বিনা নোটিশে বদলে যাওয়া

আমরা সব সময় চাই, আমাদের পছন্দের পণ্য বা খাবার সব সময় একইরকম থাকবে। তবে সত্যি হল সময়ের সাথে সাথে পণ্য প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান অনেক রকম পরিবর্তন আনে। আর মজার ব্যাপার হল, এদের মধ্যে খুব কম ব্যাপারগুলোই আমরা সহজে ধরে ফেলতে পারি।

  • কোকাকোলা

বড় বড় উৎসবের আগে প্রতিষ্ঠানগুলো তাঁদের পণ্যের সাথে বিভিন্ন চিহ্ন যোগ করে। কোকাকোলা যেমন ‘সাদা ভাল্লুক’ যোগ করে মানুষকে আনন্দিত করে। এই ডিজাইনটা ২০১৬ সাল অবধি ছিল। পাল্টে গেছে ২০১৮ সালে এসে। ইউরোপিয়ান দেশগুলোতে যারা বাস করেন, তারা ধরতে পারবেন বিষয়গুলো। বাংলাদেশেও দেখা যায়, কোনো উৎসব বা কোনো প্রচারণাকে কেন্দ্র করে কোকাকোলার স্টিকারের আদল পাল্টে গেছে।

  • ফান্টা

আপনি কি লক্ষ্য করেছেন যে বিশ্বখ্যাত পানীও ফান্টার লোগোটা পাল্টে গেছে। টানা দুই বছর নকশাকারীরা অনেক পরীক্ষা নিরীক্ষা করে এই নতুন লোগোটা বানিয়েছেন। একটু লক্ষ্য করলে দেখবেন, লোগের ভেতরের আকৃতিটা পাল্টে গেছে। যোগ হয়েছে একটা হাসিমাখা ‍মুখ।

  • স্নিকার্স

স্নিকার্স চকলেট প্রথম বানানো হয় ১৯২৩ সালে। মাস প্রোডাকশন শুরু হয় ১৯৩০। প্রথমে এটা বানানো হত সেনাবাহিনীর জন্য। তাই প্রতি গ্রামে থাকতো ৫০৭ ক্যালো। সৈন্যদের দ্রুত শক্তিবর্ধন করার জন্যই এই কৌশল। থাকতো নোগাট, পিনাট ও মিল্ক চকলেট। সবচেয়ে বড় ব্যাপার হল প্রতিটি বারে থাকতে ১৬ টি বাদাম।

যুদ্ধের পর এটা সাধারণ মানুষের মধ্যে ভিষন জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। ডাক্তাররা মনে করতে থাকেন, সাধারণ মানুষের শরীরের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে স্নিকার্স। তাই নির্মাতারা এর ওজন সাত শতাংশ কমিয়ে দেয়। ক্যালরি করে ৪৮৫-এ নামে।

  • নিউটেলা

নিউটেলা বদলে গেছে। যারা ভোজনরসিক, তারা পরিবর্তনটা টের পেয়েছেন। নিউটেলার উপাদানগুলো বদলে দিয়েছে প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান। জার্মান একটি প্রতিষ্ঠান গবেষণা করে জানিয়েছে, আগের চেয়ে এখন ১.২ শতাংশ পরিমান গুড়া দুধ কম দেওয়া হয়। এজন্যই নিউটেলার রংটা এখন একটু অন্যরকম।

যদিও, প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ফেরেরোকে ঠিক কাঠগড়ায় নেওয়া যায় না এর জন্য। কারণ এর আগে কখনোই কোকো পাউডার ও দুধের পরিমানের ব্যাপারে খোলাসা করেনি তাঁরা।

  • স্কাইপে

ভিডিও চ্যাট করার মাধ্যম স্কাইপের লোগো আগে থাকতো বাবলসের ভেতরে। ভেতরে স্কাইপে লেখাটা থাকতো সাদা। যদিও, এখন এটায় এসেছে পরিবর্তন। বাবলটা সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। ভেতরের লেখাটায় রং বসেছে। লেখাগুলোও আগের চেয়ে গাট্টাগোট্টা।

এটা অনেকটা মাইক্রোসফটের কর্পোরেট স্টাইলের মত। শুধু লোগোতেই নয়, স্কাইপের ফিচারেও এসেছে কিছু পরিবর্তন। এখন এখানে দারুণ কিছু জিআইএফ ও স্ন্যাপচ্যাটের মত কিছু ফিচার যোগ হয়েছে।

– ব্রাইট সাইড অবলম্বনে

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।