হার্টথ্রুব থেকে সাদামাটা; এরপর?

ববি দেওলকে নিয়ে আলোচনা সেই ২০০৩-৪ সাল থেকে বন্ধ আছে। এটা ঠিক যে ২০১০ সালে তাঁর অভিনিত ‘ইয়ামলা পাগলা দিওয়ানা’ প্রায় পৌনে ২০০ কোটি রুপি আয় করেছে, তবে সেই সিনেমায় তাঁর চেয়ে ধর্মেন্দ্র কিংবা সানি দেওলের ভূমিকাই ছিল বেশি।

অথচ, ক্যারিয়ারের শুরুটা তাঁর জন্য কি মসৃনই না ছিল। ১৯৭৭ সালে ‘ধারাম বীর’ সিনেমায় বাবা ধর্মেন্দ্রর শৈশবের চরিত্রে অভিনয় করেন। নায়ক হিসেবে অভিষেক হয় ১৯৯৫ সালের সুপার হিট সিনেমা ‘বারসাত’ দিয়ে।

এরপর ‘সোলজার’, ‘গুপ্ত’, ‘বাদাল’-এর মত ব্যবসাসফল সিনেমা করেন। নব্বইয়ের দশকে তাঁর জনপ্রিয়তা ছিল আকাশচুম্বি। পরিচালকদের জন্য তিনি ছিলেন পছন্দের নায়ক। তাঁর ফ্যাশন সেন্সও ছিল বলিউডের টক অব দ্য টাউন।

তিনি চার বছরের বিরতি দিয়ে হাজির হন ‘পোস্টার বয়েজ’ সিনেমায়। সম্প্রতি তিনি ‘রেস থ্রি’ সিনেমা করলেও তাতে তাঁর চেয়ে সালমান খান বা অনিল কাপুরই বেশি আলাচিত হয়েছেন। এরপর আলী আব্বাস জাফরের ‘ভারত’ সিনেমাতেও থাকবেন সালমানের সাথে। কে জানে, হয়তো এখান থেকেই শুরু হবে ববির ক্যারিয়ারের সেকেন্ড ইনিংস।

ববির ক্যারিয়ারকে স্পষ্ট দুই ভাগে ভাগ করা যায়। ১৯৯৫ থেকে ২০০২ – এই সাত বছরে সাতটি ব্যবসাসফল সিনেমা করেছেন ববি। এর মধ্যে দু’টি সুপারহিট, দু’টি হিট, আর তিনটি অ্যাভারেজ। এর পরের ভাগে মানে ২০০৩ থেকে বর্তমান অবধি সাফল্য মোটে চারটি। এর মধ্যে প্রথম তিনটা ‘ইয়ামলা পাগলা দিওয়ানা’ হিট আর ‘আপনে’ ও ‘দোস্তানা’ অ্যাভারেজ, আরেকটা হল সর্বশেষ ‘রেস থ্রি’।

  • বাদাল (২০০০): হিট

রানী মুখার্জি, অমরেশ পুড়ির সাথে কেন্দ্রীয় চরিত্রে ছিলেন ববি। সে বছর সিনেমাটা ছিল সবচেয়ে বেশি আয় করা সিনেমাগুলোর মধ্যে পঞ্চম স্থানে। মোট আয় করে ১১২ কোটি রুপি (বর্তমান বাজারদর)।

  • সোলজার (১৯৯৮): সুপারহিট

এটা ববির ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বড় সিনেমা। ১৯৯৮ সালের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আয় করা সিনেমা। প্রীতি জিনতাও ছিলেন এই সিনেমায়। মোট আয় ১৭০ কোটি রুপি (বর্তমান বাজারদর)।

  • গুপ্ত (১৯৯৭): হিট

বলিউডের সেরা থ্রিলার সিনেমাগুলোর একটি। ববি দেওল, মনিষা কৈরালা, কাজল ও পরেশ রাওয়াল অভিনীত এই সিনেমার আয় ছিল ১৬৮ কোটি রুপি (বর্তমান বাজারদর)।

  • বারসাত (১৯৯৫): সুপারহিট

ববির অভিষেক সিনেমা। রাজকুমার সন্তোষির এই ছবিতে আরো ছিলেন টুইঙ্কল খান্না। বছরের পঞ্চম সর্বোচ্চ আয় করা সিনেমাটি বক্স অফিস থেকে নেয় ১৯০ কোটি রুপি (বর্তমান বাজারদর)। সিনেমার গানগুলো বলিউডের সর্বকালের অন্যতম সেরা রোম্যান্টিক গান হিসেবে দর্শকদের কাছে স্বীকৃত। ফিল্মফেয়ারে সেবার সেরা নবাগতের পুরস্কার পান ববি।

  • বিচ্ছু (২০০০): অ্যাভারেজ

রানীর সাথে ববির জুটি বেশ জমে উঠেছিল। সিনেমাটিতে পেশাদার হিটম্যানের চরিত্র করেন ববি। সিনেমাটি আয় করে ৭৫ কোটি রুপি (বর্তমান বাজারদর)।

  • আজনাবি (২০০১): অ্যভারেজ

আব্বাস মাস্তানের থ্রিলার সিনেমা। অক্ষয় কুমার, ববি, কারিনা কাপুর ও বিপাশা বসু অভিনিত এই সিনেমার আয় ছিল ১০৩ কোটি রুপি (বর্তমান বাজারদর)।

  • হামরাজ (২০০২): অ্যাভারেজ

অক্ষয় খান্না আর আমিশা প্যাটেল ছিলেন ববির সাথে। সিনেমাটির মোট আয় ৮৭ কোটি রুপি (বর্তমান বাজারদর)। ববি সেরা অভিনেতার জন্য ফিল্মফেয়ার পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন পান।

– দেশিমার্টিনি ও বক্স অফিস ইন্ডিয়া অবলম্বনে

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।