টাবু: অভিনব, অনন্য ও অন্যরকম

কিছু কিছু অভিনেতা-অভিনেত্রী ভিন্ন ধারায় সফল হলেও তাদের বেশির ভাগই মূলধারায় ব্যর্থ হয়ে অফ-ট্র্যাকে পা রেখেছিলেন। মূলধারায় জনপ্রিয় হবার জন্য অনেক সময় শুধু ভালো অভিনয়টাই যথেষ্ট নয়, এর সাথে বাহ্যিক সৌন্দর্য কিংবা আরো কিছু বিষয় চলে আসে। অনেক সময় কোনো এক বিচিত্র কারণে বাহ্যিক সৌন্দর্যসম্পন্ন অভিনেতা-অভিনেত্রীদেরকেও বাণিজ্যিক ঘরানার সিনেমায় দর্শকরা গ্রহণ করেন না। তবে এই সমীকরণ বদলে দেয়া একটি নাম হচ্ছে টাবু। বলিউডের এই শক্তিশালী এবং দক্ষ অভিনেত্রী বানিজ্যিক এবং ভিন্নধারা দুটি মাধ্যমেই জনপ্রিয়তা এবং প্রশংসা পেয়েছেন।

তাবাচ্ছুম টাবু হাশমী নামে ১৯৮২ সালে বাজার নামক সিনেমায় একটি ছোট চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি। পরবর্তীতে ১৯৮৫ সালে চৌদ্দ বছর বয়সে ‘হাম নওজোয়ান’ নামক সিনেমায় দেব আনন্দের মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করে সবার নজরে আসেন। তবে অভিনেত্রী হিসেবে তার প্রথম চলচ্চিত্র ছিল ভেঙ্কটেশের সঙ্গে তেলুগু ভাষায় কুলি নাম্বার ওয়ান।

প্রধান নারী অভিনেত্রী হিসেবে টাবুর প্রথম হিন্দি চলচ্চিত্র ছিল ‘প্যাহলা প্যাহলা প্যায়ার’ যেটি ১৯৯৪ সালে মুক্তি পায়। এটি বক্স অফিসে তেমন সাড়া পায়নি। একই বছর অজয় দেবঘনের বিপরীতে বিজয়পথ সিনেমা তাকে নায়িকা হিসেবে জনপ্রিয়তা এবং খ্যাতির ঝলক দেখায়। এই সিনেমায় রুক রুক রুক আরে বাবা রুখ বা রাহো মে উনছে মুলাকাত হো গানগুলো এখনো ব্যাপক জনপ্রিয়। এবং এই সিনেমায় অভিনয় করে ওই বছর সেরা নবাগতার ফিল্মফেয়ার পুরস্কার অর্জন করেন তিনি। তারপরের গল্পটা শুধুই এগিয়ে যাবার।

বানিজ্যিক সিনেমার সফলতা তাকে আনন্দিত করতো, জনপ্রিয়তা, খ্যাতি এবং প্রশংসা পাচ্ছিলেন তিনি। কিন্তু অভিনেত্রী হিসেবে নিজেকে তৃপ্ত একজন শিল্পী হিসেবে অভিনয়ের ক্ষুধা তাকে তাড়িয়ে বেড়াতো। এবং উল্লেখ্য নব্বই দশকে নারী অভিনেত্রীদের নিয়ে তেমন কোন গল্প বা সিনেমা নির্মান করা হতোনা। তাই টাবু ঝুকেছিলেন ভিন্নধর্মী সিনেমার প্রতি।

যেখানে নায়িকারা এসব সিনেমার দিকে মনোযোগ দেন চল্লিশ পার করার পর সেখানে টাবু ২৪/২৫ বছর বয়সেই পা রাখেন। এবং সাফল্যের দেখা পান। বলিউডে পরিবর্তন আসার পেছনে যে কয়জন বানিজ্যিক সিনেমার অভিনেতা-অভিনেত্রীদের কন্ট্রিবিউশান আছে তাদের লিস্টে টাবুর নাম উপরের দিকেই থাকবে।

শিশু অভিনেত্রীর সময়কাল বাদ দিলে প্রায় ২৫ বছরের ক্যারিয়ারে ‘মাচিস’, ‘কালাপানি’, ‘হু তু তু’, ‘ভিরাসাত’, ‘চাঁদনি বার’, ‘জিত’, ‘সাজান চলে শ্বশুরাল’, ‘চাচী ৪২০’, ‘মকবুল’, ‘হায়দার’, ‘দ্য নেমসেক’, ‘চিনি কম’, ‘আন্ধাধুন’, ‘দৃশ্যম’, ‘হাম সাথ সাথ হ্যায়’, ‘গোলমাল এগেইন’-এর মতো সিনেমা করেছেন তিনি। বানিজ্যিক এবং ভিন্নধারার সিনেমা টাবু প্রমান করেছেন দুটি ক্ষেত্রেই সফল হওয়া যায় যদি অভিনয় প্রতিভা এবং অভিনয়ের প্রতি ভালোবাসা থাকে।

