রহস্যময় শিল্পী মুজিব পরদেশী

বাংলাদেশের সংগীত জগতের এক রহস্যময় শিল্পী মুজিব পরদেশী। আশির দশকের শেষ দিকে এক তুমুল জনপ্রিয় অ্যালবাম উপহার দিয়ে নাই হয়ে গেলেন। কোথায় ছিলেন, কি করছিলেন তা এক রহস্য।

যাই হোক, সেই অ্যালবামটির গীতিকার কাম প্রযোজক ছিলেন হাসান মতিউর রহমান। অ্যালবাম রিলিজ হয়েছিল হাসান মতিউরের ‘চেনাসুর প্রোডাকশন’ থেকে।

সেখানে ‘কি স্বপন দেইখা আইলাম ভবে’, ‘আমার সোনা বন্ধুরে’, ‘আমি কেমন করে পত্র লিখিরে’, ‘আমার সাদা দিলে’ …… প্রভৃতি গান যা আগে থেকেই গ্রাম বাংলায় নামহীন মালিকানাহীন হয়ে লোকের মুখে মুখে ফিরছিল – সেগুলো হাসান মতিউর রহমানের লেখা ও মুজিব পরদেশির সুর করা বলে বিভিন্ন আসরে চালানো হয়েছে। অনেকগানের গীতিকার সুরকারের নাম জানা থাকা সত্ত্বেও ক্রেডিট পাননি তাঁরা।

১৯৮৫ সালের দিকে যখন দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলায় আব্বার চাকরি সূত্রে বসবাস করছিলাম তখন থেকেই আমি এই উপরের চারটি গান ক্ষেতমজুর, ধানকল, আখ শ্রমিকদের মুখে শুনে এসেছি। এমনকি আমার এক বন্ধু ছিল যে ‘কি স্বপন দেইখা আইলাম ভবে’ গানটি চমৎকার গাইত। দিনাজপুরের ঐ অঞ্চলটি ছিল সত্যিকারের গানের দেশ।

এরপর যখন ডিভিডি/ ভিডিও গানের যুগ এলো মুজিব পরদেশীকে নিয়ে একই কাজ করলেন হাসান মতিউর রহমান। লোক সাধক, ক্ষণজন্মা পদকর্তা শাহ আব্দুল করিমের গান হাসান মতিউর নিজের লেখা ও মুজিব পরদেশী নিজের সুর করা বলে চালালেন। সেই ভিডিও উল্লেখিত ক্রেডিট লাইন নিয়ে এখনো চলছে ইউটিউবে। এই দু’জন ভাবলেনও না এটা নব্বইয়ের দশক নয়। ইন্টারনেটের যুগ। ধরনী দ্বিধা হও।

লেখার সাথে দু’টো গানের ভিডিও লিংক যোগ করা হল। উপরেরটি মুজিব পরদেশীর। দ্বিতীয়টি  শাহ আব্দুল করিমের লন্ডন সফরে স্বকন্ঠে গাওয়া।

https://www.mega888cuci.com