অথচ, ধর্মসেনাই নাকি আইসিসির বর্ষসেরা আম্পায়ার!

মজার ব্যাপার হলো, এই কুমার ধর্মসেনা আইসিসির বর্তমান বর্ষসেরা আম্পায়ার! ফাইনাল ম্যাচ পরিচালনার দায়িত্ব পাওয়ার ক্ষেত্রে হয়তো সেটির বড় ভূমিকা ছিল। সেরার যদি এই অবস্থা হয়, ওভার-অল আম্পায়ারিংয়ের অবস্থা সহজেই অনুমেয়। এবারের বিশ্বকাপে আম্পায়ারিংয়ের মান আসলেই বেশ বাজে ছিল।

আম্পায়ারদেরও ফর্ম, অফ ফর্ম আসে। ভালো ম্যাচ, বাজে ম্যাচ যায়। তবে ধর্মসেনাকে টানা ফর্মে থাকতে খুব কমই দেখেছি। আম্পায়ারিংয়ের বড় একটি উপাদান আত্মবিশ্বাস। ধর্মসেনাকে কম সময়ই কনফিডেন্ট মনে হয়।

২০০৪ থেকে ২০০৮, টানা ৫ বার আইসিসির বর্ষসেরা আম্পায়ারের স্বীকৃতি ‘ডেভিড শেফার্ড ট্রফি’ জিতেছিলেন সাইমন টফেল। আমার মতে, অনেকটা এগিয়ে থেকে আধুনিক ক্রিকেটের সেরা আম্পায়ার।

২০১২ সালে হুট করেই আম্পায়ারিং ছেড়ে আইসিসির আম্পায়ার ট্রেনিং ম্যানেজার হয়ে যান টফেল। ছিলেন তিন বছর। (কী ট্রেনিং দিয়েছেন, বুঝলাম না)। তার পর একমাত্র রিচার্ড কেটেলবরোকে কিছুদিন মনে হয়েছে, টফেলের মতো হতে পারেন।

আলিম দার টানা তিনবার জেতার সময়ও মনে হয়নি সেরা সময়ের টফেলের মানের, মারাইস ইরাসমাস টানা দুইবার জয়ের সময়ও না। কেবল কেটেলবরো টানা তিনবার জয়ের সময় খুবই সম্ভাবনাময় মনে হয়েছে। যদিও সেই ধারা কেটেলবরো ধরে রাখতে পারেননি। এই কবছরে আরও একজনকেও মনে হলো না, টফেলের ধারে-কাছে যেতে পারেন।

– ফেসবুক ওয়াল থেকে

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।