বিশ্বের সবচেয়ে বৃদ্ধ মানব

এই সুন্দর পৃথিবীতে বেঁচে থাকতে কে না চায়! মানুষের প্রকৃতিটাই এমন। কেউই অনাগত কোনো অর্জন বা রেকর্ডের কথা ভেবে বাঁচেন না। যেমন জাপানের মাসাজো নোনাকোও ভাবেননি। তবে, সেই অভাবনীয় ব্যাপারটাই এবার ঘটেছে।

বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক ব্যক্তি হিসেবে গিনেজ বুকে স্থান করে নিয়েছেন জাপানের এই বুডো। তার বয়স ১১২ বছর ২৬১ দিন। তিনি নিজেই তো একটি ইতিহাস!

এই দীর্ঘস্থায়ী জীবনের রহস্য কী জানেন? কিচ্ছু না স্রেফ মিষ্টি খাওয়া আর গরম পানির গোসল। এই রহস্যের খবরটা খোদ মাসাজোর পরিবারই জানিয়েছে। এমনকি যখন জানতে পারেন তিনি বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক মানুষের খেতাব পেয়েছেন, তখন উদযাপনটাও করেছেন কেক খেয়েই।

আলবার্ট আইনস্টাইনের বিশ্বখ্যাত আপেক্ষিকতার তত্ত্ব প্রকাশের মাত্র কয়েক মাস আগে ১৯০৫ সালের ২৫ জুলাই মাসাজো নোনাকার জন্ম। জাপানের উত্তরাঞ্চলীয় হোক্কাইডো দ্বীপে নিজে বাড়িতে বসে তিনি পেয়েছেন গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডের সার্টিফিকেট। যে সময় তাঁর জন্ম তার ঠিক এক মাস পরেই কিংবদন্তি বিজ্ঞানী আলবার্ট আইন্সটাইন তার ‘থিওরি অব রিলেটিভিটি’র সুত্র প্রকাশ করেন।

পরিবারের সঙ্গে বাস করা মাসাজো নোনাকার নাতনি ইয়োকো নোনাকা বলেন, ‘চলাফেরার জন্যে তার হুইল পচয়ার লাগলেও তিনি সুস্থ আছেন। তিনি জাপানী কিংবা পশ্চিমা যে কোন ধরনের মিষ্টান্ন খেতে খুব ভালোবাসেন।’

এ ছাড়া তিনি আরো জানান, মাসাজো প্রতিদিনই খবরের কাগজ পড়েন এবং প্রায়ই উষ্ণ প্রবণতায় নিজেকে সিক্ত করেন। তাঁর আরেক অভ্যাস হল, তিনি নিয়মিত সুমো কুস্তি দেখতে পছন্দ করেন। বোঝা গেল এই বয়সেও তিনি বেশি সুঠাম।

মাসাজোরা আট ভাই, আর এক বোন। মাসাজো নোনাকা ১৯৩১ সালে হাতসুনুকোকে বিয়ে করেন। তাদের সন্তান সংখ্যা পাঁচ।

এর আগের বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক ব্যক্তি ছিলেন স্পেনের ফ্রান্সিসকো নুনেজ অলিভেরা। তিনি ১১৩ বছর বয়সে গত ফেব্রুয়ারিতে মারা গেছেন।

মজার ব্যাপার হল, সবচেয়ে বেশিদিন বেঁচে থেকে মারা যাওয়া পুরুষ ব্যক্তিও হলেন একজন জাপানী। তিনি জলেন জিরোইম্যান কিমুরা। ১৮৯৭ সালের ১৯ এপ্রিল তাঁর জন্ম। ১১৬ বছর ৫৪ দিন বেঁচে থাকার পর ২০১৩ সালের ১২ জুন তিনি মারা যান। এখনকার হিসেবে মাসাজোর চেয়ে চার বছরের বড় তিনি।

যদিও বিশ্বের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি বয়স্ক মানব হলেন জেনি লুইল ক্যালমেন্ট। এই নারী ১৮৭৫ থেকে ১৯৯৭ অবধি বেঁচেছিলেন ১২২ বছর ১৬৪ দিন।

গিনেজ বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ড এখন বিশ্বের সবচেয়ে বেশি বয়স্ক নারী খুঁজছে। সর্বশেষ এই রেকর্ড ছিল ১১৭ বছর বয়সী জ্যামাইকান ভায়োলেট ব্রাউনের দখলে। তবে, ২০১৭ সালের জুলাই তাঁর মৃত্যুর পর কেউই এই জায়গা দখল করতে পারেননি।

– গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস ও সিটিভি নিউজ অবলম্বনে

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।