একাকিত্ব ও লুডু স্টারের অসীম চক্র

অনেকেরই একটি ভ্রান্ত ধারণা আছে যে একা হওয়া (being alone) আর একাকীত্ব অনুভব করা (loneliness) বুঝি একই জিনিস। অর্থাত যে একা সে-ই একাকীত্ব অনুভব করে, কিংবা যে একাকীত্ব অনুভব করে সে-ই একা। বিষয়টি মোটেই অত সোজাসাপটা, সরলরৈখিক নয়। দুইটি জিনিসকে সম্পূর্ণ ভিন্ন ভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে বিশ্লেষণ করা যায়।

হতেই পারে একজন ব্যক্তি খুব একা, পৃথিবীতে তার আপন বলতে কেউ নেই। কিন্তু তার মানেই যে সে একাকীত্ব অনুভব করে তা তো নয়। এটি সরাসরি মানুষের অনুভূতির সাথে সম্পর্কযুক্ত। এমনও তো হতে পারে ওই ব্যক্তি নিতান্তই অনুভূতিশূণ্য, সে যে একা সে বোধই তার নেই। সেক্ষেত্রে ওই ব্যক্তি alone হলেও lonely নয়।

আবার এর বিপরীতটাও হতে পারে। একজন ব্যক্তি হয়ত সোশ্যালি খুবই একটিভ। তার বন্ধু-বান্ধব বা সুহৃদের অভাব নেই। আত্মীয়স্বজন, পাড়াপ্রতিবেশীদের সাথেও তার খুবই সখ্যতা। কিন্তু তারপরও দিনশেষে ঘরে ফিরে ওই ব্যক্তির নিজেকে একা মনে হতে পারে। নিজের মনের কথা, নিজের সুখ-দুঃখ বা ভালো লাগা-মন্দ লাগার কথা কারও সাথে ভাগ করে নিতে না পারায় তার বুকের ভেতরটা খাঁ খাঁ করতে পারে। তার অন্তরের অন্তস্থল থেকে তীব্র হাহাকার উতসারিত হতে পারে। আর তাহলে ওই ব্যক্তি alone না হলেও তাকে lonely হিসেবেই বিবেচনা করতে হবে।

তবে এখানে একটি আগ্রহোদ্দীপক বিষয় হলো, যে ব্যক্তি alone হলেও lonely নয়, আর যে ব্যক্তি alone না হয়েও lonely, তারা কেউই কিন্তু জীবনে পুরোপুরি অসুখে নেই। তাদেরকে বলা যায় আংশিক অসুখী (partial unhappy)। তাদের জীবনে সুখ আর অসুখের মধ্যে ঠিক ভারসাম্য বজায় না থাকলেও, কোনটির পাল্লাই খুব ভারি বা খুব হালকা নয়। আর তাই এরকম মানুষদের জীবনকে ঠিক সংকটাপন্নও বলা যায় না। তারা হয়ত একধরণের মানসিক অসামঞ্জস্যতার শিকার, তবে জীবনের যেকোন পর্যায়ে এই অসামঞ্জস্যতা কাটিয়ে উঠে সুস্থ, সুন্দর, স্বাভাবিক জীবনে প্রত্যাবর্তনের সুযোগ ও সম্ভাবনা তাদের সামনে রয়েছে।

কিন্তু একবার ভেবে দেখুন তো, সেই সকল ব্যক্তি যারা একই সাথে জীবনে প্রচন্ ডরকমের একা এবং তার দরুণ চরম একাকীত্বকে সঙ্গী করে বেঁচে থাকে, তারা ঠিক কতটা অসহায়? তারা এমনই এক রোগের শিকার, যার খুব সহজ কোন চিকিৎসা নেই। এক অসীম চক্রের (infinite loop) এর মধ্যে এমন ব্যক্তিদের নিত্য বসবাস। তাদের একত্ব আর একাকীত্ব চক্রাকারে কেবল বাড়তেই থাকে। যে ব্যক্তি যত একা, সে ব্যক্তি তত বেশি একাকীত্ব অনুভব করে। আর এই একাকীত্ব তাকে নতুন করে আরও তত বেশি একা করে দেয়। আবার সেই একা থাকা তার একাকীত্বের পরিমাণকে আরও বাড়িয়ে দেয়। এবং এভাবেই চলতে থাকে আজন্মকাল। মহাশূণ্যের বিস্তৃতি যেমন অসীম, আর তার বর্ণ যেমন জমাটবাঁধা অন্ধকার, একাকী ব্যক্তির একাকীত্বের স্বরূপও ঠিক তেমনই, খুব বেশি অভিন্ন নয়।

এবং এই স্বরূপকে আরও সহজ ও বোধগম্যভাবে প্রকাশ করা যায় যে দৃষ্টান্তের মাধ্যমে, সেটি হলো লুডু স্টার। লুডু স্টারেও আমরা প্রায় একই ধরণের চিত্রেরই দেখা পাই। সেখানে আমরা দেখতে পাই, যে ব্যক্তির গোল্ড যত বেশি, সে ব্যক্তি তত বড় বাজি ধরতে পারে, এবং তা জিতে খুব সহজেই নিজের গোল্ডের পরিমাণ অনেক বেশি বাড়িয়ে নিতে পারে। এবং এর মাধ্যমে সে ক্রমেই ধনী ও সমৃদ্ধশালী হয়ে উঠতে থাকে। একবার যে ব্যক্তি লুডু স্টারে ধনী ও সমৃদ্ধশালী হয়ে উঠতে পারে, তার আর কখনও পেছন ফিরে তাকাতে হয় না। সে কেবল সামনের দিকেই এগোতে থাকে, এগোতে থাকে, এবং এগোতেই থাকে। অর্থাত সেও এক ধরণের infinite loop-এ বন্দী।

এ থেকে সহজেই বোঝা যায়, একাকী ব্যক্তির একাকীত্ব আর লুডু স্টারে ধনী ও সমৃদ্ধশালী ব্যক্তির চক্রাকারে বাড়তে থাকা গোল্ড, এরা খুব আলাদা কিছু নয়। বরং এরা একই মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ।

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।