অধিনায়ক মাশরাফির শেষ সংবাদ/শিক্ষা সম্মেলন

এটাকে ‘সংবাদ সম্মেলন’ না বলে, ‘শিক্ষা সম্মেলন’ বলা যেতে পারে। এই তো সেই চিরচেনা মাশরাফি, তার কতশত এরকম প্রেস কনফারেন্স কাভার করেছি। প্রত্যেকটা প্রশ্নের উত্তর ডিটেইল বললেন। ক্রিকেটার-মানুষ-দার্শনিক মাশরাফি মিলেমিশে একাকার।

সবশেষ ‘একটু ভিন্ন’ মেজাজের অচেনা ম্যাশ থেকে এদিন শুরু থেকেই যেন সেই চিরচেনা মাশরাফি। স্থির, প্রত্যেকটা কথা বললেন মেপে মেপে, শব্দচয়ন ও আবেগ দুটোরই লাগাম টেনেছেন একেবারে পেশাদার ঢংয়ে। নিজে যেমন দুদিকে সুইং করিয়েছেন তেমনি সাংবাদিকদের ছুড়ে আসা বাউন্সার বা ইর্য়কার গুলো সামলালেন দারুণ।

প্রায় ৩৫ মিনিটের সংবাদ সম্মেলনে কোনটার কথা বলবো। কয়েকটা বলি।

নতুন অধিনায়ক কে হবেন, সিনিয়র নাকি তরুণ? কি দারুণভাবে ব্যাখ্যা করলেন সেটার। প্রথমেই বললেন – যেই হোক যেন সময় দেয়া হয় পর্যাপ্ত। তরুণদের উপর ভীষণ চাপের কথা মনে করিয়ে দিয়ে নিজের ভোট দিলেন সিনিয়রদের বাক্সেই আর সেটাও কি দারুণ যুক্তি দিয়ে।

রাগ-ক্ষোভ? এবার সাংবাদিকদের বললেন আপনারা যদি সবসময় এগুলো বের করতে থাকেন….কিন্তু কি পরিমিতভাবেই না বললেন: আসলে কার উপর রাগ-ক্ষোভ। এগ্রি-ডিসএগ্রি থাকেই।

কিন্তু টি-টোয়েন্টি থেকে যেভাবে বিদায় নিতে হল সেটা? ছোট্ট উত্তর- আমার মনে হয় যে কোন সিদ্ধান্তের জন্য যে কাউকেই সময় দেয়া উচিত।

আমার সবচেয়ে ভালো লেগেছে মুশফিকুর রহিম প্রসঙ্গ –

দেখুন ১২-১৩ বছর ধরে যে খেলছে যে যাতে মানসিক চাপে না থাকে সেটা দেখা দায়িত্ব। যদি মুশফিকের সাথে সফট ওয়ে-তে আলোচনা করে ঠিক করা হয় তাহলে ভালো। কিন্তু আপনি যদি জোকিংয়ের সর্বোচ্চ পর্যায়ে চলে যান তাহলে আমরা কি অ্যাসেট নিয়ে নাড়াচাড়া করছি সেটা মনে থাকেনা। প্রফেশনালিজম আমরা মুখে বলি কিন্তু বাস্তবে খুব বেশি দেখা যায়না।

তিনি কিন্তু বেশ কবার বলেছেন কথাগুলো বিসিবিকে বলছেন না!

ভবিষ্যত পরিকল্পনা? আমার যা কিছু ক্রিকেট দিয়েই। ক্রিকেট না খেললে হয়তো মাছের ব্যবসা করতাম। তাই আমার যা কিছু পরিকল্পনা থাকবে ক্রিকেট নিয়েই।

বর্তমান খারাপ সময় নিয়ে বলেন – আমি যদি সকালে ঘুম থেকে উঠে নাস্তা করি আবার শুয়ে থাকি টিভি দেখি তাহলে তো জীবনে কোন চ্যালেঞ্জ থাকলো না। আমি টাফ টাইমকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিচ্ছি। গিভ আপ কোন অপশন নয় আমার জন্য।

মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা, ভালোবাসা ও শুভকামনা।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।