটির হয়ে চুক্তি অনুযায়ী প্রতিবছর তিনি আয় করবেন ৩০ মিলিয়ন ইউরো। এর অর্থ হল, আগের চেয়ে আয় বাড়ছে তাঁর। কারণ, রিয়াল মাদ্রিদে তিনি প্রতি বছর পেতেন ২১ মিলিয়ন ইউরো।

রোনালদো এখন তৃতীয় সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া ফুটবলার। তাঁর চেয়ে পারিশ্রমিকের দিক থেকে এগিয়ে আছেন লিওনেল মেসি ও নেইমার। মেসিকে বার্সেলোনো প্রতিবছর দেয় ৪০ মিলিয়ন ইউরো। আর নেইমার প্যারিস সেইন্ট জার্মেইনের থেকে প্রতি বছরে পান ৩৬ মিলিয়ন ইউরো।

রোনালদোর কারণে আসন্ন মৌসুমে বিশ্বের অন্যান্য লিগগুলোর তুলনায় সিরি এ বিশ্ব ফুটবলে অনেক বেশি আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে পৌঁছাবে বলে মনে করেন হোসে মরিনহো। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড বস ৩৩ বছর বয়সী রোনালদোকে বেশ ভালভাবেই চিনেন। ২০১০-১৩ সাল পর্যন্ত রিয়াল মাদ্রিদে থাকাকালীন মরিনহোর অধীনেই খেলেছেন পর্তুগাল অধিনায়ক।

গত মৌসুমে ইউরোপের সর্বোচ্চ লিগগুলোর মধ্যে সিরি এ অনেক কারনেই শীর্ষ হবার দৌড়ে এগিয়ে ছিল। দীর্ঘ সময় ধরে জুভেন্টাসকে ধরার জন্য নাপোলি লড়াই চালিয়ে গেছে। মিলানের ক্লাবগুলোও প্রতিপক্ষকে ছেড়ে কথা বলেনি। আর মরিনহো মনে করেন রোনালদোর কারনেই এবার ইতালিয়ান ফুটবলের সব চোখ থাকবে তুরিনে।

একটি রেডিও সাক্ষাৎকারে মরিনহো বলেছেন, ‘এখন আমরা থ্রি ডাইমেনশনাল ফুটবল দেখার সুযোগ পাব। পুরো মৌসুম জুড়ে ফুটবল সমর্থকদের চোখ থাকবে রোনাল্ডোর জন্য ইতালি, লিওনেল মেসির জন্য স্পেন ও ইংল্যান্ডের জন্য প্রিমিয়ার লিগ। কিন্তু আমার কাছে মনে হয় এবার সবচেয়ে বেশী গুরুত্বপূর্ণ লিগ হবে ইতালিতে। ফুটবলে যেকোন সময় যেকোন কিছুই পরিবর্তিত হতে পারে। ইন্টার, মিলান, রোমা দলগুলোও অনেক পরিবর্তিত হয়েছে। এখন ক্রিশ্চিয়ানোকে পেয়ে জুভেন্টাস অনেক বেশী শক্তিশালী দল। এর মাধ্যমে সিরি-আ লিগের আকর্ষনও অনেকাংশেই বেড়ে গেছে। আমি এজন্য জুভেন্টাসকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। এটা যেকোন পর্যায়ের জন্য একটি অনুকরণীয় প্রয়াস। এর মধ্যে মার্কেটিং, এডভারটাইজিংসহ অনেক বিষয় জড়িত।’

অভিবাদন জানিয়েছে জুভেন্টাস সমর্থকরা। তুরিনে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা ফিরিয়ে আনার স্বপ্ন নিয়ে ক্লাবটি দলে ভিড়িয়েছে পর্তুগাল সুপার স্টারকে।

সোমবার জুভেন্টাসে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য তুরিনে অ্যালিয়াঞ্জ স্টেডিয়ামে আসেন রোনালদো। এ সময় তাকে অভ্যর্থনা জানাতে শতশত সমর্থক স্টেডিয়াম এলাকায় হাজির হয়। তারা সমস্বরে বলতে থাকে, ‘রোনালদো, আমাদের জন্য চ্যাম্পিয়ন্স (লিগ শিরোপা) এনে দাও।’

ক্লাবের মেডিকেল সেন্টার থেকে বের হয়ে ৩৩ বছর বয়সি এই ফুটবল তারকা সমর্থকদের অটোগ্রাফ দেন এবং করমর্দন করেন। এরপর দ্বিতীয় দফা টেস্টের জন্য ফিরে যান। এরপর স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তাকে আনুষ্ঠানিকভাবে মিডিয়ার সামনে পরিচয় করে দেয়া হয়। তিনি ক্লাবের সঙ্গে চার বছরের চুক্তিপত্রে স্বাক্ষর করেন। চুক্তি অনুযায়ী তিনি প্রতি মৌসুমে ৩০ মিলিয়ন ইউরো আয় করবেন বলে গণমাধ্যমের রিপোর্টে বলা হয়েছে।

