নোরা ফাতেহি: ফ্রম কানাডা টু মুম্বাই

নাচের ব্যাপারে তিনি যে বেশ প্রতিভাবান – সে নিয়ে কোনো সন্দেহের অবকাশ নেই। সিনেমায় কাজ করার জন্য নাচের যে কয়টা শাখায় পারদর্শী হওয়া দরকার, সেই সবকয়টি ক্ষেত্রেই নোরা ফাতেহি লেটার মার্কস পাবেন। তিনি বেলি ড্যান্স জানেন, পপ জানেন, জানেন বলিউড ফ্রিস্টাইল। এর সাথে তাঁর মোহনীয় চাহনী তো আছেই!

নোরা ফাতেহি এখন বলিউডের আইটেম গানে নিয়মিত মুখ। ‘স্ত্রী’, ‘সত্যমেভ জ্যায়াতে’, ‘বাটলা হাউজে’র আইটেম গানগুলোতে তাঁর কোমড় দোলানো যেন বাড়তি আবেদন সৃ্ষ্টি করেছে। তিনি বলিউডে থিতু হয়ে গেলেও কাগজে কলমে কিন্তু তিনি কানাডিয়ান।

১৯৯২ সালের ছয় ফেব্রুয়ারি তাঁর জন্ম হয় কানাডার কুইবেকে। ভারতের সাথে তার যোগাযোগটা হল নোরার মা হলেন ভারতীয় বংশদ্ভুত। হিন্দি ও ইংরেজির সাথে তারা অনর্গল আরবি ভাষাও বলতে পারেন, কারণ বাবা হলেন মরক্কোর মানুষ। কানাডায় থাকার সুবাদে জানেন ফরাসি ভাষাও।

শৈশবে পড়াশোনাতেও দুর্দান্ত ছিলেন নোরা। কখনোই তিনি সেকেন্ড হতেন না। সব সময় ছিলেন সবার সেরা। যদিও, তখনই অভিনয়ে ঝোঁক ছিল। পড়াশোনার ফাঁকেই বেলি ড্যান্সের তালিম নিতেন। মডেলিংয়েও ভাগ্যের অন্বেষণ করেছিলেন। ‘ওরেঞ্জ মডেল ম্যানেজমেন্ট’-এর একটি প্রতিভা অন্বেষণে সুযোগ পেয়ে প্রথমবারের মত আসেন ভারতে!

ভারতে শুরুতে তিনি কাজ করতেন দক্ষিণী ছবিতে। দক্ষিণেই প্রথমবারের মত এই কানাডিয়ান রমনীর সৌন্দর্য’র বিচ্ছুরণ ঘটে। ‘রোর: টাইগার্স অব সুন্দরবনস’ দিয়ে শুরু করেন। এরপর বেশ কয়েকটা মালায়ালাম ও তেলেগু ছবিতে কাজ করেছেন। ‘কিক ২’, ‘বাহুবলি’ ইত্যাদি ছবিতে তিনি আইটেম নাম্বার করেন।

টেলিভিশনেও এসেছিলেন। বলা উচিৎ, শুরুটা হয়েছিল টিভি দিয়ে। সেটা ছিল বিগ বসে। ২০১৫-১৬ মৌসুমের কথা। ওয়াইল্ড কার্ড এন্ট্রিতে টিকেছিলেন ২৫ দিন। সেখানেই প্রথম বলিউডের ব্যাপারে আগ্রহী হয়ে উঠেন। কারণ, এই অনুষ্ঠানের সঞ্চালনা যে করেন স্বয়ং সালমান খান।

নাচ বিষয়ক জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো ‘ঝালাক দিখলাজা’-তে এসেছিলেন। মূলত ‘সত্যমেভ জ্যায়াতে’ ছবিতে ‘দিলবার’ গানটি করার পর তিনি একবাক্যে সবার মধ্যে পরিচিত হয়ে যান। ইউটিউবে কোটি কোটি লোক পৃথিবীর নানা প্রান্ত থেকে এই গান দেখেছে।

ক্যারিয়ারের বাইরেও তিনি নিজের ফিটনেস নিয়ে দারুণ সচেতন। অভিনব ফ্যাশন সেন্স তাঁকে আরো অনন্য করে তোলে। ইন্সটাগ্রামে তাঁর ভিডিওগুলো দেখলেই বোঝা যায়, কেন পর্দায় আগুন ধরাতে তিনি একাই যথেষ্ট!

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।