ঢাকায় দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম রান্নাঘর!

খান’স কিচেন – বাংলাদেশের এই ক্যাট্যারিং সার্ভিস কোম্পানি দাবী করেছে, তারাই দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম রান্নঘরের মালিক। তারা জানিয়েছে, প্রতিদিন প্রায় ১০ লাখ মানুষের কাচে স্বাস্থ্য সম্মত খাবার পৌঁছে দেয় তারা।

আর সেই খাবারের দামও নাগালের মধ্যে। মাত্র ৯৫ টাকা থেকে ১৩৫ টাকার খাবারের বক্সে পাওয়া যায় – ভাত, মাছ, মাংস, ডাল, স্যুপ ও মিষ্ঠান্ন। আর এর জন্য নিয়োজিত আছে এক দানবীয় রান্নঘর। প্রায় ১৫ বিঘার এক প্লটের ওপর নতুন বাজারের এই রান্নাঘরে কাজ করেন তিন হাজার মানুষ।

রীতিমত অবিশ্বাস্য! শুধু তাই নয়, খাবার সরবরাহের জন্য উন্নত বিশেষ প্লাস্টিকের বক্স দেয়া হবে। তাতে প্রায় ছয় থেকে আট ঘন্টা খাবার গরম থাকবে।

পরীক্ষামূলক ভাবে নিজেদের কার্যক্রম শুরু করেছে প্রতিষ্ঠানটি। জানা গেছে, চলতি মাসের শেষের দিকে ঢাকায় আনুষ্ঠানিকভাবে মাঠে নামবে তারা। জমি, বিল্ডিং এবং ভারী যন্ত্রপাতির মতো অবকাঠামো নির্মাণেরে পেছনে এরই মধ্যে বিনিয়োগ হয়েছে প্রায় হাজার কোটি টাকা।

খান’স কিচেনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আফরোজ খান অভিনব এই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটির ব্যাপারে বলেন, ‘ঢাকা পৃথিবীর সবচেয়ে ঘণবসতিপূর্ণ জায়গাগুলোর মধ্যে একটি। প্রতি স্কয়ার কিলোমিটারে প্রায় ৪৪ হাজার মানুষ এখানে বসবাস করে। এর মধ্যে অধিকাংশই বিভিন্ন কাজের সাথে জড়িত। জরিপে দেখা গেছে, অস্বাস্থ্যকর খাবারের কারণে এদের অনেকেই পেটের পীড়ায় ভোগেন। সেটা মাথায় রেখেই আমরা এই উদ্যোগ নিয়েছি।’

এই প্রতিষ্ঠানটির কিচেনের দায়িত্বে থাকছেন আন্তর্জাতিক ভাবে স্বীকৃত শেফ টনি খান। কিচেনটির মান নিয়ন্ত্রনে ব্যবহৃত হচ্ছে জার্মান প্রযুক্তি। আফরোজা খান বলেন, ‘গত তিন বছর ধরে আমরা এই বিষয়ে একটু একটু করে অভিজ্ঞতা অর্জন করছি। আমি সব সময়ই ভিন্ন কিছু একটা করতে চাইতাম। খুব দ্রুতই আমাদের এই ফ্যাক্টরি যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে।’

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।