নিউরোলজিস্টরা সমুদ্রে বেড়াতে বলেন কেন?

সবাই কম বেশি জানেন যে একটু বেড়িয়ে আসা শরীর ও মরে জন্য ভাল। তবে, এর মধ্যেও সমুদ্রে সময় কাটানো আরো বেশি উপকারীরা। বিশেষ করে নিউরোলজিস্টরা বরাবরই এই পরামর্শ দিয়ে এসেছেন। কেন? চলুন জেন আসি।

সমুদ্রের নীলিমার অনুভূতি খুব নীরব আর শান্তির। এই অনুভূতিটাকে মনোবিজ্ঞানী ও নিউরোজিস্টরা ‘ব্লু স্পেস’ বলে ডাকেন। তাঁদের মতে সমুদ্রের গর্জন আর উপাদেয় বাতাস আমাদের মস্তিষ্কে প্রভাব ফেলে। অনেকটা সম্মোহনের মত করে আমাদের জীবনের সহজবোধ্যতা বাড়ায়।

সমুদ্র সৈকতে গিয়ে যখন খুব নির্ভার বোধ করবেন, তখন এর অর্থ হল আপনার মস্তিষ্কের প্রতিক্রীয়ার ধরণ পাল্টে যাবে। সমুদ্র আপনাকে আগের চেয়ে সুখী ও নির্ভার ও উদ্যোমী করে তুলবে। দেরি না করে, সুযোগ বুঝেই তাই চলে যান সমুদ্র সৈকতে, নিজেকে করুন আরো পবিত্র।

এই ‘ব্লু স্পেস’ কাজ করে বিভিন্ন ভাবে –

  • সৈকত ভ্রমণে স্ট্রেস কমে

জলীয় পরিবেশ জীবনের স্ট্রেস কমায়। এটা জীবনকে সহজ ভাবে দেখতে ও ভাবতে শেখায়। পানিতে বা সমুদ্রে ঝাঁপ দেওয়ার সাথে সাথে একজন মানুষ আগের চেয়ে অনেক নির্ভার বোধ করেন। এক মিনিটেই এটা মনকে চাঙ্গা করে ফেলার ক্ষমতা রাখে।

  • সমুদ্রের পরিবেশ শৈল্পিক গুনের বিকাশ ঘটায়

আপনি কথা শৈল্পিক? কতটা নান্দনিক মানসিকতা আছে আপনার? উত্তর যাই হোক না কেন, সমুদ্র ভ্রমণে গেলে এই গুণ বিকশিত হবে আরো।  এটা অনেকটা মেডিয়েশনের মত। এর ফলে যেকোন বিষয়ে আপনার পদক্ষেপ গুলো হবে খুবেই সহজ, সুন্দর ও সৌম্য।

  • ডিপ্রেশন কমাতে কাজ করে সৈকত ভ্রমণ

মানসিক অবসাদ কমায় সমুদ্র। এর ফলে দৈনন্দিক জীবনের ঝুটঝামেলার মধ্যে থেকেও সেটার দ্বারা প্রভাবিত না হলেও চলবে আপনার। এটা আপনার মস্তিষ্ককে এতটাই পরিস্কার করে দেবে যাতে হবে আপনার মধ্যে অবসাদ কাজ করার সুযোগ করে আসবে।

  • জীবন সম্পর্কে মানসিকতা পাল্টে ফেলে

আমাদের সবার জন্য জীবনা একই রকম নয়। একেকজনের দৃষ্টিভঙ্গী একেকরকম। আমরা একেকজন জীবনকে একেকভাবে দেখি। তবে প্রকৃতির মাঝে থাকলে, সমুদ্রের মাথ থাকলে এই দৃষ্টিভঙ্গী পাল্টাবে। অন্তরকে এক রকম পবিত্রতা ছুঁয়ে যাবে। ফলে, সব সময় আপনি একটি হাসিখুশি জীবন কাটাতে পারবেন। জীবনকে আরো সহজ ভাবে নিতে শিখে ফেলবেন।

– মিস্টিক্যালর‌্যাভেন অবলম্বনে

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।