তামিম-সাকিবহীন শেষ টেস্টের স্মৃতি

ব্লুমফন্টেইনে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে খেলতে নামার আগে বাংলাদেশের অনুপ্রেরণা হতে পারে চার বছর আগের গল টেস্ট। কারণ সেবারই যে শেষবারের মত তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসান – দুজনকে ছাড়াই টেস্ট খেলতে নেমেছিল বাংলাদেশ।

২০১৩ সালের সেই ম্যাচটা আক্ষরিক অর্থেই ছিল বাংলাদেশের জন্য ঐতিহাসিক এক ম্যাচ। শ্রীলঙ্কার মাটিতে সেবারই প্রথম কোনো ম্যাচ ড্র করে বাংলাদেশ। রানবন্যার ম্যাচে শ্রীলঙ্কা প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৫৭০ রানে ডিক্লেয়ার করে।

১৩৫ রানে দুই উইকেট হারিয়ে দুই উইকেট হারিয়ে দিন শেষ করে বাংলাদেশ। তৃতীয় তিনে বাংলাদেশ হারায় মোটে দুই উইকেট। চার উইকেট হারিয়ে স্কোর হয় ৪৩৮। মোহাম্মদ আশরাফুল ১৮৯ ও মুশফিকুর রহিম ১৫২ রানে অপরাজিত থেকে দিন শেষ করেন।

আশা ছিল, চতুর্থ দিনে ডাবল সেঞ্চুরির দেখা পাবেন আশরাফুল। তবে, সেটা হয়নি। এক রান যোগ করেই তিনি আউট হয়ে যান। যদিও ডাবল সেঞ্চুরি পান অধিনায়ক মুশফিক। ২০০ রান করেন তিনি। সেটাই টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি।

সেঞ্চুরি পান নাসির হোসেনও। ৬৩৮ রান করে সফরকারীরা। দ্বিতীয় ইনিংসে চার উইকেটে ৩৩৫ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করে শ্রীলঙ্কা। পঞ্চম দিনের শেষ বেলায় বাংলাদেশের লক্ষ্য দাঁড়ায় ২৬৮ রান। এক উইকেট হারিয়ে ৭০ রানে টেস্ট শেষ করে বাংলাদেশ।

দক্ষিণ আফ্রিকায় বসে সেই টেস্টের কথাটাই মনে করিয়ে দিলেন মুশফিক। বললেন, ‘আমি যদি ভুল না করে থাকি, এই দুই জনকে ছাড়া আমরা সম্ভবত শেষ টেস্ট খেলেছিলাম গলে। সেই টেস্ট আমরা ড্র করেছিলাম। সেটাও কিন্তু আমাদের জন্য অত সহজ ছিল না। ওই সময়ে শ্রীলঙ্কা দলে যে খেলোয়াড়রা ছিলেন তারা এখনকার ক্রিকেটারদের চেয়ে অনেক ভালো ছিলেন।’

ভাল কিছুর আশায় আছেন মুশফিক। সেই আশাবাদের দিকে তাকিয়ে আছে গোটা বাংলাদেশ!

https://www.mega888cuci.com