ইন্ডাস্ট্রিতে কারো সাথে কখনোই কোন ঝামেলায় জড়াননি টাবু। ব্যক্তিজীবনে চুপচাপ এবং বই পাগল এই অভিনেত্রী শুধু কাজকেই প্রাধান্য দিয়েছেন বরাবর। সবার সাথেই তার সম্পর্ক ভালো। বক্স অফিসেও সাফল্য পেয়েছেন পেয়েছেন কঠোর সমালোচকদের কাছ থেকেই প্রশংসা। দুইবার জিতে নিয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। দুই কুল সমানভাবে ‘রক্ষা’ করে চলা টাবুর মতো কম অভিনেত্রীই আছেন বলিউডে।

ক্যারিয়ার যখন পড়তির দিকে তখন ‘হায়দায়’ দিয়ে চমকে দিয়েছিলেন। কার্যত এই ছবির পর থেকেই একেবারে বেছে বেছে ছবি করছেন। যে জন্য পরের চার বছরে করা ছয় ছবির চারটিই আলোচিত। এর মধ্যে আছে ‘দৃশ্যম’, ‘গোলমাল এগেইন’, ‘আন্ধাধুন’। শেষেরটি ব্যবসা করেছে তিন শ কোটি রুপির বেশি। তার সময়ে তার সাথে ক্যারিয়ার শুরু করা অনেক অভিনেতা-অভিনেত্রী যেখানে অন্তরালে চলে গেছেন সেখানে টাবু কাজ করছেন বিরতিহীনভাবে। একের পর এক ভিন্নধর্মী সিনেমা নিয়ে হাজির হচ্ছেন তিনি এই বয়সেও। তাঁর সৌর্ন্দয্য এবং অসাধারণ অভিনয় দক্ষতা যেন আরো পরিনত হচ্ছে দিন দিন।

কিছুদিন আগে এক অনুষ্ঠানে এক সাংবাদিক জিজ্ঞাসা করেছিল- এই বয়সে এসেও মেইনস্ট্রিম এবং আর্টফিল্ম দুটো মাধ্যমেই সমান তালে সাফল্য পেয়ে যাচ্ছেন? এর রহস্য কি?

কিছুক্ষণ হেসে টাবু বলেছিলেন- ‘আমার ধৈর্য অনেক। মায়ের চরিত্র নাকি মেয়ের চরিত্র এসব নিয়ে মাথা ঘামাইনি কখনো, শুধু ভালো চরিত্র চেয়েছি। ছোট চরিত্র, বড় চরিত্র যখন যেখানে যেমন সুযোগ পেয়েছি করেছি। এটাই ক্যারিয়ারকে একটা স্থিতিশীল অবস্থা দিয়েছে,। আমি দেখতে গুরুগম্ভীর মনে হলেও আমি কিন্তু একেবারেই উল্টো। যেচে মানুষের সঙ্গে আলাপ করি। এ জন্য নানা পেশার নানা ধরনের মানুষের সঙ্গে পরিচয় আছে। ভিন্ন ভিন্ন চরিত্র করতে গিয়ে মানুষের সঙ্গে মেশার অভিজ্ঞতা আমাকে সাহায্য করেছে।’

ক্যারিয়ারজুড়ে নানা ধরনের চরিত্র করেছেন, সবগুলোতেই মানিয়ে গেছেন অসাধারণ ভাবে। সম্প্রতি নন্দিত পরিচালক মীরা নায়ারের পরের ছবিতে কাজ করার জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন তিনি। ‘দ্য নেমসেক’-এর পর ফের মীরার সঙ্গে কাজ করা নিয়ে স্বাভাবিকভাবেই আনন্দিত তিনি। টাবু অভিনীত ‘দে দে পেয়ার দে’ মুক্তি পাচ্ছে আগামীকাল। কমেডি ঘরানার এই সিনেমাতে তাঁর বিপরীতে আছেন অজয় দেবগন। কিছুদিন আগে ‘দৃশ্যম’- সিনেমাতেও পাল্লা দিয়ে অভিনয় করেছিলেন তারা। সামনে লাভ রঞ্জনের নতুন সিনেমাতেও ফের দেখা যাবে এই দক্ষ দুই বলিউড তারকাকে।

সারাবিশ্বে এখন বিনোদনের অন্যতম জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ওয়েব সিরিজ আলোচিত হচ্ছে। ভারতেও অনেকগুলো ওয়েব সিরিজ এরইমধ্যে আলোচিত এবং জনপ্রিয় হয়েছে। সামনের বড় পর্দার কাজগুলোর সঙ্গে ওয়েব নিয়েও খুব আশাবাদী টাবু। তাঁর মতে, ‘এই ঘরানায় দারুণ দারুণ কাজের সুযোগ আছে। এবং ইন্টারনেটের মাধ্যমে খুব সহজেই কাজ নিয়ে সারাবিশ্বের দর্শকদের কাছে পৌছে যাওয়া যায়।’

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।