সুশান্তের ‘হারানো’ চরিত্রগুলো

ছোট শহরের মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে উঠে এসেছিলেন তিনি। ছোট পর্দায় শুরু করে পরিশ্রম আর প্রতিভা দিয়ে থিতু হয়েছিলেন বড় পর্দায়। সেখানে অর্জনও নেহায়েৎ কম নয়। তবে, নি:সন্দেহে নিজের যোগ্যতা অনুযায়ী সাফল্য পাননি সুশান্ত সিং রাজপুত। কোনো কোনো ক্ষেত্রে বঞ্চিতও হয়েছেন।

এমন অনেকগুলো চরিত্রই তাঁর হাতছাড়া হয়েছে, যা পরবর্তীতে বেশ সাফল্য কুড়ায়। অনেকক্ষেত্রেই সুশান্ত ছিলেন প্রথম পছন্দ। কিন্তু, অনেক রকম কারণে সুশান্ত বাদ পড়েন। ছবিগুলো করলে হয়তো ৩৪ বছর বয়সেই আত্মহত্যার পথ বেছে নেওয়া সুশান্তের ক্যারিয়ারটা আরো চকমকে।

  • গালিও কি রাসলিলা রাম-লীলা (২০১৩)

রণবীর সিং নয়, কেন্দ্রীয় চরিত্রের জন্য সঞ্জয় লীলা বনসালির প্রথম পছন্দ ছিলেন সুশান্ত। তবে, যশরাজ ফিল্মসের সাথে চুক্তিবদ্ধ থাকায় ছবিটা করতে পারেননি সুশান্ত। দীপিকা-রণবীর জুটি ছবিতে দারুণ প্রশংসিত হয়। ব্লকবাস্টার হিট হয় ছবিটি।

  • কবির সিং (২০১৯)

সেই বছরের অন্যতম হিট ছবি, ‘অর্জুন রেড্ডি’র অফিসিয়াল রিমেক। শহীদ কাপুরের আগে দু’জন ছবির প্রস্তাব পেয়েছিলেন। তাঁরা হলেন অর্জুন কাপুর ও সুশান্ত। পরে শহীদ ছবিটি পেয়ে বাজিমাৎ করেন। শহীদের ক্যারিয়ারেরই অন্যতম সেরা কাজ এটা।

  • ফিতুর (২০১৬)

পরিচালক অভিষেক কাপুর ছবিটি করার জন্য সই করিয়েছিলেন সুশান্তকে। শ্যুটিংও শুরু হয়েছিল। তবে, শিডিউল জটিলতায় ব্যাটে-বলে হয়নি। তখন দৃশ্যপটে আসেন আদিত্য রয় কাপুর।

  • র: রোমিও ওয়াল্টার আকবর (২০১৯)

স্পাই জনরার ছবিতে জন আব্রাহাম নিজের একটা আলাদা জায়গা করে নিয়েছেন। সেখানে এই ছবিটি তাঁর সিগনেচার কাজ। তবে, ছবিটির জন্য প্রথম বিবেচনা করা হয়েছিল সুশান্তকে।

  • বেফিকরে (২০১৬)

‘শুধ দেশি রোম্যান্স’-এর পর ছবিটিতে আবারো দেখা যাবে বানি কাপুর ও সুশান্ত সিং রাজপুতের জুটি। পরিচালক আদিত্য চোপড়ার শুরুতে এমনই পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু, অজানা কারণে শেষ মুহূর্তে বাদ পড়েন সুশান্ত। ‘ধারাম’ চরিত্রে কাস্ট করা হয় রণবীর সিংকে। খুব রহস্যময় ব্যাপার, আড়ালে কিছু ঘটেনি তো?

  • হাফ গার্লফ্রেন্ড (২০১৭)

চেতন ভগতের উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত এই ছবিতে ছিলেন শ্রদ্ধা কাপুর ও অর্জুন কাপুর। যদিও, শুরুতে ভাবা হয়েছিল সুশান্ত সিং রাজপুত ও কৃতি শ্যাননকে। প্রস্তাব করা হয়েছিল বরুণ ধাওয়ানকেও। ছবিটি খুব আলোচিত হয়নি। কে জানে, সুশান্ত থাকলে হয়তো চিত্রটা ভিন্ন হতে পারতো।

  • আন্ধাধুন (২০১৮)

আয়ুষ্মান খোড়ানার ক্যারিয়ারের অন্যতম সেরা ছবি আন্ধাধুন। তবে, পরিচালক শ্রীরাম রাঘবন প্রথম প্রস্তাব করেছিলেন সুশান্তকে।

  • সারে জাহা সে আচ্ছা

ছবিটা এখনও নির্মানের অপেক্ষায় আছে। মহাকাশচারী রাকেশ শর্মার বায়োপিক। আমির খান, শাহরুখ খানের মত ছবিটির জন্য প্রস্তাব করা হয়েছিল সুশান্ত সিং রাজপুতকেও। তবে, শেষ অবধি চরিত্রটি পান ভিকি কৌশল।

 

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।