বাংলাদেশের সাথে প্রথম পরিচয়

বাংলাদেশ ঘুরে এসেছি সপ্তাহখানেক হতে চললো। এখনো আমি ভেবে পাচ্ছি না কি করে নিজেরে অভিজ্ঞতার কথা সবচেয়ে ভালভাবে প্রকাশ করা যায়।

কখনো দেশটাকে বলা যায় দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় লুকিয়ে থাকা এক রত্ন। কখনো বলা যায় কিছুটা নোংরা, বিপুল জনগোষ্ঠী ও প্রায় একই সংখ্যক নদীর মাঝে গড়ে উঠেছে বাংলাদেশ।

অপরিপক্ক জীবনের মাঝেও এখানে একটা লুকিয়ে থাকা জাদু আছে। সেই জাদুটা শুধু ওই সোনালী আলো নয়, জাদুটা হল এই বাংলাদেশের মানুষ।

ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না, কতটা উষ্ণ অভ্যর্থতা, উদারতা আর সম্মান আমি এখানে এসে পেয়েছি। অথচ, এই দেশটাকেই আমরা দেখে এসেছি, শুনে এসেছি ‘অনিরাপদ’ হিসেবে।

যে হোটেলে থেকেছি, সেই হোটেলের কর্মী, যার পরিবারে সদস্যরা আমার সাথে দেখা করতে এসেছিল, এমনকি আমাকে পরবর্তী গন্তব্যের জন্য ট্রেনে বিদায় জানাতে এসেছিল, কিংবা যে ট্রাভেল ইন্ডাস্ট্রির ইভেন্টে এসেছিলাম বা ওই ট্রেন কন্ডাক্টার যে আমাকে ট্রেন থেকে নামার সময়টা মনে করিয়ে দিতে এসেছিল – এমন আতিথেয়তার তালিকাটা অনেক লম্বা। আর এই সবই হয়েছে স্রেফ এক সপ্তাহে।

সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ব্যাপার হল, আমার এখানে এসে একজন নারী ট্রাভেলার হিসেবে বিন্দুমাত্র ঝঞ্ঝাটের মুখোমুখি হতে হয়নি। বরং, প্রতিটি মানুষ আমাকে মনে প্রাণে সাহায্য করতে চেয়েছেন, এক শব্দ ইংরেজি না জেনেও।

তাই আবারো বলতে হয়, একটি দেশের বৈশ্বিক পরিচিত থেকে আসলে তাঁকে যাচাই করা যায় না। আমি কোথায় গিয়েছিলাম, যাকে কোনো শব্দ দিয়ে বর্ণনা করতে পারছি না?

__________

এলি ক্লিয়ারি হলেন বিশ্বখ্যাত টুরিস্ট ও ভ্রমণ বিষয়ক লেখক। সম্প্রতি তিনি ঘুরে গেছেন বাংলাদেশ। অনুভূতি প্রকাশ করে লিখেছেন ছোট্ট একটা লেখা। প্রকাশিত হয়েছে ভ্রমণ বিষয়ক ওয়েবসাইট সোল ট্রাভেল ব্লগের ফেসবুক পেজে। সেখান থেকেই অলিগলি.কমের পাঠকদের জন্য লেখাটা হুবহু বাংলায় অনুবাদ করে দেওয়া হয়েছে।

https://www.mega888cuci.com