যশরাজের ‘পৃথ্বীরাজ’: উচ্চাভিলাষ না ট্রাম্পকার্ড?

যশরাজ ফিল্মস বলিউডের ইতিহাসে অন্যতম খরুচে বা বিগ বাজেটের একটি সিনেমা নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছে- ‘পৃথ্বীরাজ’। একাদশ শতাব্দীর নির্ভীক ও মহাবীর রাজা পৃথ্বীরাজ চৌহানের জীবন ও বীরত্ব ভিত্তিক সিনেমা হবে এটি।

যশরাজের এই বড় সিনেমায় একজন ঐতিহাসিক বীরযোদ্ধার চরিত্রে প্রথমবার অভিনয় করবেন সুপারস্টার অক্ষয় কুমার। পৃথ্বীরাজকে নিয়ে এরই মধ্যে ভারতীয় টেলিভিশনে বিস্তর কাজ হয়ে গেছে। এবার তিনি আসছেন বড় পর্দায়।

অ্যাকশন হিরো হিসেবে যাত্রা শুরু করে কমেডি, ড্রামা, থ্রিলার সব সিনেমাতেই বাজিমাত করেছেন অক্ষয় কুমার। অক্ষয়ের ঝুলিতে যে চরিত্রটি অপূর্ণ ছিল এবার তাও পূরণ হতে যাচ্ছে। এই প্রথমবার তিনি কোন ঐতিহাসিক চরিত্রে অভিনয় করতে যাচ্ছেন। গেল, ৯ সেপ্টেম্বর নিজের ৫২তম জন্মদিনে অক্ষয় ঘোষণা দিলেন, ভারতের কিংবদন্তি মহারাজা পৃথ্বীরাজের চরিত্রে অভিনয় করছেন তিনি।

একাদশ শতকের দিল্লীপতি ছিলেন পৃথ্বীরাজ চৌহান। ১১৪৯ সালে তার জন্ম। মাত্র ১৩ বছর বয়সে দিল্লীর সিংহাসনে বসেন তিনি। ২৬ বছর বয়সে কনৌজের রাজকন্যা সংযুক্তাকে ভালোবেসে বিয়ে করেন তিনি। তাঁদের প্রেমকাহিনী যুগ যুগ ধরে মানুষের মুখে মুখে অমরগাঁথা হয়ে আছে।

১১৯০-৯১ সালে প্রবল বীরবিক্রমে তিনি তরাইনের প্রথম যুদ্ধে মুহাম্মদ ঘোরীর বিশাল বাহিনীকে পরাস্ত করেন। তবে দেশপ্রেমিক এই বীর যোদ্ধা দ্বিতীয় তরাইন যুদ্ধে হেরে যান ও পরবর্তীতে তাঁর মাথা কেটে ফেলা হয়। দেশের জন্য জীবন উৎসর্গকারী বীর পৃথ্বীরাজকে নিয়ে সকল ভারতীয়ই গর্ব করেন।

তাই তার নামচরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পেয়ে দারুণ উচ্ছ্বসিত অক্ষয় কুমার। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ডেকান ক্রনিকলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে অক্ষয় বলেন, ‘ভারতের সবচেয়ে নির্ভীক ও সাহসী রাজাদের অন্যতম পৃথ্বীরাজ চৌহানের চরিত্রে অভিনয় করতে পারা সত্যিই সম্মানজনক। একটি জাতি হিসেবে আমাদের অবশ্যই উচিত আমাদের ঐতিহাসিক বীরদের সম্মান জানানো এবং ভারতীয়দের জীবনধারায় যে মূল্যবোধ রয়েছে তা রক্ষার জন্য তারা যে কীর্তি রেখে গেছেন তা অমর করে রাখা। আমাদের লক্ষ্য, এই সিনেমার মাধ্যমে পৃথ্বীরাজের শৌর্য ও তার বীরত্বগাঁথা আলোতে নিয়ে আসা। এই ঘোষণা আমার জন্মদিনকে সত্যিই খুব বিশেষত্ব দিয়েছে।’

‘পৃথ্বীরাজ’ সিনেমাটি পরিচালনা করবেন ড. চন্দ্রপ্রকাশ দ্বিবেদী। ছবিতে গুরুত্বপূর্ণ একটি চরিত্রে থাকবেন সঞ্জয় দত্ত। ইতোপূর্বে তিনি টেলিভিশনের সবচেয়ে বড় মহাকাব্যিক ধারাবাহিক ‘চাণক্য’ পরিচালনা করেছেন। মৌর্য সম্রাটের মহামন্ত্রী এবং ভারতের ইতিহাসের সবচেয়ে প্রভাবশালী রাজনীতিক ও কূটনীতিক চাণক্যের জীবন ও কর্মের ভিত্তিতে ধারাবাহিকটি নির্মাণ করেছিলেন তিনি। ২০২০ সালের দিওয়ালিতে বিশ্বজুড়ে মুক্তি পাবে ‘পৃথ্বীরাজ’।

এই যাত্রায় এটা কতটা সফল হবে – সেটা এখনো বলা না গেলেও ছবিটিকে ঘিরে যে আগ্রহের কমতি নেই সেটা এখনই বলা যাচ্ছে না। বক্স অফিস বিশ্লেষকদের কেউ কেউ দাবী করছেন এটা হবে আগামীর ‘ট্রাম্পকার্ড’। কেউ বা বলছেন স্রেফ ‘উচ্চাভিলাষ’। তবে, ছবিটির ভাগ্যে কি আছে সেটা জানার জন্য সময়ের অপেক্ষা করা ছাড়া কোনো বিকল্প নেই!

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।