দক্ষিণে হিট, বলিউডে ফ্লপ

বলিউডের ছবিতে একধরণের সর্বভারতীয় আমেজ পাওয়া যায়। সেখানে শাহরুখ খান, অমিতাভ বচ্চন, আমির খান বা সালমান খানদের মত অভিনেতারা দেশটির প্রতিটা কোণায় কোণায় সমান ভাবে জনপ্রিয়। এ মধ্যেও বলিউডে ভিন্ন কোনো ইন্ডাস্ট্রি থেকে ‍উঠে আসা অভিনেতারা বিস্তর সাফল্য পেয়েছেন।

এদের মধ্যে কমল হাসান, রজনীকান্ত কিংবা বাঙালি নায়ক মিঠুন চক্রবর্তীর কথা না বললেই হয়। তারা আঞ্চলিক সিনেমায় যেমন সফল ছিলেন, তেমনি সাফল্য পেয়েছেন মূল ঘরাণাতেও।

তবে, মুদ্রার অন্যপিঠও আছে। আসলে দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রিগুলো থেকে এসে বলিউডে সাফল্য পাওয়ার হারটা খুবই কম। এমনই কিছু ব্যর্থ অভিনয় শিল্পীর কথা বলবো এখন।

  • রাম চরণ তেজা

২০১৩ সালে ‘জাঞ্জির’ সিনেমা দিয়ে বলিউডে অভিষেক হয় দক্ষিণের খ্যাতিমান নায়ক রাম চরণ তেজার। সাথে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া, প্রকাশ রাজ ও সঞ্জয় দত্ত থাকার পরও সিনেমাটি বক্স অফিসে ডুবে যায়। ফলে, রাম চরণের বলিউড স্বপ্ন আর পূরণ হয়নি।

  • শ্রিয়া সরণ

দক্ষিণে নিজের স্বর্ণযুগে তিনি ছিলেন বিশাল জনপ্রিয়তার অধিকারী। অথচ বলিউডে তাঁর ‘আওয়ারাপান’ ও ‘গালি গালি মে চোর হ্যায়’ সিনেমাগুলো ফ্লপ করেছে।

  • পৃথ্বীরাজ সুকমারান

মালায়ালামে পৃথ্বীরাজকে ছাড়া থ্রিলার ছবি ভাবাই যায় না। অথচ, বলিউডে তাঁর কেন্দ্রীয় চরিত্রে করা ‘আইয়া’ ও ‘আওরঙ্গজেব’ – দু’টোই ফ্লপ হয়েছে। ২০১৭ সালে ‘নাম শাবানা’ ছবিতেও তিনি ছোট একটা চরিত্র করেন।

  • তামান্না ভাটিয়া

দক্ষিণের এই হিট নায়িকা অনেকদিন যাবৎ বলিউডে থিতু হওয়ার চেষ্টায় আছেন। যদিও এখন অবধি তাঁর বলার মত সাফল্য নেই। ‘হিম্মতওয়ালা’, ‘হামশাকালস’, ‘এন্টারটেইনমেন্ট’, ‘তুতাক তুতাক তুতিয়া’ – সবগুলোই বক্স অফিসে ব্যর্থ।

  • চিরঞ্জীবি

দক্ষিণের এই সুপারস্টার বলিউডে ১৯৯২ সালে ‘আজ কা গুন্ডা রাজা’ নামের একটি ছবি করেন। সিনেমাটি ব্যবসা করতে পারেনি।

  • তৃষা কৃষ্ণান

তৃষা দক্ষিণী সিনেমার পরিচিত মুখ। বলিউডে তিনি স্বয়ং অক্ষয় কুমারের সাথে ‘খাট্টা মিঠা’ সিনেমাটি করেন। যদিও, এটা বক্স অফিসে সাফল্য পায়নি।

  • ভেঙ্কটেশ দুজ্ঞাবতি

ভেঙ্কটেশও বলিউডের ভাগ্যের খেলায় নেমেছিলেন। ১৯৯৩ সালে বলিউডে তাঁর অভিষেক হয় কারিশমা কাপুরের বিপরীতে ‘আনাড়ি’ সিনেমায়। সেটা ব্যর্থ হলে ১৯৯৫ সালে তিনি রাভিনা ট্যান্ডনের বিপরীতে ‘তাকদিরওয়ালা’ করেন। এটাও ফ্লপ হয়।

  • নাগার্জুনা

নাগার্জুনা বলিউডে ‘মিস্টার বেচারা’ ও ‘ক্রিমিনাল’ নামের দু’টো ছবি করেছিলেন। কিন্তু, দর্শকরা সিনেমাগুলো ফিরিয়ে দেয়।

  • বিক্রম

মনি রত্ননেমর আলোচিত সিনেমা ‘রাভান’-এ বিক্রম ছিলেন স্বয়ং ঐশ্বরিয়া রায়ের বিপরীতে। সিনেমাটিতে আরো ছিলেন অভিষেক বচ্চন। তবে, থিয়েটারগুলোতে সিনেমাটি চলেনি বললেই চলে।

দেশিমার্টিনি অবলম্বনে

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।