টিকেটের জন্য পাগলামি এবং স্পয়লার দেওয়ার মানসিক রোগ

একজন মানুষ তার পছন্দের কোনো কিছুর জন্য যে কোনো রকমের পাগলামি করার অধিকার রাখেন, যদি তা অন্যের ক্ষতির কারণ না হয়।

কেউ মাঠে বসে বাংলাদেশের খেলা দেখার জন্য সারারাত টিকেটের লাইনে দাঁড়াবেন, কেউ সিনেপ্লেক্সে গিয়ে অ্যাভেঞ্জার্সের ‘এন্ড গেম’ নামের  একটি সিনেমা দেখার জন্য। তাদের পাগলামি নিয়ে উপহাস করা তথা নোংরামি করাটা খুবই কুরুচিপূর্ণ আচরণ। এখানে সমাজের মেনে নেয়া, না নেয়ার কোন বিষয় নেই। যারা এন্ড গেম নিয়ে ভাবিত নন, তাদেরকে কেউ মেনে নেবে কি নেবে না, সেসব নিয়েও আসলে সমাজের কোনো দুশ্চিন্তা নেই।

বিতর্ক যেটা নিয়ে হতে পারে, সেটি হচ্ছে কেন টিকেটের জন্য রাত জেগে কিংবা ভোরবেলা থেকে লাইন দিতে হবে? ডিজিটাল যুগে টিকেটিং সিস্টেমকে অবশ্যই আরো সহজ করা সম্ভব।

ক্রিকেটে যেমন একশ্রেণীর ব্ল্যাকারের জন্য সাধারণ ক্রিকেটপ্রেমীদের ভোগান্তি পোহাতে হয়, সিনেমার ক্ষেত্রেও নতুন উপদ্রব হয়ে দেখা দিয়েছে কিছু ‘স্পয়েল্ট হিউম্যান বিয়ি’! এই ‘স্পয়েল্ট হিউম্যান বিয়িং’ দের বদভ্যাস হচ্ছে সিনেমা কিংবা সিরিয়ালের টুইস্টগুলো প্রকাশ করে দেয়া। যারা এখনো মুভিটি দেখেনি, তাদের মজাটা নষ্ট করা।

আমার মতে, মূলত তিন ধরনের দর্শক সম্প্রতি ‘এন্ডগেম’ মুভির টিকেটের জন্য ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে যুদ্ধ করেছেন।

  • যারা সত্যিই মুভিটা দেখার জন্য আকুল হয়ে আছেন
  • যারা মুভিটা দেখে স্পয়লার দেয়ার জন্য ব্যাকুল হয়ে আছেন
  • যারা স্পয়লার থেকে বাঁচার জন্য দ্রুত দেখতে চাইছেন

শুধুমাত্র ‘স্পয়লার’ নামক ব্যাড প্র্যাকটিস বন্ধ হলেই অনেক মুভি প্রেমিকের জন্যেই এই কষ্টকর দৌঁড়-ঝাপ অপ্রয়োজনীয় হয়ে উঠবে।

সবার আগে মুভির কাহিনী জানাটা অবশ্যই ‘কুল’। কিন্তু ইচ্ছাকৃতভাবে অন্যের মজা নষ্ট করাটা সবসময়ই ‘ভুল’।

যারা স্পয়লার দিয়ে অন্যের মজা নষ্ট করে বিকৃত পুলক উপভোগ করেন, তাদের আশু মানসিক আরোগ্য কামনা করছি। হ্যা, এটা কোনো স্মার্টনেস নয়, মানসিক রোগের পূর্বলক্ষণ।

আমাদের দেশে মানসিক রোগীদের সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে তাদের অসুস্থতাকে তারা নিজেরাই কিংবা পরিবারের অন্য সদস্যরা সিরিয়াসভাবে নেন না। যে কারণে একদম শুরুতেই সঠিক চিকিৎসা অধিকাংশেরই কপালে জোটে না। এভাবে একটা সময় অসুখটা বাড়তে বাড়তে নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়।

  • সংযুক্তি

বলে না দিলেই নয় যে, গেম অফ থ্রোন্স সিরিয়াল কিংবা অ্যাভেঞ্জার্স সিরিজের কোনো মুভির প্রতি (এখনো পর্যন্ত) আমার কোন আকর্ষণ নেই। এগুলোর কোনটারই একটা পর্বও দেখা হয়নি আমার।।

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।