স্বার্থপর নেইমার বনাম নি:স্বার্থ নেইমার

ব্রাজিলিয়ান মিডিয়া স্পষ্ট দু’ভাগে বিভক্ত।

একটি ভাগ মনে করে নেইমার প্রচণ্ড মাত্রায় স্বার্থপর। প্যারিস সেইন্ট জার্মেইনের এই যুবরাজ দলের জন্য নয়, খেলেন নিজের জন্য। অপর পক্ষ মনে করেন, বিশ্বকাপে খেলতে নেইমারকে অনেক ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে। গত ফেব্রুয়ারিতে ইনজুরিতে পড়া নেই ব্রাজিল টিম ম্যানেজমেন্টের জন্য অনেক ঝুঁকি নিয়ে খেলছেন রাশিয়া বিশ্বকাপে।

অ্যাদেনোর লিওনার্দো বাচ্চি ওরফে তিতে মনে করেন এর কোনোটাই আদতে সত্যি নয়। ৫৭ বছর বয়সী এই সেলেসাও কোচ মনে করেন, নেইমার ব্রাজিল দলের অবিচ্ছেদ্দ অংশ। তিনি দলের মধ্যে বাড়তি উদ্দীপনার যোগান দেন। আর এই টুর্নামেন্টটা বিশ্বকাপ না হয়ে অন্য কিছু হলেও তিনি খেলতেন।

বিশেষ করে ব্রাজিল সাংবাদিকদের যে অংশটা নেইমারকে স্বার্থপর মনে করেন, তাঁদের ওপর বেজায় ক্ষেপেছেন তিতে বলেন, ‘এটা আপনাদেরে মন গড়া কথা, আমার কাছে এটা ভিত্তিহীন। দলে সবাই দায়িত্ব নিয়েই এই দলে খেলে। আর তাঁদের আলাদা ব্যক্তিস্বত্ত্বা আছে। আলাদা বিশেষত্বও আছে। আর নেইমার হল জিনিয়াস। নেইমার মাঠের শেষ তৃতীয়াংশে যা করে, সেটার কৃতিত্ব আমি ওর কাছ থেকে কেড়ে নিতে পারি না। ও আমাদের গোল করার সুযোগ বাড়ায়, দলকে জয় পেতে সাহায্য করে।’

সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ড্রয়ের পর সমর্থকদের মধ্যে তো বটেই ব্রাজিলের মিডিয়ার অসন্তোষও তীব্র হয় নেইমারকে ঘিরে। দলে নেইমারের ভূমিকা অনুসন্ধানেই তাঁরা এতটাই ব্যস্ত ছিল যে শুক্রবারে সেন্ট পিটার্সবার্গে কোস্টারিকার বিপক্ষে ম্যাচটাই ‍গুরুত্ব পাচ্ছিল না।

আত্মবিশ্বাসী ছিলে তিনি। কোস্টারিকার বিপক্ষে ম্যাচের আগেরদিনই তাই তিনি একাদশ ঘোষণা করে দেন। ভিএআর প্রযুক্তি নিয়ে বেশি লম্ফঝম্ফ না করে তিনি মনোযোগ দিচ্ছিলেন ভাল খেলার দিকে। এর ফলাফলটা পাওয়া গেছে ম্যাচেই। রক্ষনাত্মক ভঙ্গীতে খেলা কোস্টারিকা পুরো নব্বই মিনিট ব্রাজিলের একের পর এক আক্রমণ রুখে দিলেও ইনজুরি সময়ে গিয়ে আর পারেনি। সেখানে আসে জোড়া গোল। কৌতিনহো ও নেইমার একটা করে গোল করে ব্রাজিলকে চলতি বিশ্বকাপের প্রথম জয় এনে দেয়।

এদিকে সুইজারল্যান্ড ২-১ গোলে হারিয়ে দিয়েছে সার্বিয়াকে। ফলে ব্রাজিল আর সুইজারল্যান্ড – দু’দলেরই পয়েন্ট এখন চার। তবে, গোল ব্যবধানে এগিয়ে থেকে শীর্ষস্থানে আছে ব্রাজিলই। সার্বিয়া প্রথম ম্যাচে কোস্টারিকাকে হারানোয় তিন পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে। কাগজে কলমে এই তিনটি দলের শেষ ১৬-তে নাম লেখানোর রাস্তা খোলা আছে। আর টানা দুই পরাজয় নিয়ে ‘ই’ গ্রুপ থেকে বিশ্বকাপ শেষ হয়ে গেছে কেইলর নাভাসের দল কোস্টারিকার।

শেষ ম্যাচে আগামী বৃহস্পতিবার সার্বিয়াকে হারাতে পারলে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হবে ব্রাজিল। দ্বিতীয় পর্বে তাঁদের সামনে পড়বে জার্মানি, মেক্সিকো বা সুইডেনের কোনোটা। ফুটবলীয় দৃষ্টিকোন থেকে বিবেচনা করলে জার্মানী সামনে পড়লে জমজমাট একটা ম্যাচ দেখতে পাবে ফুটবল বিশ্ব। কে জানে, সেই ম্যাচ দিয়েই হয়তো চার বছর আগের ৭-১ গোলে সেমিফাইনাল হারের দু:খ ভুলবে ব্রাজিল।

– ক্রিকেটসকার অবলম্বনে

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।