আগে পেছনের সারিতে নাচতেন, এখন সবাইকে নাচান

ড্যান্স এবং বলিউড— যেনো একটা আরেকটার অবিচ্ছেদ্য অংশ। আসলেই কিন্তু তাই। ড্যান্স ছাড়া বলিউডি ছবি কল্পনাও করা যায় না। এ দুটো যুক্ত হয়ে একটি অসাধারণ সংমিশ্রণ সৃষ্টি করে, যা আমরা গত কয়েক দশক ধরে উপভোগ করে আসছি। যাই হোক, ড্যান্সারদের অভিনয়শিল্পী হয়ে যাওয়াটা দেখতে কিন্তু মোটেই বেমানান নয়। আজকাল বলিউডে যে সকল বড় ও উজ্জল তারকাদের আমরা চিনি, তারা অনেক স্ট্রাগল করেছেন এবং অবস্থান ধরে রাখার জন্য এখনো কঠোর সংগ্রামে লিপ্ত আছেন।

চলুন এমন কিছু জনপ্রিয় সেলেব্রিটির কথা জেনে নেই – যারা একসময় ব্যাকগ্রাউন্ড ড্যান্সার ছিলেন, মানে নায়ক-নায়িকাতের পেছনের সারিতে নাচতেন। কিন্তু সময়ের সাথে সাথে শ্রম ও অধ্যবসায়ের ফলে তারা হয়ে ওঠেছেন নামি-দামি তারকা। এখন তাদের পেছনে নাচেন অন্যরা।

শহীদ কাপুর

শহীদ কাপুর— বলিউডের হার্টথ্রব নায়কদের একজন। নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার দরকার পড়ে না। অসংখ্য হিট ছবি আছে তার ঝাঁপিতে। কিন্তু এমনি এমনি তো আর প্রতিষ্ঠা পেয়ে যাননি, ক্যারিয়ারের শুরুতে ঘাম ঝরাতে হয়েছে প্রচুর। ব্যাকগ্রাউন্ড ড্যান্সার হিসেবে কাজ করেছেন ‘দিল তো পাগল হ্যায়’ ছবির ‘মুঝকো হুই না খবর’ ও ‘তাল’ ছবির ‘কাহি আগ লাগে লাগ যায়ে’-সহ বেশ কয়েকটি গানে।

কাজল আগারওয়াল

রুপের জাদুতে মাতিয়ে রাখেন সাউথ থেকে মুম্বাই পর্যন্ত। হিন্দি, তামিল, তেলেগু সব জায়গায়ই যার সমান পদচারণা, তিনি লাস্যময়ী অভিনেত্রী কাজল আগারওয়াল। নায়িকা হওয়ার আগে ‘কিউ! হো গ্যায়া না…’ ছবির ‘উলজানে’ গানে ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চনের পাশে ড্যান্স করতে দেখা গেছে ‘সিংঘাম’ ছবির এই তারকাকে।

দিয়া মির্জা

ভারতীয় সিনেমার এক সময়ের ডাকসাইটে নায়িকা দিয়া মির্জা। ‘রেহনা হ্যায় তেরে দিল ম্যায়’-সহ বেশ কিছু ছবিতে ভালো অভিনয় করেছেন। তবে সাবেক মিস এশিয়া প্যাসিফিক এই অভিনেত্রী ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন দক্ষিণ ভারতীয় সিনেমার ব্যাকগ্রাউন্ড ড্যান্সার হিসেবে। ‘ইন সুহাসা কাটরা’ ছবির ‘ঝুমবালাকা’ গানে তার উপস্থিতি বেশ নজরকাড়া ছিলো।

ইশা শারভানি

‘তাল’ ছবির ‘কাহি আগ লাগে লাগ যায়ে’ গানে শুধু শহীদ কাপুরকেই একা দেখা যায়নি। ঠিক একই ব্যাকগ্রাউন্ডে অভিনেত্রী ইশা শারভানিও ছিলেন।

ডেইজি শাহ

কয়েক বছর আগে মুক্তি পাওয়া সালমান খানের ‘জয় হো’ সিনেমার কথা মনে থাকারই কথা। ওই সিনেমার মধ্যদিয়ে যে নায়িকার অভিষেক হয়েছে তিনি ডেইজি শাহ। তিনিও এক সময় ব্যাকগ্রাউন্ড ড্যান্সার ছিলেন। তবে মজার ব্যাপার হলো— যে নায়কের হাত ধরে বলিউডে তার নায়িকা হিসেবে অভিষেক, সেই সালমান খানের পিছনে এক সময় তিনি ব্যাকগ্রাউন্ড ড্যান্সার হিসেবে নেচেছেন। ‘তেরে নাম’ ছবির ‘লাগান লাগি’ গানে তার উপস্থিতি দেখা গেছে।