গত সপ্তাহেই পাঁচবারের ব্যালন ডিঅঁর খেতাব জয়ী রোনালদোর ১০০ মিলিয়ন ইউরোতে রিয়াল মাদ্রিদ থেকে জুভেন্টাসে যোগ দেয়ার খবর প্রকাশিত হয়। খবর প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে গোটা তুরিন শহর রোনালদো জ্বরে আক্রান্ত হয়ে পড়ে। দলবদল ফি ছাড়াও অন্যান্য খরচ মিলিয়ে রোনালদোকে দলে ভেড়ানো বাবদ জুভেন্টাসের সর্বমোট ৩৫০ মিলিয়ন ইউরো ব্যয় হবে বলেও ইতালীর গণমাধ্যমের রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়।

অধিকাংশ তরুণ সমর্থক এ সময় তাদের নতুন হিরো রোনালদোর নাম লেখা জুভেন্টাসের ৭ নম্বর জার্সি পড়ে সমবেত হয়। পুরো শহর জুড়ে এখন ওই জার্সি হট কেকে পরিণত হয়েছে। কেউ কেউ আবার তাদের টি-শার্টে লিখেছে ‘বেম-ভিনডো’ (স্বাগতম)। রোনালদোর আগমনী বার্তায় ইতালির উত্তর পশ্চিমাঞ্চলীয় ওই শহরের অন্তত ৫ হাজার দোকানদার তার পোস্টার লাগিয়ে রাখে।

তুরিনের এক আইসক্রীম পার্লার ‘সিআর সেভেন’ নামে একটি কোন আইসক্রিমও বানিয়ে নেয়। তবে রোনালদোর আগমনে যে সবাই উচ্ছ্বাসে গা ভাসিয়ে দিয়েছে, তা নয়। বিপুল অর্থে তার চুক্তিতে হতাশ হয়েছে একটি ক্ষুদ্র অটোমোবাইল প্লান্টের ইউনিয়ন নেতারা। দক্ষিণ ইতালির ফিয়াট চার্লিস-এর মালিকানাধীন এই হোল্ডিং কোম্পানীর মত কোম্পানী রয়েছে জুভেন্টাসেরও।

জুভেন্টাস সমর্থকদের প্রত্যাশা রোনালদোর আগমনে তাদের ক্লাবটি ইউরোপের শীর্ষ ক্লাবের আসনে বসবে। ঘরোয়া আসরে সাফল্যের শির্ষে আরোহন করলেও ইউরো আসরে সফল হতে পারছিল না জুভেন্টাস। ৩৮ বছর বয়সি ফ্রান্সেসকো বলেন, ‘আমাদের প্রত্যাশা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জয় করা। এখন থেকে সেটিই আমাদের একমাত্র চাওয়া। যে শিরোপা থেকে দীর্ঘ দিন আমরা বঞ্চিত।’

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে এ পর্যন্ত ১২০ টি গোল করেছেন রোনালদো। টুর্নামেন্টের ইতিহাসে যে কারো চেয়ে এই সংখ্যা অনেক বেশি। সর্বশেষ ৫ চ্যাম্পিয়নশিপ শিরোপার চারটিই রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে জয় করেছেন তিনি।

অপরদিকে ১৯৯৬ সালের পর আর চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জয় করা হয়নি জুভেন্টাসের। যদিও ২০১৫ ও ২০১৭ সালের ফাইনালে পৌঁছেছিল ক্লাবটি। কিন্তু দুই ফাইনালেই তারা পরাজিত হয়েছে যথাক্রমে বার্সেলোনা ও রোনালদোর সাবেক ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদের কাছে।

এর আগে ইতালির তুরিনে জুভেন্টাসের নিজস্ব শপিং মলে বিক্রির তোলা হয় রোনালদোর জার্সির। কিন্তু এক ঘন্টার মধ্যে রোনাল্ডোর সকল জার্সি বিক্রি হয়ে যায়। ৭ হাজারের মত জার্সি বিক্রির জন্য শপিং মলে আনা হয়েছিলো।

এভাবে বিক্রি হবার প্রত্যাশাও করেনি জার্সি তৈরির দায়িত্বে থাকা একটি সংস্থা। জার্সি তৈরি সংস্থা বলছে, ‘আমরাও ভাবতে পারিনি এমন কিছু হবে। এখন আমাদের ধারনা হলো। তাই রোনালদোর জার্সির চাহিদার চাইতেও বেশি তৈরি করতে হবে আমাদের।’

তুরিন মেতেছে রোনালদোয়, রোনালদো কি পারবেন তুরিন মাতাতে?

– মার্কা, ইএসপিএন এফসি ও এএস অবলম্বনে

https://www.mega888cuci.com