পাপন ভাই, আমি তো কিছুই বুঝলাম না!

আমাদের অবস্থান অনুধাবন করার জন্য পিসিবিকে অবশ্যই ধন্যবাদ জানাতে হয়। আমরা সন্তুষ্ট যে পারস্পরিক সমঝোতায় গ্রহণযোগ্যে একটি সমাধানে পৌঁছানো গেছে। আইসিসি ভবিষ্যৎ সফরসূচিকে যে আমরা আন্তরিকভাবে সম্মান করি, সেটির উজ্জ্বল উদাহরণ এটি।

– নাজমুল হাসান, বিসিবি সভাপতি

বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান নানা সময়ে নানা প্রসঙ্গে প্রায়ই বলেন, ‘আমি তো কিছুই বুঝলাম না!’

আজকে পাকিস্তান সফর নিয়ে দুই বোর্ডের প্রেস রিলিজ পাওয়ার পর বলতে হচ্ছে, ‘পাপন ভাই, আমি তো কিছুই বুঝলাম না!’

আপনারা গত কিছুদিন ধরে গান বাজালেন, পাক ভূমিতে একবার যাওয়াও বিপজ্জনক। একদম সহি গান। আমাদের কানে সুমধুর লাগল। তার পরও, কোনো দেশে যাতে ক্রিকেট বন্ধ না থাকে, স্রেফ এজন্য সংক্ষিপ্ত সময়ের সফরে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলার কথা বললেন। আপত্তিকর হলেও মানা গেল কোনোরকমে, ৪-৫ দিনের ব্যাপার।

এই তো, দুই দিন আগে আপনারা বললেন, কাসেম সোলেমানিকে হত্যার পর মধ্যপ্রাচ্যে যে অস্থিরতা ও যুদ্ধাবস্থা চলছে, সেটিকে বিবেচনায় নিয়ে বাংলাদেশ সরকার পরামর্শ দিয়েছে, যত কম সময়ের মধ্যে টি-টোয়েন্টি খেলে ফেরা যায়। সরকারের পরামর্শের বাইরে যাওয়া সম্ভব নয় বলে আপনারা জোর গলায় বললেন। এক দিনের মধ্যে সব উল্টে গেল!

একবার নয়, তিন বার যাচ্ছে দল। এক সংস্করণ নয়, তিন সংস্করণই খেলবে দল!

আপনারা বললেন, এত নিরাপত্তার মধ্যেও আমেরিকার বিমান ঘাঁটিতে হামলা হয়েছে। ইউক্রেনের বিমান ফেলে দেওয়া হয়েছে। পাকিস্তানেও যে কিছু হবে না, সেই নিশ্চয়তা নেই। অথচ, আপনারা আমাদের ছেলেদের সেখানে তিন দফায় পাঠাচ্ছেন!

আপনাদের কূটনৈতিক দক্ষতার এই অবস্থা যে বাংলাদেশকে তো পাকিস্তান সফরে নিচ্ছেই, উল্টো এফটিপির বাইরে একটি ওয়ানডেও যোগ করেছে! এতটাই অসহায় আপনারা?

এই যে এতদিন ধরে পাকিস্তান প্রায় সব দলের সঙ্গে আরব আমিরাতে সিরিজ খেলল, আমাদের সঙ্গে খেলেনি, এটা যে অপমানজনক, সেটা বলতে পেরেছেন তাদেরকে? আমিরাতে বাংলাদেশ খেললে নিউ জিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, অস্ট্রেলিয়ার চেয়ে বেশি দর্শক হবে মাঠে। স্পন্সরের অভাব হওয়ার কথা নয়। তার পরও তারা আমাদেরকে ওখানে নেয়নি, স্রেফ তাচ্ছিল্য করে। পাত্তা না দিয়ে। এই অপমানের জবাব খুঁজেছেন?

এই যে এফটিপির প্রতি সম্মান জানিয়ে আপনারা যাচ্ছেন, অন্য বেশির ভাগ দেশ কেন সম্মান জানিয়ে পাকিস্তান যায় না? ভারত-অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডের কথা বাদই দিলাম, নিউ জিল্যান্ড- দক্ষিণ আফ্রিকাকেও তো পাকিস্তানে ডাকার সাহস পায় না পাকিস্তান। এখন আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ খেলতে অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডকে তারা পাকিস্তানে নিতে পারবে? পারবে এভাবে জোর করতে?

আমরা ওখানে টেস্ট না খেললে কি হতো? দুটি ম্যাচের পয়েন্ট না পেলাম। জরিমানা দিলাম। তো? পাকিস্তানের কাছে এভাবে কূটনৈতিক আত্মসমর্পণ মানতেই পারছি না।

আপনাদের হাজারও সমালোচনা হয়, করি। করার সুযোগ থাকে নিত্য। কিন্তু পাকিস্তান ইস্যুতে আপনাদের এতদিনের অবস্থানে খুব ভালো লাগছিল। আপনারা ঠিকই বুঝিয়ে দিলেন আপনাদের দৌড়।

সবচেয়ে দুঃখজনক, এই সরকারের সময় তিন দফায় পাকিস্তানে যাচ্ছে বাংলাদেশ। স্রেফ কূটনৈতিকভাবে হেরে। জিল্লুর রহমান, আইভি রহমানের মতো দুজন ব্যক্তিত্বের সন্তান যখন বোর্ড প্রধান, তখন এভাবে পাকিস্তানের কাছে টেবিলের খেলায় হেরেছে বাংলাদেশ। দুঃখজনক। লজ্জাজনক।

আমি কিছুই বুঝতে পারলাম না পাপন ভাই!

__________

সংযোজন: আমরা মুজিববর্ষ উদযাপন করছি। আমাদের সরকারের মাননীয় এমপি বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকীতেই আমাদের দলকে তিনবার পাকিস্তানে পাঠাচ্ছেন। আপাতত বাকরুদ্ধ।

– ফেসবুক ওয়াল থেকে

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।