দেশটা আমাদের, চাইলে আমরাই পারবো

স্বাধীনতা দিবস আসছে এবং একই সাথে শুরু হয়েছে দেশকে নিয়ে হাজার হাজার নেতিবাচক কথা!

মজার ব্যপার হচ্ছে, আমরা শুধু নেতিবাচক কথাই ভালবাসি। কিভাবে তার সমাধান করা যায় তা নিয়ে কোন মাথাব্যথা নেই।

কিছুদিন আগে ফার্মগেটে লোকাল বাসে একজন নারী যাত্রীকে হেনস্থা করা হয়। উনি ঝুঁকি নিয়ে চলন্ত বাস থেকে লাফ দিয়ে পালিয়ে বাঁচেন! ফেসবুকে এই ঘটনা তিনি শেয়ার করেন। হাজার হাজার শেয়ার হয়।

ফেসবুক এখন অন্যতম শক্তিশালী একটি মিডিয়া। ফেসবুক থেকেই অন্যান্য বিভিন্ন মিডিয়ায় অনেক নিউজ ভাইরাল হয়। এই খবরটিও হয়েছিল। তারই ফলশ্রুতিতে এই খবর নজরে আসে আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর। গ্রেফতার করা হয় ঐ বাসের চালক আর হেলপারকে।

মজার বিষয় হচ্ছে, ঐ আপুর পোস্ট শেয়ার করা হাজার হাজার ‘সচেতন ফেসবুকার’ এর মধ্যে ১০০ জনও এই গ্রেফতারের খবর শেয়ার করেছেন কি না সন্দেহ!

কিছু একটা হলেই এদেশে একদল মানুষের মুখে শুনবেন, পুলিশকে বলে লাভ নেই। এই করে লাভ নেই, সেই করে লাভ নেই! অথচ সামান্য চেষ্টাতেও কত কিছু হওয়া সম্ভব! আমরা কয়জন এই চেষ্টাটুকু করি?

সবচেয়ে দু:খজনক ব্যাপার হচ্ছে হেনস্তার শিকার ঐ আপু তার পোস্টের শেষে এমনভাবে বংগবন্ধুকে শুভ জন্মদিন লিখেছেন যেন বংগবন্ধু দেশ স্বাধীন করে অপরাধ করেছিলেন বলেই আজ দেশে এসব ঘটছে!

পৃথিবীতে এমন একটি দেশও নেই, যেখানে অপরাধ সংঘটিত হয় না। তবে সেইসব অপরাধের জন্য জাতির জনককেই দায়ী করা হয়, এমন দেশ মনে হয় আর একটাও নেই!

এর কিছুদিন পরেই নিউমার্কেটের কাছে চাঁদনী চক মার্কেটে কয়েকজন নারীর সাথে অশালীন আচরণ করেন কয়েকজন দোকান কর্মচারী। পরবর্তীতে তারাও ফেসবুকে সেই ঘটনা লেখেন এবং এক পর্যায়ে আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী ঐ নারীদের সাথে করে নিয়ে গিয়ে অপরাধী দোকান কর্মচারীদের গ্রেফতার করে। গ্রেফতারের পর পর অন্যায়ের শিকার এক আপু খুশিতে হাউ-মাউ করে কেঁদে ফেলেন!

এই ঘটনা কি আমরা শেয়ার করেছি? আমরা শুধু অন্যায়টুকুই শেয়ার করে যাব? কিভাবে তার প্রতিকার সম্ভব সেই ঘটনাগুলো এড়িয়ে যাব? অথচ এই খবরটুকু শেয়ার হলে আরো অনেক নির্যাতিত মানুষ প্রতিবাদ করার সাহস পেতেন। একশ জন পুলিশকে অভিযোগ জানালে অন্তত ১০ জন কি প্রতিকার পেতেন না? শুন্য প্রতিকারের চেয়ে কিছু প্রতিকার কি ভাল নয়?

অপরাধ হয়, অন্যায় হয়, এটা সবাই জানে। সেগুলোর প্রতিকারও যে হয় এটাও সকলের জানা উচিত।

পৃথিবীর কোন দেশই ১০০% শান্তির দেশ নয়। অশান্তি সবখানেই আছে, অপরাধ সবখানেই হয়। তফাৎ হচ্ছে সে অপরাধীকে অপরাধী বলা হয় কি না। অন্যায়কে অন্যায় বলা হয় কি না। সেগুলোর প্রতিকারের চেষ্টা করা হয় কি না।

শত শত দুর্নীতিবাজ পুলিশ অফিসার যেমন আছেন, শত-শত ন্যায়নিষ্ঠ পুলিশ অফিসারও অবশ্যই আছেন। আমাদের দায়িত্ব এই ভাল অফিসারদের হাতকে শক্তিশালী করা।

দেশটা আমাদের। চাইলে আমরাই পারবো!

আলোকচিত্র: মুক্তার হোসেন

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।