বুক ফাটে তবুও মুখ ফোটে না

প্রেমে বা রোম্যান্সে তাঁরা কতটা পারদর্শী সেটা পর্দায় কম বেশি প্রমাণ করেছেন। বাস্তব জীবনটা অবশ্য পর্দার মত সহজ নয়। জীবনের হিসাব মেলানোর খেলায় এখানে ভালবাসার সম্পর্কে জড়ানোর আগেও অনেক হিসাব-নিকাশ করতে হয়।

এই তারকারা অবশ্য বাস্তবেও বেশ রোম্যান্টিক। বিশেষ করে যেভাবে তারা নিজেদের সঙ্গীকে প্রেম নিবেদন করেছেন, সেটা রীতিমত বলিউডের সিনেমাকেও হার মানায়। তেমনই কিছু অধ্যায় নিয়ে আমাদের এবারের আয়োজন।

  • আরবাজ খান ও মালাইকা অরোরা খান

যখন বুঝেছেন মিস্টার রাইটকে খুঁজে পেয়েছেন তখন আর দেরী করেননি মালাইকা। আরবাজের সাথে তাঁর দেখা একটা কফির বিজ্ঞাপনের শ্যুটিংয়ে। পাঁচ বছর চুটিয়ে প্রেম করেন। এরপর নতুন বছরের রাতে মালাইকা হুট করে আরবাজকে জিজ্ঞেস করে বসেন, ‘আমাদের এখন পরের ধাপে যাওয়া উচিৎ। তুমি কি সেই রাস্তায় আমার সাথে হাঁটবে? আরবাজের সহজ জবাব, ‘আমাকে শুধু সময় আর জায়গা জানিয়ে দিও।’

ব্যস, ১৯৯৮ সালে তাঁরা বিয়ে করেন। একটা ছেলে আছে, নাম আরহান খান। যদিও, এই দম্পতি ২০১৭ সালে আনুষ্ঠানিক ভাবে বিচ্ছেদ নিয়েছেন।

  • ফারদিন খান ও নাতাশা মাদভানি

দু’জন ছোট বেলা থেকেই দু’জনকে চেনেন। ভাল বন্ধু ছিলেন, সেখান থেকে প্রেম। ট্র্যান্স-আটলান্টিক ফ্লাইটে লন্ডন থেকে যুক্তরাষ্ট্রে যাচ্ছিলেন তারা। তখন রীতিমত মোমবাতি জ্বালিয়ে বিয়ের জন্য নাতাশাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন ফারদিন। আর কি না বলা যায়! ২০০৫ সালে তাঁরা বিয়ে করেন, তাঁদের এক মেয়ে।

  • শাহরুখ খান ও গৌরি খান

একদম তরুণ বয়স থেকে তাঁদের প্রেম। তখনও শাহরুখ আজকের দিনের কিং খান হননি। গৌরিকে নিয়ে শাহরুখ খুব ‘পজেজিভ’ ছিলেন। একবার একটা জন্মদিনের পার্টি শেষ করে গৌরি বন্ধুদের সাথে মুম্বাই চলে যান। শাহরুখ মুম্বাই এসে পাগলের মত গৌরিকে খুঁজতে থাকেন। অনেক খোঁজাখুঁজির পর তিনি গৌরিকে সমুদ্র সৈকতে খুঁজে পান। দু’জনের চোখেই তখন জল। ওই সময় শাহরুখ তাঁকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। গৌরিও ‘হ্যা’ বলে দেন সাথে সাথে। তিন সন্তানের এই জনক-জননীর বিয়ে হয় ১৯৯১ সালে।

  • অভিষেক বচ্চন ও ঐশ্বরিয়া রায়

‘কুছ না কাহো’ সিনেমার সেটে সাবেক বিশ্ব সুন্দরীর প্রতি আকর্ষণ বোধ করেন অভিষেক। ‘গুরু’ সিনেমা করতে গিয়ে তারা বুঝে ফেলেন, একে-অপরকে ছাড়া তাঁদের চলবে না। অভিষেক একবার বলেছিলেন, নিউ ইয়র্কে শ্যুটিং করতে গিয়ে ব্যালকনিতে দাড়িয়ে নিজের মনে মনে আওড়াতেন, ‘এই সময় ও সাথে থাকলে ভাল হত, বিবাহিত অবস্থায়!’

পরে নিউ ইয়র্কে গুরুর প্রিমিয়ারে গিয়ে সেই ব্যালকনিতেই তিনি নিয়ে যান ঐশ্বরিয়াকে। বলেন, ‘ইউল উই ম্যারি মি?’ ব্যাস, অ্যাশ হ্যা বলে দেন। ২০০৭ সালে বিয়ে করা এই দম্পতির একমাত্র কন্যার নাম আরাধ্য বচ্চন।

  • হৃত্বিক রোশন ও সুজান খান

হৃত্বিকের বয়স যখন ১২ তখন তিনি সুজানের প্রেমে পরে। একটা ট্রাফিক সিগনালে প্রথম তিনি সুজানকে দেখেন। অনেকটা তাঁর করা প্রথম সিনেমা ‘কাহো না প্যায়ার হ্যায়’র দৃশ্যের মত। কয়েক বছর পর তাঁরা ডেট করা শুরু করেন। একবার একটা কফির মগে একটা আংটি দিয়ে সুজানকে দেন হৃতিক। সুজান তো আংটি দেখে অবাক! সাথে সাথেই হ্যা বলে দেন। ২০০০ সালে তাঁরা বিয়ে করেন। হৃধান ও হৃহান নামের দুই ছেলের জনক-জননী অবশ্য পরে বিচ্ছেদ নিয়েছেন আনুষ্ঠানিক ভাবে। যদিও, তাঁদের বন্ধুত্ব আজো অঁটুট।

– বলিবাইটস অবলম্বনে

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।