কাজে নয়, ‘নামে’ পরিচয়

‘নামে নয়, কাজে পরিচয়’ – এমন একটা কথা প্রচলিত থাকলেও বিশ্বের খ্যাতনামা সব প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য নাম খুব গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। তাই, তো কাজ শুরু করার পরও অনেকে এসে নাম পরিবর্তন করেছেন। আর নতুন নামের ব্র্যান্ডিং এতটাই হয়েছে যে লোকে পুরনো নামটা রীতিমত ভুলেই গেছে। সেসব নিয়েই আমাদের এবারের আয়োজন।

  • গুগল

গুগলের প্রাচীন নামটা বেশ ভুতুড়ে ছিল। নির্মাতারা শুরুতে মানে ১৯৯৬ সালে নাম দিয়েছিলেন ‘ব্যাকরাব’। বছর ঘুরতে না ঘুরতেই নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় ‘গুগল’। আগের নামটাই টিকে থাকলে এখন আমরা গুগলিং না করে ব্যাকরাবিং করতাম!

  • স্ন্যাপচ্যাট

স্ন্যাপচ্যাটের আসল নাম ‘পিকট্যাবু’। আলোকচিত্র বিষয়ক একটা বই থেকে নামটা পেয়েছিলেন নির্মাতারা। পরে নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় স্ন্যাপচ্যাট। শুরুতে এর বিজ্ঞাপনও করা হয়েছিল ‘সেক্সটিং অ্যাপ’ হিসেবে। যদিও, পরে এই বিষয়টা থেকে সরে আসেন নির্মাতারা।

  • ইয়াহু

ইয়াহুর প্রাথমিক নামটা ছিল অতিকায় – ‘জেরি অ্যান্ড ডেভিড’ও গাইড টু দ্য ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব।’ এত বিশাল নামটাকে ছোট করে লেখা হত ‘জেডিজিডব্লিউডব্লিউডব্লিউ’। বোঝাই যাচ্ছে, এই নামটা বেশ দুর্বোধ্য। তাই নাম পাল্টে রাখা হয় ‘ইয়াহু’।

  • পেপসি

খুব কম লোকই জানেন না যে, ১৮৯৮ সালের আগে কেউ পেপসি খেতেন না। খাবেন কি করে, তখন যে নামটাই ছিল ‘ব্র্যাড’স ড্রিঙ্ক’। প্রশ্ন হল কে এই ব্র্যাড? ব্র্যাড হলেন পেপসির উদ্ভাবক ক্যালেব ব্র্যাডহ্যাম। তিনি ১৮৯৩ সালে পেপসি আবিস্কার করেন। নিজের নামে প্রাথমিক ভাবে নামকরণ করলেও বছর ছয়েক পর নাম পাল্টে ফেলেন। ১৯০২ সালে পেপসি-কোলা কোম্পানি প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • সনি

১৯৫৮ সালের আগ অবধি বিশ্বখ্যাত ইলেকট্রনিক্স নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ‘সনি’র নাম ছিল ‘টোকিও সুশিন কোগইয়ো’। পরে ল্যাটিন শব্দ ‘সোনাস’-এর সাথে মিল রেখে নাম রাখা হয় ‘সনি’।

  • ফায়ারফক্স

ফায়ারফক্স নয়, ফায়ারবার্ড। শুরুতে নামটা এমনই ছিল। নাম পাল্টানোর কারণ জানিয়ে প্রতিষ্ঠানটি বলে, ‘দু’টো অনেকটা একই রকম। কিন্তু, ফায়ারফক্স নামটা মনে রাখা বেশি সহজ। শুনতেও ভাল শোনায়।’

  • নাইকি

নাইকির প্রাথমিক নাম ছিল ‘ব্লু রিবন স্পোর্টস’। নাম পরিবর্তন করা হয় ১৯৭১ সালে। নাইকির লোগো বানানো হয়েছে এক গ্রীক দেবীর আদলে। বলা হয়, এই চিহ্নটা হল ওই দেবীর পাখা।

  • পেপাল

‘আপনার কি কনফিনিটি আছে?’ এমন প্রশ্ন কেউ করে না। করবে কি করে, ২০০১ সালেই যে কনফিনিটি নিজেদের নাম পাল্টে পেপাল করে ফেলেছে।

  • ইবে

১৯৯৫ সালে ইবে ওয়েবসাইটের যাত্রা শুরু হয়। প্রথমে নাম ছিল অকশনওয়েব। এটা ছিল ইবে ইন্টারনেট নামে একটা ছাতা নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের অঙ্গসংস্থা। এই প্রতিষ্ঠানের আরো তিনটি সাইট আছে ভ্রমণ, জাহাজ ও ইবোলা ভাইরাস বিষয়ক। ১৯৯৭ সালে অকশনওয়েবের নাম পাল্টে ইবে রাখা হয়।

  • ব্ল্যাকবেরি

২০১৩ সালের আগে এক সময়ের জনপ্রিয় এই মোবাইল ফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটির নাম ছিল ‘রিসার্চ ইন মোশন’। পরে বিপনণের খাতিরে নাম পাল্টে রাখা হয় ‘ব্ল্যাকবেরি’।

– বোরড পান্ডা অবলম্বনে

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।