মায়ানমারের ক্রিকেট ও ২০ রানের ভুতুড়ে এক ম্যাচ

‘বাংলাদেশের সেন্ট মার্টিনকে নিজেদের বলে দাবী করেছে মায়ানমার’ – এমন একটা খবরের সুবাদে গেল কয়েকদিন বেশ আলোচনার ঝড় তুলেছিল মায়ানমার। এর সাথে চলমান রোহিঙ্গা ইস্যুর কল্যানে তো গোটা বিশ্বই এখন মায়ানমারকে চেনে।

এবার আরো একবার আলোচনার রসদ যোগালো মায়ানমার। সেটাও আবার ক্রিকেট মাঠে। মালয়েশিয়ার বিপক্ষে এশিয়ার এই দলটি ‘অতিমানবীয়’ এক ম্যাচ উপহার দিল।

অতিমানবীয়ই বটে। এমন ভুতুড়ে ম্যাচ ক্রিকেটের ইতিহাসে আগে আর দেখা যায়নি বললেই চলে। ম্যাচটার স্থায়িত্ব ছিল মাত্র ২০ রানের। হ্যা, ঠিকই পড়ছেন, দু’দল মিলে করেছে মোটে ২০ রান। তাতেই ম্যাচের ফলাফল নির্ধারিত হয়ে গেছে।

এবার বিস্তারিত জানি চলুন।

আইসিসির টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপকে সামনে রেখে বাছাইপর্বের ম্যাচে মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে স্বাগতিকদের মুখোমুখি হয়েছিল মায়ানমার। টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে টি-টোয়েন্টি ম্যাচে তাঁরা খেলতে পারে মোটে ১০.১ ওভার পর্যন্ত।

এরপরই নামে বৃষ্টি। মায়ানমারের রান তখন আট উইকেটে নয়।

ছয়জন বার্মিজ ব্যাটম্যান ডাক মারেন। বাউন্ডারি তো দূরের কথা বাকিদের কেউ একটা ডাবলও নিতে পারেননি। মালয়েশিয়ার পবনদীপ সিং চার ওভার বোলিং করে মাত্র এক রান দিয়ে পাঁচ উইকেট নেন।

বৃষ্টি থামলে ডাকওয়ার্থ লুইস মেথড অনুযায়ী আট ওভারে জয়ের জন্য মালয়েশিয়ার লক্ষ্য দাঁড়ায় ছয় রান। প্রথম ওভারেই দুই ওপেনিং ব্যাটসম্যান ডাক মারেন। দ্বিতীয় ওভারের চতুর্থ বলে ছক্কা হাকিয়ে স্বাগতিকদের আট উইকেটের জয় এনে দেন মালয়েশিয়ান ব্যাটসম্যান সুহান আলাগারাথনাম।

এটাই এই ‘স্মরণীয়’ ম্যাচের একমাত্র বাউন্ডারি!

– ইএসপিএন ক্রিকইনফো অবলম্বনে

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।