ভালোবাসা মানে না বাধা!

কেবল পর্দায় নয়, অনেক বলিউড জুটি বাস্তবেও গড়েছেন প্রেমের তাজমহল। তাঁরা প্রমাণ করেছেন, একমাত্র প্রেমই যেকোনো বাধাকে অতিক্রম করার ক্ষমতা রাখে। বিয়ের আগে ও পরে অনেকরকম বাঁধাই তাঁরা হেসেখেলে কাটিয়ে ফেলেছেন। এমনই কিছু তারকা জুটি নিয়ে আমাদের এই আয়োজন।

  • দিলীপ কুমার ও সায়রা বানু

দু’জনের বয়সের ব্যবধান ২২ বছর। তারপরও তাঁদের ভালবাসার গল্পটা চিরসবুজ। বরাবরই ‘ট্র্যাজেডির রাজা’ দিলীপ কুমারের বড় ভক্ত ছিলেন সায়রা বানু। সায়রার মা নাসিম নিজে দিলীপ কুমারকে তাঁর মেয়ের জন্য বিয়ের প্রস্তাব দেন। ১৯৬৬ সালে যখন বিয়ে হয় তখন সায়রার বয়স মাত্র ২২ বছর। এর কয়েক বছরের মধ্যেই রিল দুনিয়াকে বিদায় জানান সায়রা। এই দম্পতির কোনো সন্তান নেই।

  • অমিতাভ বচ্চন ও জয়া বচ্চন

তাঁরা হলেন বলিউডের স্বর্ণালী জুটি। অনেক বিতর্কের পরও তাঁদের পথ কখনো আলাতা হয়নি। ১৯৭৩ সালের তিন জুন দু’জনের বিয়ে হয়। জয়া ভাদুরি হয়ে যান জয়া বচ্চন। জয়া তখন প্রতিষ্ঠিত অভিনেত্রী। আর অমিতাভ কেবল ‘জাঞ্জির’ করে লাইমলাইটে এসেছেন। এরপর কালক্রমে এই ‘অ্যাংরি ইয়ং ম্যান’ বনে গিয়েছেন উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় সুপারস্টার।

  • ধর্মেন্দ্র ও হেমা মালিনী

বলিউডের সত্যিকারের ‘হি-ম্যান’ বিবাহিত থাকার পরও ড্রিম গার্লের প্রেমে মশগুল হয়ে পড়েন।  ফিল্ম সিনেমার সেটে দু’জনের প্রেম শুরু হয়। তবে, ধর্মেন্দ্রর প্রথম স্ত্রী প্রকাশ কউর আনুষ্ঠানিক বিচ্ছেদে অস্বীকৃতি জানানো হেমাকে নিয়ে তাঁর কঠিক পথ পাড়ি দিতে হয়।

এর আগে হেমারও সঞ্জীব কুমার ও জীতেন্দ্র’র সাথে সম্পর্ক ছিল। অনেকে দাবী করেন জীতেন্দ্র’র সাথে তাঁর বিয়েও হয়। ধর্মেন্দ্র ছিলেন নাছোড়বান্দা। প্রথম স্ত্রীকে ডিভোর্স না দিয়েই তিনি হেমাকে বিয়ে করেন। বিয়ের জন্য ধর্মান্তরিত হন। ১৯৭৯ সালে দু’জনেই ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। দু’জনের নাম হয় – দিলওয়ার খান কেওয়াল কৃষ্ণ ও আইশা বি আর. চক্রবর্তী।

  • ঋষি কাপুর ও নিতু সিং

বলিউডের ‘লাভার বয়’ ঋষি কাপুরের সাথে প্রেম হয় সহ অভিনেত্রী নিতু সিংয়ের। পর্দায় তাঁদের রসায়ন বক্স অফিসে সাফল্য এনে দেয়, সমর্থকদের কাছেও পেয়ে যান রোম্যান্টিক জুটির খেতাব। বাস্তবেও শুরু হয় তাঁদের ‘খুল্লাম খুল্লা প্যায়ার’।

মাত্র ২১ বছর বয়সী নিতু ঋষিকে বিয়ের পর বলিউডকে ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেন। অনেকে বলেন জোর করে তাঁকে বলিউড ছাড়ানো হয়েছে, যদিও তিনি নিজে বলেছেন এটা তাঁর ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত। পরে কামব্যাক করে স্বামীর সাথে ‘লাভ আজ কাল’, ‘দো দুনি চার’, ও ‘জাব তাক হ্যা জান’-এর মত সিনেমা করে দর্শক ও সমালোচকদের মন জয় করেছেন।

  • শাহরুখ খান ও গৌরি খান

এই গল্পটা রূপকথাকেও হার মানায়, হার মানায় সিনেমার স্ক্রিপ্টকেও। ভিন্ন ধর্মের এই দু’জনের প্রেম চলেছে সেই স্কুল জীবন থেকেই। শাহরুখ খান যখন স্ট্রাগলার ছিলেন, তখনও পাশে পেয়েছেন গৌরিকে। আজ যখন তিনি বলিউডের কিং খান তখনও পাশে আছে গৌরি স্ত্রী হয়ে।

  • অক্ষয় কুমার ও টুইঙ্কল খান্না

‘খিলাড়ি’ খ্যাত অক্ষয় ছিলেন নব্বই দশকের প্লে বয়। তাঁকে ঘিরে অনেক নায়িকার প্রেমের গুজব ছিল। রাবিনা ট্যান্ডন, শিল্পা শেঠি কিংবা পুজা বাত্রাদের সাথে তাঁর প্রকাশ্যেই প্রেম ছিল। সব কিছুর ইতি হয় যখন তাঁর জীবনে আসেন ডিম্পল কাপাডিয়া ও রাজেশ খান্নার মেয়ে টুইঙ্কলের সাথে। ২০০১ সালে তাঁদের বিয়ে হয়। এরপর ক্যারিয়ার ও জীবন দু’টোই পাল্টে গেছে অক্ষয়ের।

– বলিবাইটস অবলম্বনে

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।