আমাদের মত সুন্দর সংগ্রামী গল্প তাঁদের নেই

স্বজনপোষণ আর পক্ষপাতিত্ব আছে, ছিল, সামনেও থাকবে। এটা মানতেই হবে। এই বাস্তবতা মেনে নিয়েই আমাদের সামনে এগোতে হবে। অন্তত, আমি এসব নিয়ে একদমই ভাবি না।

আমি কখনো করন জোহর কিংবা যশ রাজ ফিল্মসের কোনো ছবি করিনি। ওদের কাছে কখনো ছবির জন্য ধরনা দেইনি, কিংবা ওরাও আমার সাথে কাজ করার ব্যাপারে কখনো কোনো আগ্রহ দেখায়নি। এর মানে এই না যে, আমি কোনো অভিনেতার চেয়ে পিছিয়ে আছি। আমি মনে করি না যে, এর ফলে আমার ক্যারিয়ার শেষ হয়ে গেছে।

এখন আমিও আমির খান বা সালমান খানদের সাথে কাজ করতে চাই। তবে, তাঁদের সাথে কাজ করার জন্য আমি তেমন সুযোগ খুঁজি যেখানে আমাকেও তাঁদের মতই সম্মান দেওয়া হবে। সেটা আমি নিজের প্রাপ্য মনে করি, কারণ নিজের কাজের ব্যাপারে আমি সৎ আর পরিশ্রমী।

আমি বিশ্বাস করি, কাজের সাথে আমার একটা ভালবাসার সম্পর্ক আছে। এমনকি, যখন আমি আমার স্ত্রীকে ডেট করতাম, তখনেই বলে দিয়েছিলাম যে, আমার প্রথম ভালবাসা হল আমার কাজ। আমার ভাগ্য খুবই ভাল যে, এই ব্যাপারে আমার স্ত্রীর পূর্ণ সমর্থন সব সময় পেয়েছি।

ইন্ডাস্ট্রিতে এতগুলো বছরগুলো কাটিয়ে দেওয়ার পর আমি বুঝি যে, এটা এমন একটা জায়গা যেখানে প্রতিটা দিন এক রকম যায় না। চাইলেই প্রতিদিন সব পাওয়া যায় না। তবে, যেটা পাওয়া যায় – সেটার পূর্ণ সদ্ব্যবহার করতে হবে। যখনই সুযোগ আসে, তা কাজে লাগাতে হবে। উইকেটে টিকে থাকলে সেঞ্চুরি তো আসবেই।

আমার সংগ্রামের দিনগুলোতে আমি বাড়ি ভাড়া দিতে পারতাম না। একটা স্যান্ডউইচ কিনে খাওয়ার পয়সা ছিল না। আমি স্টুডিওতে আসতাম বাসে করে। এসব আমাকে আরো শক্ত করেছে।

ইন্ড্রাস্ট্রি কিড বা স্টারকিডদের এই অনুভূতিটা হয় না, নিজেকে নিজের হাতে গড়ে তোলার মধ্যে যে বিরাট আনন্দ সেটা তাঁরা কখনো বুঝতে পারে না। তাঁদের এই বিশেষ সুবিধা বা অধিকারে আমার কোনো আপত্তি নেই। তবে, খারাপ লাগে আমাদের মত সুন্দর একটা সংগ্রামী গল্প তাঁদের নেই।

আমরা সবাই এসব জানি। এখন সময় এসব মেনে নেওয়ার। যত দ্রুত আমরা এটা মানতে শিখবো, ততই আমরা সুবিবেচক হয়ে উঠবো।

_______________

কথাগুলো বলেছেন বলিউড অভিনেতা শ্রেয়াস তালপাড়ে। ‘ইকবাল’ কিংবা ‘গোলমাল’ খ্যাত এই অভিনেতা তাঁর বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারে অমিতাভ বচ্চন, নাসিরুদ্দিন শাহ, অজয় দেবগন, কারিনা কাপুর, শাহরুখ খানের মত তারকাদের সাথে কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন। কাজ করেছেন রোহিত শেঠি কিংবা ফারাহ খানের মত নির্মাতাদের সাথেও।

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।