ইন্ডাস্ট্রির এক নম্বর নায়কেরও নূন্যতম ম্যাচিউরিটি নেই!

আজকাল ঢাকার ছবিতে নতুন অনেক নায়ক আসছেন। নতুন অনেক পরিচালক সুনাম কুড়াচ্ছেন। কেউ কেউ কঠোর পরিশ্রম করে সিক্স প্যাক বানাচ্ছেন, কেউ বা ভিন্ন ধর্মী সব থ্রিলার করে দেশে ও দেশের বাইরে সুনাম কুড়াচ্ছেন। দেশের মধ্যবিত্ত সমাজ সিনেমাহলে যাচ্ছে। প্রায় ধসে যাওয়া ইন্ডাস্ট্রিটা একটু একটু করে জেগে উঠছে।

এত কিছুর পরও কোনো সন্দেহ ছাড়াই বলা যায় যে, আজো ঢালিউড ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির এক নম্বর নায়ক হলেন শাকিব খান। ২০ বছর হল তিনি এই ইন্ডাস্ট্রিতে আছেন। শুরু হয়েছিল দ্বিতীয় নায়ক হিসেবে। মূল নায়কের পাশে সহকারী চরিত্রে থাকতেন। কালক্রমে তিনি ইন্ডাস্ট্রির এক নম্বর নায়ক বনেছেন। মান্না পরবর্তী যুগে যেভাবেই হোক না কেন, ইন্ডাস্ট্রিতে টিকিয়ে রেখেছিলেন এই শাকিব খান। আর যাই হোক প্রায় এক দশকের বেশি সময় ধরে শীর্ষস্থান টিকিয়ে রাখাটা মুখের কথা নয়।

অথচ, এতগুলো বছর কেটে গেলেও তাঁর মধ্যে বিন্দুমাত্র ম্যাচিউরিটি আসেনি। ম্যাচিউরিটি আসলে ‘সিনেমার উপরে আমি ডক্টরেট ডিগ্রী করেছি। সুন্দরবনে বসেও আমি ইন্টারন্যাশনাল সিনেমা বানাতে পারব’ – এমন অহেতুক কথা প্রকাশ্যে করার কথা নয়।

শাকিব নিজেই বললেন, প্রত্যেকটা ছবি তাঁর কাছে সন্তানের মত। পরক্ষণেই আবার স্ববিরোধী বক্তব্য। বললেন, তিনি নাকি চাননি এবারের ঈদুল ফিতরে ‘নোলক’ ছবিটি মুক্তি পাক। ইন্ডাস্ট্রির এক নম্বর নায়ক এমন আত্মবিশ্বাসের অভাবে ভুগবেন কেন। কেন তিনি তার সবগুলো সন্তানতুল্য ছবিকে সমান ভাবে ভালবাসতে পারবেন না?

যতদূর বোঝা গেল, এবারের ঈদে প্রায় ২০০ টিরও বেশি হলে ছবি দেখানো হবে। এর মধ্যে ‘নোলক’ আর ‘পাসওয়ার্ড’ বাদে তেমন আলোচিত কোনো ছবিও নেই। ঠিক মত প্রচারণা চালালে দু’টো ছবিকেই হিট করানো সম্ভব। তাহলে শাকিবের কিসের এত ভয়!

শাকিব বরাবরই অনুকরণে পটু। ‘পাসওয়ার্ড’ ছবির লোগোর অ্যানিমেশনের সাথে কলকাতার একটা ছবির লোগোর অ্যানিমেশনের হুবহু মিল পাওয়া যায়। এখানেই শেষ নয়, একটা গানে শাকিব যে পোশাকটা পড়েছেন, সেটা অনেক আগেই কলকাতার নায়ক দেব পরে ফেলেছেন। এই সব কিছুই ম্যাচিউরিটির অভাবের চূড়ান্ত পরিচয়।

শাকিবের ভক্তরা দাবী করেন, শাকিব হলেন বাংলাদেশের শাহরুখ খান। কাজে না হোক, অনুকরণে তো বটেই। একজনের ছেলে আব্রাম, আরেকজনের আব্রাহাম। একজন বাড়ি ‘মান্নাত’, আরেকজনের ‘জান্নাত’। দু’জনই ভিন্ন ধর্মের একজনকে বিয়ে করেছেন। দু’জনকেই বলা হয় কিং খান।  এত কিছু না করে যদি, বাংলাদেশেরই নায়ক রাজ রাজ্জাককে অনুসরণ করতেন, তাহলেই শাকিব আত্মবিশ্বাসের অভাবে ভুগে এমন যা তা বলতেন না!

ইন্ডাস্ট্রির এক নম্বর নায়ক প্রকাশ্যে এসব করে বেড়ালে বাকিরা শিখবে কি!

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।