স্বপ্নের নায়িকা

তিনি বলিউডের ‘ড্রিম গার্ল’। মানে, স্বপ্নে দেখা দেখা সেই রাজকন্যা। তাঁর রুপে শুধু আপামর দর্শকরা মুগ্ধ হতেন না, মুগ্ধ হতেন নায়করাও। শুধুমাত্র তাঁকে পাওয়ার জন্য পর্দার বাইরেও দুই নায়ক হয়ে উঠেছিলেন প্রতিদ্বন্দ্বী। শোলের সেই দূরন্ত ‘বাসন্তী’, যমজ বোন সীতা, গীতা কিংবা ‘বাগবান’ এর সেই মমতাময়ী মা হয়ে জায়গা করে নিয়েছিলেন দর্শকদের হৃদয়।

তিনি নৃত্যপটিয়সী, বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় নায়িকা স্নিগ্ধ হেমা মালিনী। তাঁর মত আগে কেউ কখনো আসেননি, ভবিষ্যতেও আসবেন কি না সন্দেহ!

তামিলনাড়ুতে তাঁর জন্ম হয় ১৯৪৮ সালের ১৬ অক্টোবর। এই অভিনেত্রী প্রথমদিকে কিছু দক্ষিনী ছবিতে কাজ করেন, প্রাতিষ্ঠানিক পড়াশোনা খুব বেশি করেননি। ১৯৬৮ সালে ‘স্বপ্ন কা সওদাগর’ সিনেমা নিয়ে বলিউড যাত্রা, নবীন থাকাকালীন জনি মেরা নাম, লাল পাত্থারের মত হিট ছবি। তবে বেশি আলোচনায় আসেন ‘সীতা অউর গীতা’ ছবিতে যমজ চরিত্রে অভিনয় করে। এই ছবি দিয়েই ক্যারিয়ারের একমাত্র ফিল্মফেয়ার অর্জন করেন।

ধারাবাহিক ভাবে এরপর আসতে থাকে সাফল্য। দোস্ত, খুশবু, দুলহান, ত্রিশূলের পর ‘শোলে’র মত বিখ্যাত ছবিতে অভিনয় করে ব্যাপক সাড়া পান। ‘ড্রিম গার্ল’ ছবিতে অভিনয় করে ছবির এই বিশেষণের খেতাব পান। তাঁর ‘নায়ক’ ভাগ্যটাও বেশ সুপ্রসন্ন ছিলো।

সত্তরের দশকে ব্যাপক সাফল্যের পর আশির দশকে এসে ধীরে ধীরে অনিয়মিত হয়ে যান। এই দশকে উনার আলোচিত ছবিগুলোর মধ্যে আলিবাবা চল্লিশ চোর, নসীব, রাজিয়া সুলতানা, ক্রান্তি, দূর্গা, রাজ তিলক অন্যতম। নব্বই-এর দশকে ফিরে আসেন অন্য এক রুপে।

স্নিগ্ধ, মোহময়ী রুপ ছেড়ে প্রত্যাবর্তন করেন কঠোর চরিত্রে, ছবির নাম ‘জামাই রাজা’, এতেও তিনি সফল। এরপর ক্যারিয়ারে উল্লেখযোগ্য ছবি বলতে ‘বাগবান’, এছাড়া হে রাম, স্বামী বিবেকানন্দ, বীর জারা অন্যতম। প্রযোজক হয়ে বলিউডে উপহার দিয়েছিলেন শাহরুখ খান, দিব্যা ভারতীদের মত তারকাদের। টেলিভিশনে ‘জয় মাতা কি’ সিরিয়ালে দূর্গা চরিত্রে অভিনয় করেও আলোচিত হন।

পদ্মশ্রী পাওয়া এই অভিনেত্রী ১৯৭৯ সালে বিয়ে করেন ‘অ্যাংরি ইয়ং ম্যান’ খ্যাত নায়ক ধর্মেন্দ্রকে। এই বিয়ে নিয়ে বেশ ঝামেলা পোহাতে হয়েছিল তাদের। জিতেন্দ্রর সাথে বিয়ে ভাঙা, বিয়ের জন্য ধর্মান্তরিত হওয়া, আবার নিজ ধর্মে ফিরে আসা সব কিছুই করেছিলেন।

যুক্ত হয়েছিলেন রাজনীতিতে, বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে সমৃক্ত হয়েছেন। সংসারে রয়েছে দুই কন্যা এশা দেওল, অহনা দেওল। বড় মেয়ে এশা বলিউডে নাম লিখিয়েছিলেন, শুরুটা মন্দ ছিল না। কিন্তু, লম্বা দৌঁড়ে টিকতে পারেননি একদমই। সবাই তো আর ‘ড্রিম গার্ল’ হতে পারে না!

 

 

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।