পাকিস্তান টেস্ট দলে ডাক পাওয়া প্রথম বাঙালি

রাতে জানতে পারিনি, সকাল শুরু হয়েছে মন খারাপ করা খবরে। সৈয়দ আলতাফ হোসেন আর নেই।

পূর্ব পাকিস্তান থেকে পাকিস্তান টেস্ট দলে ডাক পাওয়া প্রথম ক্রিকেটার, স্বাধীন বাংলাদেশে ক্রিকেট কোচিংয়ের অগ্রগূত, জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার প্রাপ্ত প্রথম ক্রিকেট কোচ, কিংবদন্তি ক্রিকেট ব্যাক্তিত্ব।

১৯৩৮ সালে জন্ম হুগলিতে। ১৯৪৭ সালের সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় হারান বাবাকে, দুই ভাইকে। পরে মায়ের সঙ্গে চলে আসেন এই বাংলায়।

খেলোয়াড়ি জীবনে ছিলেন পেসার, তবে ব্যাটিংয়ের হাতও ছিল বেশ ভালো। ১৯৫৪ সালে কায়েদে আজম ক্লাবের হয়ে শুরু ক্রিকেট ক্যারিয়ার। পরে খেলেছেন ওয়ান্ডারার্স, পিডব্লিউডি, মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব, ইস্ট পাকিস্তান জিমখানা ও শান্তিনগর ক্লাবে।

১৯৮৩ সালে ইমরান খানের সাথে ‘আপনার শিশুকে টিকা দিন’ কর্মসূচিতে।

ক্রিকেটের পাশাপাশি একসময় ফুটবলেও খেলেছেন ঢাকার তৃতীয় বিভাগে, দাপটে খেলেছেন বাস্কেটবল। শেষ পর্যন্ত থিতু হন ক্রিকেটেই।

১৯৬১ সাল থেকে ১৯৬৯ সাল পর্যন্ত পূর্ব পাকিস্তান দলের অন্যতম ভরসা হয়ে ছিলেন তিনি। ১৯৬৫ সালের মার্চে আসে তার ক্রিকেট ক্যারিয়ারের মাহেন্দ্রক্ষণ। সেই সময়কার পূর্ব পাকিস্তানের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ডাক পান পাকিস্তান টেস্ট দলে। জায়গা পান নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজে। খেলার সুযোগ যদিও পাননি, বসিয়ে রাখা হয়েছিল।

প্রথম টেস্টে পাকিস্তানের নতুন বল নিয়েছিলেন আসিফ ইকবাল ও মাজিদ খান, তৃতীয় পেসার ছিলেন মোহাম্মদ ফারুক। অনায়াসেই সেখানে জায়গা পেতে পারতেন আলতাফ হোসেন। কিন্তু যথারীতি পূর্ব পাকিস্তানের একজন হিসেবে শিকার হয়েছিলেন বঞ্চনার। এই দু:খবোধ তার সঙ্গী ছিল আজীবন।

টুকটাক ক্রিকেট খেলে গেছেন ১৯৮২ সাল পর্যন্ত। খেলেয়াড়ি জীবনেই ১৯৭০ সালে শুরু করেন আম্পায়ারিং। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের আম্পায়ার হয়ে পরিচালনা করেছেন প্রথম শ্রেণির ম্যাচ।

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর নিযুক্ত হন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের কোচ। পরে কোচ হিসেবে নিজেকে এমন উচ্চতায় নিয়ে গেছেন যে, তার খেলোয়াড়ী জীবনও অনেকটা আড়াল হয়ে গেছে কোচ হিসেবে সাফল্যে। যাদের হাত ধরে গড়ে উঠেছে স্বাধীন বাংলাদেশের মাঠের ক্রিকেট, তাদের অন্যতম ছিলেন তিনি।

ভারতের পাতিয়ালায় ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব স্পোর্টস থেকে কোচিং কোর্স করে আসা বাংলাদেশের প্রথম কোচ তিনি। পরে কোচিং কোর্স করে এসেছেন ইংল্যান্ড থেকেও।

জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের কোচ হিসেবে কাজ করেছেন ১৯৭৬ সাল থেকে ২০০১। আশির দশকে অনেকবারই বাংলাদেশ জাতীয় দলের কোচের দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৯০ এশিয়া কাপেও ছিলেন বাংলাদেশ দলের ডেপুটি ম্যানেজার কাম কোচ। ‘এ’ দল ও বয়সভিত্তিক দলগুলির দায়িত্বে ছিলেন অনেকবার। ক্রিকেট কোচিংয়ে নতুনত্ব আনা, ফিল্ডিংয়ে বিশেষভাবে জোর দেওয়া, বাংলাদেশের ক্রিকেট এসব দেখেছে তার সৌজন্যেই।

বাংলাদেশে নারী ক্রিকেট চালুর অন্যতম অগ্রদূতও আলতাফ হোসেন। ১৯৮৩ সালে ঢাকা আবাহনী দল নিয়ে গিছেন কলকাতায়। ১৯৯৭ সালে তাকেই মহিলা দল গড়ে তোলার দায়িত্ব দেয় বিসিবি। ২০০৬ সাল পর্যন্ত দায়িত্বে থেকে চেষ্টা করেছেন নারী ক্রিকেটের ভিত শক্ত করার।

১৯৯৯ সালে পেয়েছেন জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার। দেশের ক্রীড়ার সর্বোচ্চ এই স্বীকৃতি পাওয়া প্রথম ক্রিকেট কোচ ছিলেন তিনিই।

২০০৯ সালে মেনিনজাইটিসে আক্রান্ত হওয়ার পর কোমায় চলে গিয়েছিলেন। সে যাত্রায় ফিরে এলেও নিজের শরীরের সঙ্গে লড়াই চলতেই থাকে। শেষ পর্যন্ত অমোঘ নিয়তি মেনে নিতেই হলো। ওপারে ভালো থাকবেন কিংবদন্তি!

– ফেসবুক ওয়াল থেকে

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।