‘আমরা মুশফিককে ডেকেছিলাম, ওর সিদ্ধান্ত জানার জন্য’

দুই দফায় পাকিস্তান সফর করে এসেছে বাংলাদেশ দল। কোনোবারই যাননি মুশফিকুর রহিম। সেই নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) তাঁর ওপর ক্ষিপ্ত। ঘটনা এতটাই বেগতিক যে, বোর্ডের পক্ষ থেকে মুশফিককে বলা হয়েছে এবার পাকিস্তান সফরে না গেলে তাঁকে ওয়ানডে দলের জায়গাও হারাতে হবে। আর গুজব উঠেছে, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডের আগেই বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের নির্দেশে এই ‘হুমকি’ মুশফিককে দিয়ে রেখেছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। এমন বিতর্ক যখন তুঙ্গে তখন, সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বসে তিনি মুখ খুলেছেন এই প্রসঙ্গে।

  • তামিমের ১৫৮ রানের ইনিংস

দেশের অন্যতম সেরা ইনিংস। ওর কাছ থেকে এমন হান্ড্রেডই তো আশা করা যায়। মাঝের সময়টা ভালো যাচ্ছিল না। ঘুরে দাঁড়ানো ইনিংস, মনে রাখার মতো ইনিংস। সিলেটের মানুষ যারা কাছ থেকে দেখেছে, তারা অনেকদিন মনে রাখবে।

  • দুই ম্যাচে দুই ওপেনারের সেঞ্চুরি

অবশ্যই এটা ভালো জিনিস যে ওপেনাররা রান করছে। যেকোনো দলের জন্যই সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ওপেনাররা ভালো স্টার্ট দিলে ৩০০’র বেশি রান করা যায়। রানের গড়টা যদি সাড়ে পাঁচ-ছয়ের কাছাকাছি থাকে, ৪০ ওভারে ৭ উইকেট হাতে রাখলে…এই প্ল্যান সবসময়ই করা হয়, এটা পুরোপুরি হলেই কিন্তু ৩০০’র কাছাকাছি সংগ্রহ পাওয়া যায়। আমাদের ওপেনাররা আত্মবিশ্বাস নিয়ে খেলেছে, এটা ধারাবাহিক থাকলে দলের জন্যও ভালো কিছুই হবে।

  • মুশফিককে হুমকি, মুশফিকের হুমকি

যেহেতু সামনেই আমাদের পাকিস্তান সফর আছে। তাই আমরা মুশফিককে ডেকেছিলাম, ওর সিদ্ধান্ত জানার জন্য। যে ও পাকিস্তানে যাবে কি না, নিজের সিদ্ধান্ত বদলাবে কি না। ও সরাসরি বলে দিয়েছে যাবে না। তো এখানেই এটা শেষ হয়ে গিয়েছে। এখন না গেলে টেস্টের জন্য, ওয়ানডের জন্য আমাদের অন্যভাবে চিন্তা করতে হবে।

  • বোর্ড সভাপতির হুমকি বিষয়ক নিউজ

যেসব নিউজের কথা বলছেন, আমরাও দেখেছি। এটা ঠিক না। আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে ওকে জিজ্ঞেস করেছিলাম যে যাবে কি না। টিম ম্যানেজম্যান্ট ও আমরা একসাথে বসেছিলাম, হেড কোচও ছিলো। ও সরাসরি বলেছে যে যাবে না।

  • বোর্ড সভাপতির বাদ দেয়ার নির্দেশনা

না এমন কিছু না। আমরা টেস্ট ম্যাচের পরেও ও যাবে কি না এধরনের কিছু নিউজ দেখেছিলাম। যেখানে এক পত্রিকায় ছিলো যে ও যাবে, আরেকটায় দেখলাম যাবে না। এজন্য ওকে আনুষ্ঠানিকভাবে জিজ্ঞেস করলাম যে ও যাবে কি না, সিদ্ধান্ত বদল করে কি না। তো সবশেষ বলে দিয়েছে যে, ও যাবে না।

  • শেষ ম্যাচে নতুন কাউকে সুযোগ

নতুন সুযোগ নয়। আমরা টিম ম্যানেজম্যান্টের সাথে বসে আমরা পরিকল্পনা করেছি যে, যেহেতু পাকিস্তানে একটা ওয়ানডে আছে। তাই জিম্বাবুয়ের সাথে সিরিজটা যদি ২-০ হয়ে যায়, তাহলে শেষ ম্যাচের জন্য পাকিস্তানে যে দলটা খেলবে, সেই এগারোজনকে খেলার চিন্তাভাবনা করছি।

  • মাশরাফি বলেছেন পাকিস্তান সফরের জন্য ‘অ্যাভেইলেবল’

পাকিস্তান সফরের দল নিয়ে আমরা এখনও বসিনি। তো এটা এখন আমরা প্ল্যানে রেখেছি। মুশফিক যাবে না এই সিদ্ধান্তটা হয়ে গেছে। ফলে ১৫ জন থেকে অলরেডি একজন কমে গেছে। সেই হিসেবে আমরা ওর জায়গায় রিপ্লেসমেন্ট নিয়ে চিন্তা করছি। মাশরাফিকে নিয়ে এখনও কোনো আলোচনা হয়নি। আমরা এ সিরিজটা শেষ হলে তারপর পাকিস্তান সিরিজের ওয়ানডে নিয়ে বসবো।

  • শেষ ম্যাচে মুশফিক থাকবে কি না

আজকে যদি সিরিজ জিতে যাই, তাহলে থাকবে না। কারণ আমরা চাচ্ছি যে, এপ্রিলের ৩ তারিখে পাকিস্তানে যে ওয়ানডেটা আছে, সেই ম্যাচের একাদশের সঙ্গে মিল রেখে যাতে দল সাজানো যায়।

  • যদি শেষ ম্যাচ খেলেন, তাহলে মাশরাফি কি পাকিস্তানের জন্য বিবেচিত

মাশরাফি তো এই সিরিজের জন্য অধিনায়কই। এখানে মুশফিক যাচ্ছে না, তাই আমরা এই জায়গায় চিন্তাটা করছি যে ওর জায়গায় কাকে খেলানো হবে।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।