সেকশন ৩৭৫: আইন হতাশ করবে, এই ছবিটি নয়

ইন্ডিয়ান প্যানেল কোডের (আইপিসি) ৩৭৫ ধারাতে বলা আছে যে একটি সহবাস তখনই ধর্ষণ হিসেবে গন্য হবে যখন তা সহমত বিনা সংগঠিত হবে। এককথায় বলপূর্বক হবে। আমরা সকলেই জানি যদিও এই ধারার মানে। ধারার নম্বরটা হয়ত অচেনা।

গল্পের শুরুতেই দেখানো হয় অভিযোগকারৗ কোর্টে তাঁর পরিচিত এবং খুব কাছের এক পুরুষের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করেন যা কিনা সেই অভিযুক্ত পুরুষ মিথ্যা বলে উড়িয়ে দেন। গল্পে খুব নাটকীয় ভাবেই দেখানো হয় যে মেয়েটির উকিল একজন মেয়ে (রিচা) এবং ছেলেটির উকিল একজন ছেলে (অক্ষয়)।

প্রায় টানটান দুই ঘণ্টার ছবিতে বেশিরভাগই কোর্ট সিন। দুই পক্ষের উকিলই তথ্য প্রমাণাদি সহ নিজের নিজের মক্কেলদের কেস জেতানোর আপ্রাণ চেষ্টা চালায়। দুই পক্ষের জবানিতে পুরো গল্পটাই যেন দুবার করে দর্শক দের দেখানো হয়। কিন্তু আসল ঘটনাটা যে কি ঘটেছিলো সেটা কার্যত শেষ কয়েক মিনিট আগে অবধি অজানাই থেকে যায়। গল্পের শেষে বিচারপতি কি রায় দেন, তার জন্য ছবিটা পারলে হলে গিয়ে দেখে নিন।

পুরো গল্পটাই ধর্ষনের মিথ্যা অভিযোগের গল্প কিনা, অপরাধী সাজা পায় কিনা, মিথ্যা অভিযোগ প্রমাণিত হয় কিনা এবং সর্বোপরি বিচারের বাণী নীরবে নিভৃতে কাঁদে কিনা, সে সবের উত্তর ছবির ওই শেষ কয়েক মিনিটেই আছে।

ধর্ষণ বা শ্লীলতাহানি নিয়ে দুরন্ত সব হিন্দি ছবি আমরা দেখেছি যেখানে কোর্টরুম ড্রামা চূড়ান্ত পর্যায়ের।যেমন দামিনী বা পিঙ্ক। সেখানে প্রথম থেকে বোঝাও যায় কে দোষী আর কে নির্দোষ। কিন্তু এখানে বিষয়টাই উল্টো। এখানে গল্পটা ধর্ষণের নয়। ধর্ষনের অভিযোগের গল্প এবং পুরো গল্প জুড়ে এটাই প্রমাণ করা এবং সেই প্রমাণ খণ্ডানোর চেষ্টা চলে যে অভিযোগ সত্যি না মিথ্যা!

আজকের এই অস্থির সময়ে যেখানে ‘মিটু’র মত এক সত্যিকারের বলিষ্ঠ আন্দোলন, যা কিনা সঠিক ভাবে প্রয়োগ হলে অনেক অত্যাচারিতাই বিচার পেতো, তা শুধুমাত্র সদিচ্ছা সহ ব্যবহারের অভাবে একটা ঘৃণ্য অস্ত্রে পরিণত হয়েছে, যা বারবার করে মেয়েরা পুরুষের বিপক্ষে নিজ স্বার্থ সিদ্ধির জন্যে ব্যবহার করেছে। এমতাবস্থায় দাঁড়িয়ে, ধর্ষণের মিথ্যা মামলার অভিযোগের মত একটি সংবেদনশীল বিষয় নিয়ে ছবি হিন্দিতে তো প্রথমই। খুব সম্ভবত সারা ভারতেও।

ছবিটার প্রচার স্বাভাবিক ভাবেই নেই। হয়ত কিছু কায়েমী স্বার্থের জন্যেই। জানিনা কেন নেই। কিন্তু এই বিষয় নিয়ে আরো ছবি হওয়া দরকার। পাল্টা হাওয়া একটু হলেও বয়ে যাওয়া প্রয়োজন। বিচারের কল নড়লেও নড়তে পারে।

এটা কিন্তু আক্ষরিক অর্থে রিভিউ না। ছবির অভিনয়, এডিট, কালার, গান, সেট এবং আরো একগুচ্ছ গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে কিন্তু আলোকপাতই করা হয়নি। তাই রেটিং দেবো না। তবে, ভালই লাগবে, আশা করি।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।