চাওয়াগুলো না মিললে সম্পর্ক কি পানসে হয়ে যায়?

বিয়ে করার ক্ষেত্রে, সম্পর্কে জড়ানোর ক্ষেত্রে নানারকম চাহিদা দেখি অনেকের। যেহেতু আমি একজন পুরুষ, তাই পুরুষের দৃষ্টিকোণ থেকেই বলি। কেউ বার্সেলোনার সাপোর্টার ছাড়া বিয়ে করবে না, কারো মতে যে মেয়ে শাড়ি এবং বই ঠিকমত পড়ে তাকে বিয়ে করা যায়, আবার কারো লাগবে মেটালহেড।

হ্যাঁ, এরকম প্রত্যাশা সবারই থাকে। কিন্তু বাস্তবে যদি এই চাওয়াগুলো না মেলে তাহলে কি সম্পর্ক খুব পানসে হয়ে যাবে? একসময় সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে যাবে?

ধরুন আপনার যা যা পছন্দ তার সবকিছুই কারো সাথে মিলে যায়। তার সাথে আপনার সম্পর্ক হলো। বিয়ের মাধ্যমে পূর্ণতা পেলো। এই সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার নিয়ামক কিন্তু কখনই আপনাদের পছন্দের গান, সিনেমা, বা খেলা না।

হ্যাঁ, যদি আপনারা একে অপরের প্রতি লয়াল হন, আপনাদের মধ্যে বোঝাপড়া ভালো থাকে, তাহলে এই পছন্দ মিলে যাওয়া একটা বাড়তি ইনগ্রিডিয়েন্ট হিসেবে কাজ করবে নিঃসন্দেহে। এখন উল্টোটা চিন্তা করুন। আপনি পছন্দ করেন মেগাডেথ, আপনার অর্ধাঙ্গিনী শোনে হিন্দি গান, আপনার পছন্দ হার্ডকোর হরর ফিল্ম, আপনার অর্ধাঙ্গিনীর রোমান্টিক ড্রামা, আপনি ফুটবল বলতে পাগল, আপনার অর্ধাঙ্গিনীর সেসব ভালো লাগে না, এদিকে সে চায় ছুটি পেলে সাগরের কাছে যেতে, আর আপনি চান বাসায় বসে মুভি দেখতে।

রুচির এত ভিন্নতা থাকলে কি সম্পর্ক নিয়ে আপনার প্রত্যাশা পূরণ হবে? হবে কি হবে না সেটা বলা মুশকিল, তবে এসবের কারণে কোন সম্পর্ক ভেঙেছে এমন কখনও শুনি নি। সম্পর্ক অনেক মহৎ একটা ব্যাপার। ধরুন আপনি বহুদিন আপনার প্রেমিকা থেকে দূরে। তখন আপনি হয়তো আর্টসেলের ‘অলস সময়ের পারে একা বসে আছি’ শুনে অনুভূতি যাপন করছেন, আর আপনার প্রেমিকা শুনছে ‘কই ফরিয়াদ তেরি দিল মে’, আপনাদের অনুভূতি কিন্তু একই!

সেটা বিবর্ধনের জন্যে ব্যবহার করছেন ভিন্ন মাধ্যম। কী এসে যায় তাতে! আমার নিজের জীবন থেকেই যদি বলি, তিথির সাথে আমার অনেক কিছুতেই অমিল। অনেক অনেক কিছুতে। যদি আমাদের সম্পর্কের আগে তার পছন্দ আর আমার পছন্দের একটা চার্ট দেখানো হতো আমাকে, দেখো এই মেয়ে চলবে কি না, তখনকার অপরিপক্কতার কারণে হয়তো বা নাকচ করে দিতাম, না আমার এই কনফিগারেশনে চলবে না, অন্যরকম চাই! কী হাস্যকর না বিষয়টা?

আপনি যার সাথে চিরস্থায়ী সম্পর্কে জড়াবেন, যার সাথে নিজের সবকিছু শেয়ার করবেন, সে আপনার প্রতি কতটা টান অনুভব করে, আর আপনি তার প্রতি কতটা, এটাই মূল ব্যাপার। এখন এই টান কোথা থেকে আসে, কীভাবে বজায় রাখে, এটা সম্পূর্ণই একটা অনাবিষ্কৃত ব্যাপার। সে আপনার দিকে যখন সমুদ্রের অতল গভীরতা নিয়ে তাকাবে, আপনি ডুবে যাবেন, যখন হাতে হাত রাখবেন, ঠোঁটে ঠোঁট, প্রাণে প্রাণ, আরো বেশি ডুবতে চাইবেন, তখন আপনার পছন্দের বিষয়বস্তুর তালিকা লেখা কাগজটি কোথায় হারিয়ে যাবে, খুঁজেই পাবেন না!

একটা সময় দেখবেন,আপনাদের অপছন্দের বিষয়গুলি নিয়েই কত মিষ্টি খুনসুটি হচ্ছে, বেঁচে থাকার রসদ হয়ে থাকছে! হয়তো বা আপনি আপনার পছন্দের সাথে আপোষ করবেন, হয়তো বা মিষ্টি খুনসুটিটাই আপনার ভালো লাগবে বেশি।

আপনার যদি কম্প্রোমাইজ করতে ইচ্ছে না করে, যদি মনে করেন ভালোবাসার মানুষটির জন্যে নিজের পছন্দ-অপছন্দ একটখানি বিসর্জন দিলে মহা ক্ষতি হয়ে যাবে, তাহলে সিঙ্গেল থাকা, অথবা একের পর এক ব্যর্থ সম্পর্কের ঘানি টানাটাই আপনার নিয়তি।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।