কখনো পেছনে ফিরে তাকাই না

আমি সবসময় চ্যালেঞ্জিং সব চরিত্র খুঁজি বেড়াই। এমন চরিত্রগুলো চাই, যেখানে আমি নতুন কিছু শিখতে পাবো। আর আমি সাথে এটাও চাই যে, দর্শক আমাকে সবসময় ভিন্ন কিছু করতে দেখুক। আমি যদি সব্যসাচী অভিনেতা না হই, তারা ধীরে ধীরে বিরক্ত হয়ে যাবে।

একজন অভিনেতা হিসেবে আমি প্রতি মুহূর্তে নিজেকে নতুন করে আবিষ্কার করি। এর বাদেও, গেল কয়েক বছর ধরে হিন্দি চলচ্চিত্রের দৃশ্যপট ও ধরণ বদলে গেছে। এখন ছোট্ট শহরের ছোট ছোট জীবনের লৌকিকতা বর্জিত টুকরো গল্প নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মিত হচ্ছে।

এই ব্যাপারটা আমার জন্য ভাল। বলা উচিৎ, শুধু আমার জন্যই নয়, প্রতিভা থাকা সত্ত্বেও যারা এখনো ব্রেক পায় নি, তাদের জন্যও এটা দারুণ একটা ব্যাপার। আর পরিচালকরা এমন চলচ্চিত্র বানাচ্ছেন, এবং অভিনেতারাও এমন চরিত্র গ্রহণ করছেন, যার মাধ্যমে সমাজে বৃহত্তর প্রেক্ষপটে ইতিবাচক প্রভাব ফেলা যায়।

এখন অনেক অভিনেতাই নিজেদের পায়ের নিচের মাটি খুঁজে পেয়েছেন। সিনেমা নির্মাতারা এখন আর কেবল গুটিকয়েক অভিনেতার ওপর নির্ভরশীলন নন। তাঁদের হাতে অনেক বিকল্প আছে।

আই এই মুহূর্তে নিজের কাজ নিয়ে খুব সচেতন। আমি এই মূহুর্তে কোনখানেই হুট করে ঝাপিয়ে পড়তে আগ্রহী না। আমি এখনো দর্শকের সাথে যুক্ত হবার মত মোক্ষক কনটেন্টের অপেক্ষায় আছি। ওয়েব সিরিজগুলো চলচ্চিত্রের মত হওয়া উচিত। বাইরের দেশে প্রত্যেকটা এপিসোড চলচ্চিত্রের মত হয়, কিন্তু আমাদের দেশে ডিজিটাল স্পেসে ওয়েব সিরিজের নামে টিভি সিরিয়াল নির্মিত হচ্ছে। তাই এই মূহুর্তেই আমি কোন সিদ্ধান্ত নিচ্ছি না।

একটা সময় দর্শকের ওপর সিনেমার প্রভাবটা অন্যরকম ছিল। যে ব্যাপারটা আমার মত অভিনেতাদেরও প্রভাবিত করতো। তবে, পরিবর্তন তো আসবেই। তাই, আমি কখনো পেছনে ফিরে তাকাই না। যা করেছি, তার জন্য কোনো অনুশোচনায় ভুগি না।

আমি মনে করি, সব কিছুরই একটা সময় আছে। একজন অভিনেতা যখন খুব বেশি বিরক্ত হতে থাকে, তখন সেটা তাঁর শিল্পের ওপর বাজে প্রভাব ফেলে। একজন অভিনেতার জন্য সবচেয়ে বড় ব্যাপার হল – কাজে মনোযোগ ধরে রাখা আর সময়ের থেকে এগিয়ে গিয়ে কাজটা করা।

_______________

কথা গুলো ডিএনএ ইন্ডিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন অভিনেতা দীপক দোব্রিয়াল। জন্ম ১৯৭৫ সালের এক সেপ্টেম্বর। তিনি চলতি সময়ে বলিউডে খুবই প্রতিভাবান, তবে আন্ডাররেটেড অভিনেতাদের মধ্যে একজন। তিনি ‘ওমকারা’, ‘তানু ওয়েডস মানু’, ‘হিন্দি মিডিয়াম’, ‘আঙরেজি মিডিয়াম’, ‘১৯৭১’, ‘কামিয়াম’, ‘কালাকান্দি’ ইত্যাদি ছবি করে প্রশংসিত হয়েছেন।

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।