রোমান্টিকতার দুনিয়ায় স্বাগতম

বলা বাহুল্য জনরা হিসেবে সব সময় রোমান্টিক ছবি সবার কাছেই বরাবর প্রাধান্য পেয়ে আসে। সাউথ ইন্ডিয়ান ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিও এখানে পিছিয়ে নেই। বলা উচিৎ, ভারতে সময়ের সেরা রোমান্টিক ছবিগুলো এখানেই নির্মিত হচ্ছে। তারই মধ্যে কয়েকটা নিয়ে আমাদের এবারের আয়োজন।

  • নাইন্টি সিক্স (২০১৮)

রোমান্টিক সিনেমার কথা মাথায় আসলে আমার সর্বপ্রথম মাথায় চলে আসে এই ছবিটির কথা। স্কুল জীবনের প্রেমের দিনগুলো যে কাউকে মুহুর্তেই নস্টালজিয়ায় ডুবিয়ে ফেলতে পারে। মাধ্যমিক স্কুলে প্রেম আর তার ২২ বছর পর রি-ইউনিয়নে দেখা! রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একরাত্রি গল্পটি যারা পড়েছেন তারা প্লিজ এই ছবিটি মিস করবেন না।

  • চার্লি (২০১৫)

এই ছবির নামটাই ছোটখাটো একটা রিভিউ।এই মুভির নাম মনে পড়লেই দুলকার সালমান আর অপরূপা পার্বতীর চেহারা চোখে ভাসবে। ভবঘুরে চার্লিকে খোঁজার জন্য হন্যে হয়ে থাকে অ্যাডভেঞ্চার প্রিয় থেসা। সেই পথের প্রতিটি মোড়ে থাকে নানারকম বৈচিত্র্যতা। এই সিনেমার বিজিএম-এর লোকেশন আজীবন মনে রাখার মত।

  • প্রেমাম (২০১৫)

সাই পল্লবী, নিভিন পাওলি কিংবা অনুপমা কে ভালোবাসেন? চোখ বন্ধ করে দেখে ফেলুন প্রেমাম। জীবনের নানান সময়ের প্রেম তুলে ধরা হয়েছে এতে। সাই পল্লবীর একটি নাচের দৃশ্য আছে এই ছবিতে, অন্তত সেটি দেখান জন্যে হলেও ছবিটি দেখা জরুরি।

  • দিয়া (২০২০)

ইদানিংকালের খুবই হাইপ তোলা সিনেমা এটি। দিয়া, আদি আর রোহিত এর গল্প থাকে এই ছবিজুড়ে। প্রত্যেকের অভিনয়ই ছিলো অসাধারণ। সিনেমার শেষদিকটা সবার হৃদয় ভেঙে দিয়েছিলো। লাইফ ইজ ফুল অব সারপ্রাইজেস এন্ড মিরাকলস!

  • ব্যাঙ্গালোর ডেয়জ (২০১৪)

ফাহাদ ফাসিল, দুলকার সালমান, নিভিন পাওলি আর নাজরিয়া নাজিম-এর সিনেমা। কাস্ট দেখেই বুঝে ফেলার কথা কেমন হতে পারে সিনেমাটি। খুবই সাদামাটা কিন্তু চোখজুড়ানো গল্প এটি। সবসময়ের রোমান্টিক সিনেমার তালিকায় প্রথম সারিতে থাকবে এটি।

  • ওম শান্তি ওশানা (২০১৪)

এক্সপ্রেশনের রানী নাজরিয়া নাজিম-এর প্রেমে কে পড়েননি? ‘ব্যাঙ্গালোর ডেয়জ’-এর এই হিরোইন এর দুষ্টুমি আর নিভিন পাওলির সাথে রোমান্টিকতা দেখার জন্য এই ছবিটি মাস্ট ওয়াচ!

  • গিতা গোবিন্দাম (২০১৮)

রাশ্মিকাকে অনেকেই চিনেন এই সিনেমার মাধ্যমে। বিজয় দেবারাকোন্ডার সাথে এক বাস জার্নিতে তাদের পরিচয়, সেখানেই বেঁধে যায় তাদের বিরোধ। তারপরের গল্পটুকু জুড়ে রাশ্মিমার এক্সপ্রেশন আর তার প্রেমে বিজয়ের পুঁড়ে যাওয়াটা চলতে থাকে।

  • ফিদা (২০১৭)

গ্রামের মেয়ে ভানুমতি (সাই পল্লবি) আর আমেরিকা প্রবাসী ডাক্তার ভারুন (ভারুন তেজ)। ভারুন এই ভাইয়ের সাথে ভানুর বোনের বিয়ে হয়, একই সাথে মনের বিনিময় তাঁদের দুজনের। এরপরের গল্পটায় থাকে রোমান্টিকতা আর মান-অভিমানে ভরপুর নাটকীয়তা।

  • ডিয়ার কমরেড (২০২০)

বিজয়-রাশ্মিকা জুটির দ্বিতীয় হিট ছবি এটি। ছাত্রদের নেতা বিজয় আর এক ক্রিকেটার রাশ্মিকার জীবনের গল্প হুট করে একই সুতোয় বেঁধে যায়। তারপর আবার সেই গল্পে ঝড় আসে। শেষদিকে খুবই সুন্দর একটি সামাজিক বার্তা থাকে।

  • কুমারি ২১এফ (২০১৫)

অনেকেই অবাক হতে পারেন এই সিনেমাটির নাম দেখে, আসলেই কি এটি সেরা দশ রোমান্টিক সিনেমার তালিকায় আসতে পারে কিনা, আমার মতে পারে। ছবি শেষটা আমাকে প্রবলভাবে নাড়া দিয়েছিলো। নিজের প্রিয় মানুষটার জন্য একটি ছেলে কেমন চ্যালেঞ্জ নিতে পারে সেটি দেখতে হলে এই সিনেমা দেখা উচিত।

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।