এক বছরে ৯০ কেজি ওজন কমানোর অবিশ্বাস্য গল্প!

দেখতে দেখতে আবারে আরেকটি বছর পেড়িয়ে চলে আসলো নতুন বছর। সবাই নতুন বছরের নতুন প্রতিজ্ঞা নিয়ে যখন খুবই সরব তখন নিশ্চয়ই কেউ কেউ ওজন কমানোর প্রতিজ্ঞাও করছেন। এখন যে গল্পটা বলতে যাচ্ছি, সেটা ওজন কমাতে ইচ্ছুকদের জন্য দারুণ একটা ‍অনুপ্রেরণার গল্প হতে পারে।

ভদ্রলোক হলেন ভ্যান্স হাইন্ডস। এক বছরের মধ্যে তার বিশাল ওজন কমিয়ে দারুণ ফলাফল পেয়েছেন। এলিস কাউন্টির ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি জেনারেল ভ্যান্স হাইন্ডস, সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন – আর নয়, এবার একটি স্বাস্থ্যকর জীবন শুরু করার সময় এসেছে। তিনি সেই অনুসারে পরিকল্পনা নেন। এক বছর পরে তিনি তার সুফলও পান।

হাইন্ডস তাঁর ওজন কমানোর মিশন শুরু করেন ২০১৭ সালের ১৯ নভেম্বর। তখন তাঁর ওজন ছিলো ৪৭৫ পাউন্ড বা ২১৫ কেজি।

সেই সময়টার কথা মনে করে হাইন্ডস বলেন, ‘সাধারণত, মাঝে মাঝে আমি এই ধরনের ওজন কমানোর জন্য নানান ধরনের কাজ করতাম এবং আমার ওজন অল্প অল্প করে কমত।কিন্তু আপনি এই কাজটি এক সপ্তাহ, ১৫ দিন ধরে করবেন কিন্তু এর পরে আপনার এই উদ্দীপনা আসতে আসতে কমতে থাকবে এবং এক সময় আপনি এই সব থেকে কেনো যেনো আপনি দূরে চলে যাবেন!’

এবার হাইন্ডস স্যোশাল মিডিয়ায় নিয়মিত হতে শুরু করেন। আস্তে আস্তে তাঁর শারীরিক অগ্রগতি সবার সামনে তুলে ধরতে থাকেন। এরপর থেকেই অষ্ট্রেলিয়া, স্কটল্যান্ড সহ দেশের নানা জায়গা থেকে মানুষ তাঁকে অনুপ্রেরণা মূলক বার্তা দেওয়া শুরু করেন এবং তাকে বলতে থাকেন যে হাইন্ডস তাঁদের অনুপ্রেরণা। একদিন তিনি জিম থেকে বের হলেন আর তখন তাকে এক পেশীবহুল ব্যক্তি এসে বললেন যে তিনি তার ভিডিও প্রতিদিন দেখে থাকেন এবং তিনি হাইন্ডসকে এই ব্যাপারটি ধরে রাখার জন্য ও অনুরোধ করেন।

হাইন্ডস বলেন, ‘সেই রাতে আমি সাতারটা একটু বেশিই কাটলাম, অন্যান্য দিনের তুলনায় তা ভালোও লাগল।’

কিন্তু এই ক্ষেত্রে অবশ্যই উল্লেখ্য এই যে, ভ্যান্সের এই ওজন কমানোর পেছনের অন্যতম কারণ ছিলো তার অসম্ভব সুন্দরী বউ আর তার ফুটফুটে তিন সন্তান। তিনি বলেন, ‘আমি এইটা তাদের জন্যও করতাম যাতে করে তারা বুঝতে পারে যে যা তারা করতে সংকল্পবদ্ধ তা তারা চাইলেই পারবে। ৫৫ বছর বয়সে এসে আমি উপলব্ধি করলাম আমার এছাড়া আর কোনো গতি নেই।আমাকে যে করেই হোক ওজন কমাতে হবে।’

প্রতি বুধবার, ওয়াকাহাহচি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে তার বেশ কিছু বন্ধু তার সাথে যোগ দিতো, মূলত তারা ছিলো ১৯৮৩ সালের ব্যাচমেট যারা হিন্দদের সাথে হাঁটার জন্য একত্রিত হত। ভ্যান শুধু নিজেকে সাহায্য করছে না। তিনি তার আশে পাশের সবাইকে সাহায্য করেছেন তার এই কাজের মাধ্যমে।চার, পাঁচজন থেকে শুরু করে আস্তে আস্তে এই দলটা ১২ জনের দলে পরিণত হয়েছিল।

এক পেশাদার কুস্তিগির এর পরামর্শে তিনি ডিডিপি ইয়োগা তে যোগ দেন।এর পাশাপাশি তিনি হাঁটাহাটি, ওয়াটার অ্যারোবিক্স, বডি পাম্পের মতো ওজন কমানোর জন্য সহায়ক বিষয়গুলোও শুরু করেন।

পাশাপাশি তিনি খুবই স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ করাও শুরু করেন এবং ফাস্ট ফুডকে বর্জন করা শুরু করেন। সেই সাথে তিনি সাঁতারেও যোগ দেন।

হাইন্ডস অ্যরোবিক্স শুরু করেন এমন এক দল মানুষের সাথে যারা তাকে অনুপ্রাণিত করত নানা ভাবে। আর এতো কিছুর পরে তার ফলাফল ছিলো আসলেই আশ্চার্যজনক। তাই তো এক বছরের মধ্যেই তিনি ১৯৮ পাউন্ড বা ৯০ কেজি ওজন কমিয়ে ফেলে রীতিমত তাঁক লাগিয়ে দিয়েছেন।

বোরড পান্ডা অবলম্বনে

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।