‘শান্তি প্রিয়া’ থেকে ‘রাণী পদ্মাবতী’

‘শান্তি প্রিয়া’ থেকে শুরু করে ‘রাণী পদ্মাবতী’। বাড়ি থেকে দূর পথ পাড়ি দেয়া ‘ন্যায়না’, কখনোবা রাম এর ‘লীলা’।

প্রতিবার ভিন্নতার ছোঁয়া দেয়া চরিত্রগুলো আপন করে নেয়া মেয়েটির সেই টোল পরা গালের হাসিতেই সবাই ঘায়েল। এসিডদগ্ধ লক্ষী আগারওয়ালের জীবন লড়াইকে পর্দায় ফুটিয়ে তোলার লক্ষ্যটা এখন ছাপ্পাক এর মাধ্যমে।

১৯৮৬ সালের পাঁচ জানুয়ারি ডেনমার্কের কোপেনহেগেন শহরে জন্ম হয়েছিল ঠিকই, কিন্তু বেড়ে ওঠা ব্যাঙ্গালুরু তে।ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় প্রকাশ পাডুকোন চাইতেন, মেয়েও এতে পারদর্শী হোক। আর সেটায় প্রতিভাও ছিলো বেশ।

কিন্তু রূপালী জগতে পা রাখার পর, সেই গল্পের ইতি হয়ে যায়। আর হিন্দি সিনেমা পায় দীপিকা পাডুকোনের মতো একজন চমৎকার অভিনেত্রী। যার রূপের জাদুতে মুগ্ধ হয়নি, এমন লোকের সংখ্যা খুবই কম।

বলিউডের সবচেয়ে বেশি পারিশ্রমিক পাওয়া অন্যতম এই অভিনেত্রী কিন্তু বিশ্বের সবচেয়ে আবেদনময়ী নারীদেরও একজন! তারকাখ্যাতিটা এক হিসেবে খুব দ্রুতই পেয়েছেন যদিও ইন্ডাস্ট্রিতে আছেন এক দশকেরও বেশি৷

ব্যক্তিজীবনে বেশ কয়েকবার প্রেমে জড়িয়েছেন। রণবীর কাপুরের সাথে অনেকদূর এগিয়ে গিয়েছিলেন, কিন্তু সেই সম্পর্কে পূর্ণতা আসেনি। এরপর আরো কয়েকজনের নাম শোনা গেছে। তবে, কেউই থিতু হতে পারেনি দিপু’র হৃদয়ে।

তবে একটি সময়ে এসে স্বপ্নের রাজকুমারকে খুঁজে পেয়েছেন তিনি। নিজের রূপালী পর্দার ‘হিরো’ রনবীর সিংকেই করে নিয়েছেন ‘বাস্তব ও স্বপ্নের’ জীবনের ‘বাজিরাও’ আর নিজে হয়েছেন তার ‘মাস্তানি’।

সম্পর্ক ভাঙনের ফলে ভেঙেছে তার হৃদয়ও। নিজের মাঝেই নিজেকে হারিয়েছেন। ভয়াবহ ‘ডিপ্রেশন’ এর কবল থেকে নিজেকে মুক্ত করে স্বাভাবিক হতে সময় লেগেছে৷ সমাজের সেই ভেঙে পড়া মানুষগুলোর জন্যও কাজ করছেন। এছাড়াও শুভেচ্ছাদূত হিসেবে যুক্ত আছেন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাথে।

অভিনয়ের সুবাদে ফিল্মফেয়ারসহ বহু পুরষ্কার পেয়েছেন ইতিমধ্যেই। কাজ করে যাচ্ছেন এখন খুব বাছাই করে। ফিল্মি জীবনের মতোই, হিন্দি সিনেমার এই রূপসী নারী প্রতিটি ক্ষেত্রে সফল হোক এমনটাই প্রত্যাশা।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।