সুশান্ত সিং রাজপুত

ইঞ্জিনিয়ারিং শেষ করে ক্যারিয়ার গড়ার আশায় বলিউডে পাড়ি জমান সুশান্ত সিং। কিন্তু খুব একটা সুবিধা করতে পারছিলেন না। আমির খানের ‘পিকে’ ছবিতে অভিনয়টা তাকে বেশ আলোচনায় নিয়ে আসে। গত বছর মুক্তি পাওয়া ভারতীয় ক্রিকেটার এস.এস ধোনীর জীবনী নিয়ে নির্মিত ‘এম.এস ধোনি: দ্য আনটোল্ড স্টোরি’ ছবিতে অসাধারণ অভিনয় মধ্যদিয়েই বাজিমাত করেন এই হার্টথ্রব। কিন্তু অনেকেই জানেন না, তিনিও এক সময় ব্যাকগ্রাউন্ড ড্যান্সার ছিলেন। হৃতিক রোশনের ‘ধুম ২’ ছবির ‘ধুম মাচালে’ গানে ড্যান্স করেছেন তিনি।

নিতু চন্দ্র

‘গরম মশলা’ ছবিতে অসাধারণ অভিনয় করে  সাড়া ফেলে দিয়েছিলেন নিতু চন্দ্র। তার ক্যারিয়ারও শুরু হয়েছিলো ব্যাকগ্রাউন্ডে ড্যান্সের মধ্যদিয়ে। সোফির ‘মেরা বাবু ছেল ছাবিলা’ গানে দেখা গেছে তাকে।

রেমো ডি’সুজা

বলিউডের নামকরা কোরিওগ্রাফার। এক নামেই সবাই চিনে। মাঝে মাঝে টুকটাক ফিল্মও বানান। ‘এবিসিডি’ ‘এবিসিডি টু’ ‘ফালতু’ ‘অ্যা ফ্লাইং জেট’-এর মতো ব্যবসা সফল ছবি তার হাত ধরেই এসেছে। কিন্তু এসব কিছুর আগে তিনি স্রেফ ব্যাকগ্রাউন্ড ড্যান্সার ছাড়া আর কিছুই ছিলেন না। শাহরুখ খানের একটি গানে তার উপস্থিতি টের পাওয়া যায়।

ফারাহ খান

‘ওম শান্তি ওম’ এবং ‘হ্যাপি নিউ ইয়ার’ খ্যাত পরিচালক ফারাহ খান মূলত একজন কোরিওগ্রাফার। অসংখ্য গানের কোরিওগ্রাফ করেছেন। এছাড়া প্রযোজনা, অভিনয় কিংবা রিয়েলিটি শো’র বিচারক —  সবখানেই তার আলাদা একটা কদর আছে। কিন্তু অবাক করা বিষয় হলেও সত্যি, তার ক্যারিয়ারও শুরু হয়েছে নায়কের পিছনে ড্যান্সের মধ্যদিয়ে! ‘সদা সোহাগান’ ছবিতে ‘হাম হ্যায় নওজাওয়ান’ গানে অভিনেতা গোবিন্দর সঙ্গে ব্যাকগ্রাউন্ড ড্যান্সার হিসেবে নেচেছেন তিনি।

সরোজ খান

সরোজ খানের হাত ধরে বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে কতো শতো যে ড্যান্স স্টারের জন্ম হয়েছে তার হিসেব নেই। অবাক করার মতো বিষয়, এই মাস্টারজি নিজেই বলিউড দুনিয়ায় পদার্পণ করেছিলেন ব্যাকগ্রাউন্ড ড্যান্সার হিসেবে। আশোক কুমার আর মধুবালার বিখ্যাত ছবি ‘হাওড়া ব্রিজ’-এর ‘আয়ে মেহেরবান’ নামক একটি গানের ব্যাকগ্রাউন্ডে ড্যান্স করেছেন তিনি।

আরশাদ ওয়ারসি

‘মুন্নাভাই এমবিবিএস’ কিংবা ‘গোলমাল’-এর মতো সিনেমায় নিজের জাত চিনিয়েছেন আরশাদ ওয়ারসি। কিন্তু অনেকেই জানে না যে, অভিনেতা হওয়ার পূর্বে তিনি একজন কোরিওগ্রাফার ছিলেন, এবং তার শুরুটা হয়েছিলো ব্যাকগ্রাউন্ড ড্যান্সার হিসেবে। জিতেন্দ্র ও কিমি কাটকার অভিনীত ‘আগ সে খেলেঙ্গে’ ছবির ‘হেল্প মি’ গানে ড্যান্স করেছেন তিনি।

সাজিদ খান

মজার ব্যাপার হলো জিতেন্দ্র ও কিমি কাটকার অভিনীত ‘আগ সে খেলেঙ্গে’ ছবির ‘হেল্প মি’ গানে ব্যাকগ্রাউন্ডে আরশাদ ওয়ারসির সাথে সাজিদ খানকেও দেখা গেছে। এমনকি তিনি এমন একজন, যিনি কিনা এই সত্যটি অবলীলায় সবার সঙ্গে শেয়ার করেছেন।

অনুরাগ বসু

অনুরাগ বসু — পরিচয়ের জন্য শুধু এই একটা নামই যথেষ্ট। ‘বরফি’ কিংবা ‘জাজ্ঞা জাসুস’-এর মতো ছবি তার হাত দ্বারাই বানানো সম্ভব। এই ডিরেক্টর কলেজ ছেড়ে ফিল্মে এসেছিলেন, এবং ব্যাকগ্রাউন্ড ড্যান্সার হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করেন।

https://www.mega888cuci.com