যদি রাজের চরিত্রে টম ক্রুজ বা সাইফ আলী খান থাকতেন!

হ্যাঁ, যশ রাজ ফিল্মসের এই কালজয়ী সিনেমার জন্য প্রথম পছন্দ ছিলো সাইফ আলী খান। শাহরুখ ছিলেন তাদের সেকেন্ড চয়েজ। এমনকি আদিত্য চোপড়া চেয়েছিলেন রাজ ক্যারেক্টার করুক হলিউডের টম ক্রুজ। তবে যশ রাজ নিজের হস্তক্ষেপে এসব সিদ্ধান্ত পালটে গিয়ে আজকের রাজের চরিত্রে শাহরুখ সবার মনের রাজত্ব করে যাচ্ছেন নিরন্তর ভাবে।

যেমন সিনেমার টাইটেল নিয়েও শাহরুখ খুশি ছিলেন না শুরুতে। কিরণ খের যখন এই নাম সাজেস্ট করেন তখন শাহরুখ অপছন্দ করেন তবে আদিত্য খুবই পছন্দ করেন এবং শেষ পর্যন্ত কিরণ খের এর সাজেস্ট করা নামই আজ দর্শকের মনে সব সময় আলাদা করে জায়গা করে নিয়েছে। তবে সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো এই সিনেমার টাইটেল আসলে এসেছে ১৯৭৪ সালের সিনেমা ‘চোর মাচায়ে শোর’ সিনেমার গান ‘লে জায়েঙ্গে লে জায়েঙ্গে’ থেকে।

‘তুঝে দেখা তো ইয়ে জানা সানাম’ গানের কারণে বিখ্যাত হয়ে উঠে সরিষার ক্ষেত। এই গান আর সরিষার ক্ষেত যেনো হৃদয় দাদার ভাষায় মণিকাঞ্চন যোগ। কোনটা ছাড়া কোনটা ভাবা যায় না। তবে গানের শ্যুটিং এর সময় কিন্তু সরিষা ক্ষেতের মালিক বাগড়া দিয়েছিলো। পরে শাহরুখ তার ক্যাশম্যাটিক জাদু দিয়ে জমির মালিক কে আয়ত্বে আনেন। ভাবুন তো, সরিষা ক্ষেত না হয়ে আলু ক্ষেত হলে কেমন হতো? অন্তত এখনকার আলুর বাজার বেড়ে যাওয়ার একটা সলিড কারণ পাওয়া যেতো!

সরোজ খানের পরিবর্তে ফারাহ খান, উদয় চোপড়ার আইকনিক লেদার জ্যাকেট, ব্যাক্তি শাহরুখের প্রায় ৯০% চরিত্র রাজের সাথে মিল সহ আরো অনেক কিছুই জানি আমরা। আমাদের জানতে ভালো লাগে। মনে হয় যেনো নতুন কিছু আবিস্কার করে ফেললাম। সিনেমা মুক্তির ২৫ বছর পরেও আজো সেই একই ভাবে থ্রিল অনুভব করে প্রতিটা দর্শক। আজো মারাঠা মন্দিরে একটা মাত্র সিনেমা চলে।

আজো কাউকে তাঁর মনের ইচ্ছে পূরণ করতে ভাষাগত কিংবা জাতিগত ভেদাভেদ ভুলে বলে থাকি ‘যা সিমরান যা, জি লে আপনি জিন্দেগী’। লাইলি-মজনু, শিরি-ফরহাদ কিংবা রোমিও-জুলিয়েটের সাথে আরো এক জোড়া নাম মানুষের মনে গত ২৫ বছর ধরে জায়গা করে নিয়েছে। রাজ-সিমরান মানেই ভালোবাসার আরেক উদাহরণ; যা ফিল্মি দুনিয়ার ব্যারিকেড ভেঙ্গে মানুষের দৈনন্দিন জীবনের সাথে জুড়ে গেছে।

যে জগতের নাম ‘দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে’।এই জগতের সাথে আমরা নিজেদের ভাবতে ভালোবাসি। ড্রয়িং রুম বা সিনেমা হলের গন্ডি পেরিয়ে যে বিনোদন আমাদের জীবনে জুড়ে যায়, তাকে কি আর শুধু সিনেমার নামে আটকে রাখা যায়! না যায় না।

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।