নামে কি আসে যায়!

নামে নয়, গুণে পরিচয়। যদিও, রুপালি পর্দায় নামটাও সমান গুরুত্বপূর্ণ। অনেক ক্ষেত্রে তারকাদের নাম পাল্টে পর্দায় আসতে দেখা যায়। বলিউডে অনেকেই নাম পরিবর্তন করেন, বানান পাল্টান। আবার অনেকে নিজেদের নাম ছোট করে হাজির হন পর্দায়। তবে, দিন শেষে নাম নয় কাজের গুনেেই তাঁরা দর্শক-সমালোচকদের কাছে সুপরিচিত হয়েছেন।

  • গোবিন্দ

গোবিন্দ, ভারতের ‘হিরো নাম্বার ওয়ান’-এর পুরো নাম গোবিন্দ আহুজা।

শ্রীদেবী

সম্প্রতি মারা যাওয়া এই ড্রিমগার্লের আসল নাম শ্রী আম্মা ইয়াঙ্গার ইয়াঙ্গার আপ্পান।

  • টাবু

বলিউডের শক্তিশালী এই অভিনেত্রীর আসল নাম তাবাস্সুম ফাতিমা হাশমি।

  • রজনীকান্ত

ভক্তরা তাঁকে ডাকেন ‘দ্য থালাইবা’ নামে। তবে, এই ভারতীয় সুপারস্টারের আসল নাম হল ‘শিবাজী রাও গাইকড়।

  • কাজল

বলিউডের বাঙালি অভিনেত্রী কাজলের পুরো নাম হল কাজল মুখার্জী।

  • হেলেন

নাচ দিয়ে অসংখ্য পুরুষের রাতের ঘুম হারাম করা হেলেনের পুরো নাম হল হেলেন জেইরাগ রিচার্ডসন। তিনি আদতে ভারতীয় উপমহাদেশেরও কেউ নন। তিনি মূলত মায়ানমারের বংশদ্ভুত। ‍খুব অল্প বয়সেই চলে আসেন ভারতে।

  • রেখা

চিরসবুজ রেখার পুরো নাম হল ভানুরেখা গনেসন। তিনি হলেন তামিল সুপারস্টার জেমিনি গনেসন ও তেলেগু অভিনেত্রী পুষ্পাবল্লির মেয়ে।

  • কিয়ারা আদভানি

খুব কম লোকই জানেন যে, এই নায়িকার আসল নাম হল আলিয়া আদভানি। প্রথম সিনেমার আগেই নাম পাল্টে কিয়ারা রাখা হয়। কারণ, একই সময়ে আলিয়া ভাট নামে যে আরেকজন আছেন।

  • অক্ষয় কুমার

বলিউডে অক্ষয় কুমার এখন একটা ব্র্যান্ডের নাম। যদিও, ‘খিলাড়ি’ খ্যাত এই অভিনেতার এটা আসল নাম নয়। তাঁর আসল নাম রাজিব হারি ওম ভাটিয়া।

  • মধুবালা

তিনি রুপের রানী, ট্র্যাজেডিরও রানী। হিন্দি সিনেমায় তিনি মধুবালা নামে পরিচিত হলেও তাঁর আসল নাম মুমতাজ জেহান দেহলভি।

  • সাইফ আলী খান

লখনৌর বিখ্যাত নবাব পরিবারের ছেলে, ‘ছোটে নবাব’ খ্যাত সাইফ আলী খানের সত্যিকারের নাম শুনলেও ভক্তরা চমকে উঠতে বাধ্য। তাঁর আসল নাম হল সাজিদ আলী খান! তবে, সিনেমায় আসার আগেই নামটা পাল্টে ফেলা হয়।

  • দিলীপ কুমার

স্টারডম কি জিনিস, প্রথম সেটা ভারতীয় সিনেমায় বুঝিয়েছিলেন দিলীপ কুমার। তবে, এটা অবশ্য তাঁর বাবা-মা’র দেওয়া নাম নয়। তাঁর আসল নাম মোহাম্মদ ইউসুফ খান। সিনেমায় আসার পরই নামটা পাল্টে ফেলেন তিনি।

– বলিবাইটস.কম অবলম্বনে

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।