বাংলাদেশের চিকিৎসাশাস্ত্রের প্রবাদ পুরুষ

মেডিকেল সায়েন্সে পড়লেই আমাদের ধারণা রোগী না দেখলে এমবিবিএস ডিগ্রীর কোন দাম নেই। দুনিয়ার সব থেকে বর্বর চিন্তাভাবনার একটি এটি। যে বেসিক সায়েন্স মেডিকেল শিক্ষার ভিত্তি আজ তাতে শিক্ষকের অভাব। কারণ আমাদের ধারণা দুর্বল ছাত্র ছাড়া সেখানে কেউ ক্যারিয়ার করে না। গবেষকরা মানবজাতির বড় সেবক। অনেক চিকিৎসাবিজ্ঞানী আছেন যারা নিভৃতে কাজ করে গেছেন। তেমনই একজনের কথা বলবো আজ।

২০১৫ সালে চিকিৎসাবিজ্ঞানে নোবেলজয়ী তিনজন হলেন আয়ারল্যান্ডের উইলিয়াম সি ক্যাম্পবেল, জাপানের সাতোশি ওমুরা এবং চীনের ইউইউ তু। রাউন্ডওর্ম প্যারাসাইট দ্বারা ঘটিত রিভার ব্লাইন্ডনেস রোগের সংক্রমণ রুখতে সক্ষম আইভারমেকটিন থেরাপি আবিষ্কারের জন্য ক্যাম্পবেল এবং ওমুরাকে নোবেল পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত করা হয়েছে।

কিন্তু যেটা কেউ জানেন না, ১৯৮১ সালে এই ড্রাগের প্রথম ট্রায়ালে নেতৃত্ব দেন একজন বাংলাদেশি চিকিৎসাবিজ্ঞানী ডা এম এ আজিজ। ঢাকা মেডিকেল কলেজের কে ৭ ব্যাচের ছাত্র ছিলেন তিনি। ১৯৫৪ সালে তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাশ করেন।

নোবেল কমিটি এই সম্পর্কে বলেন, ‘In 1981-1982 Dr. Mohammed Aziz at MDRL, an expert in River Blindness, conducted the first successful human trial (Aziz et al 1982). The results were clear. Patients given a single dose of ivermectin showed either complete elimination or near elimination of microfilariae load, while the adult parasites were untouched.’

১৯৮২ সালে সেনেগালের এই গবেষণার ফলাফল প্রকাশিত হয় ল্যানসেটে। এরপর সেনেগাল, মালি, ঘানা এবং লাইবেরিয়াতে এই গবেষণা চলে যা নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অফ মেডিসিন এবং ল্যানসেটে প্রকাশিত হয়।

১৯৮৭ সালের ২৫ নভেম্বর তিনি পাকস্থলীর ক্যান্সারে মৃত্যুবরণ করেন। তার কাজ এগিয়ে নিয়ে যান উইলিয়াম সি ক্যাম্পবেল। বেঁচে থাকলে হয়তো এই বিরল সম্মানের ভাগিদার হতেন ডা আজিজ। ডা আজিজ কর্মরত ছিলেন জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয় এবং Merck Sharp and Dohme Research Laboratories এ কর্মরত ছিলেন।

উইলিয়াম সি ক্যাম্পবেল তাঁর গুরুকে ভুলেন নাই। তিনি শ্রদ্ধা ভরে স্মরণ করেছিলেন ডা এম এ আজিজের নাম। খুশির বিষয় এত বছর পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ তার এক শ্রেষ্ঠ সন্তানকে স্মরণ করে।

২০১৬ সালের ৫ মার্চ ঢাকা মেডিকেল কলেজের পক্ষ থেকে এই প্রয়াত ডিএমসিয়ানের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এই অনুষ্ঠানের উদ্দেশ্য হল এই মহান চিকিৎসাবিজ্ঞানীর অবদানের কথা নতুন প্রজন্মের কাছে জানানো। ঢাকা মেডিকেল কলেজের লেকচার গ্যালারী ১ এ অনুষ্ঠিত এই সভায় প্রয়াত ডা এম এ আজিজের পুত্র যুক্তরাষ্ট্রের নিউ জার্সিতে কর্মরত প্রফেসর ডা শহীদ আজিজ তার পিতার অবদানের কথা বলেন এবং প্রতি বছর গবেষণার জন্য ২ জন চিকিৎসককে পদক দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন।

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।