ডেস্ক জব কী সত্যিই ওজন বাড়ায়!

অনেক মানুষ যারা চাকরি ক্ষেত্রে ডেস্কের সামনে বসে কাজ করছে তারা ওজন বৃদ্ধি পাওয়ার সমস্যায় ভুগেন। অনেকক্ষণ ধরে ডেস্কের সামনে বসে থাকার ফলে দেহের উপর মারাত্নক প্রভাব পড়ে।

কেনই বা আপনি এই সমস্যাটা সহ্য করছেন? আপনি এমন কী করতে পারেন যার ফলে এই ওজন বৃদ্ধির সমস্যাটা দূর হয়?

সমস্যা ১

সহকর্মীর জন্মদিনের কেক, বাসায় তৈরিকৃত খাবার, দাদীর হাতে বানানো খাওয়া ও হতে পারে কর্মক্ষেত্রে ওজন কিছুটা বাড়ার কারণ। আপনি শুনে অবাক হবেন যে, খাওয়া শেষে আপনার প্লেটে থাকা ছোট ছোট টুকরাও আপনার কোমরের অতিরিক্ত ইঞ্চি বাড়ায়।

সিদ্ধান্ত

যখন সুস্বাদু খাবারের ছবি কোনো জায়গায় মানুষ দেখতে পাই তখন তা খেতে সবার ই মন চাই। লোভনীয় চকলেট লোকানোর জন্য আপনি চাইলে রান্নাঘরে থাকা কলসি ব্যবহার করতে পারেন অথবা সহকর্মী যখন আপনাকে তার সাথে নাস্তা করার জন্য আহ্বান জানাই তখন আপনি ভদ্রতার সাথে উত্তর দিয়ে নাম্তা করা থেকে বিরত থাকতে পারেন।

সমস্যা ২

ভোরে আপনি সারাদিনের জন্য একটি খাবার রুটিনের পরিকল্পনা করেন। ক্যাফে তে স্বাস্থ্যকর মধ্যাহ্নভোজ আপনার পরিকল্পনার একটি অংশ। যখন মধ্যাহ্নভোজের সময় আসে তখন আপনি অনুভব করেন যে, ক্ষুধা আপনাকে যন্ত্রনা দিচ্ছে।

দিনটি তখন খুবই কষ্টকর এবং দীর্ঘস্থায়ী মনে হয়। তখন আপনি পিজ্জা অর্ডার করা থেকে বিরত থাকতে পারেন না। কিন্তু আপনি প্রতিজ্ঞা করেন যে, আগামীকাল থেকে আপনি স্বাস্থ্যকর খাদ্য রুটিন মেনে চলবেন।

সিদ্ধান্ত

এক সপ্তাহে আপনি কি কি খাবার খাবেন তার জন্য একটি রুটিন তৈরি করেন। এই পদ্ধতি আপনাকে সহায়তা করবে সময়ের উপর নিয়ন্ত্রণ রাখতে সাহায্য করবে। আপনি খাবার সম্পর্কে কৌশলী হতে বাধাপ্রাপ্ত হন। আলো এবং রুমের তাপমাত্রাও কিন্তু আপনার ক্ষুধাকে প্রভাবিত করে।

সমস্যা ৩

গবেষকরা খুঁজে পেয়েছেন যে, হাল্কা আলো ক্ষুধাকে সমর্থন করে। রুমের আলোর মাত্রা আপনার খাওয়ার ইচ্ছাকে প্রভাবিত করে। যখন অন্ধকার থাকে তখন অধিক খাওয়ার ইচ্ছা হয় এবং যখন আলো অধিক থাকে তখন কম খাওয়ার ইচ্ছা হয়। একই নিয়ম রুমের তাপমাত্রার ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য।

সিদ্ধান্ত

একটি রৌদ্রজ্জ্বল দিনে বিশুদ্ধ বাতাস এবং দ্রুত হাঁটার জন্য বাইরে যাওয়া শরীর এবং মনের জন্য অনেক আনন্দময় হতে পারে। যদি, আপনি অফিসে ঠান্ডা অনুভব করেন তবে, আপনি আপনার প্রিয় আরামদায়ক সোয়েটার নিয়ে আসতে পারেন। আপনার অফিস পরিচালনার সাথে আপনি আলোর মাত্রা এবং রুমের তাপমাত্রা তুলনা করতে পারেন।

সমস্যা ৪

লম্বা সময় ধরে কাজ করা একজন ব্যক্তির ওজনের উপর প্রভাব ফেলে। অবসর সময়ের অভাবে ব্যায়ামের অভ্যাস ত্যাগ করতে বাধ্য হন অনেকে। ঘুমের ঘাটতি হরমোনের ভারসাম্য রাখতে ব্যর্থ হয়। আর এই হরমোনই আপনার ক্ষুধার কারণ হয়।

সিদ্ধান্ত

চলুন বদলে যাই! যেদিন বাইরে কাজ করার জন্য আপনাকে যেতে হয় না তখন চেষ্টা করুন সিঁড়ি ব্যবহার করার। বাসে না চড়ে দীর্ঘ সময় হাঁটুন এবং সময়মত যেতে ভুলবেন না। ঘুমটা যেন পর্যাপ্ত হয় সেটা খেয়াল রাখবেন। শারীরিক কার্যক্রম আপনাকে ঘুমাতে সহায়তা করতে পারে। পীড়া এবং কাজের সময়সীমা আপনাকে চাপে রাখে।

সমস্যা ৫

কর্মক্ষেত্রে একটি সঙ্গতিপূর্ণ চাপের মাত্রা হতে পারে ওজন বৃদ্ধির প্রধান কারণ। উচ্চমাত্রার চাপ হরমোন করটিসোলের মাত্রা বৃদ্ধি করে। এটা ফ্যাটযুক্ত এবং মিষ্টি খাবার খেতে প্রলুব্ধ করে।

সিদ্ধান্ত

শারীরিক কার্যকলাপ এবং ঘুমের ভালো সময়সীমা এখানে সহায়ক হতে পারে। এবং আপনার স্বরণ রাখা উচিত যে খাদ্য বন্ধু নয়। এটা আপনার সমস্যা সমাধান করতে পারে না। শরীর এবং ব্রেনে চাপের মাত্রা কমানোর অনেক পদ্ধতি আছে। উদাহরণস্বরুপ, চেষ্টা করুন শ্বাস নিতে এবং চিত্তবিনোদনমূলক ব্যায়াম করতে।

ব্রাইট সাইড অবলম্বনে

https://www.mega888cuci.com