মালায়ালাম ক্রাইম থ্রিলার: না দেখলে পস্তাবেন!

চলচ্চিত্র নির্মাতাদের পছন্দের বিষয় হল ক্রাইম থ্রিলার। সিনেমা বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, এই জাতীয় ছবির স্টোরি টেলিং যতটা কঠিন, মোক্ষম ভাবে বানাতে পারলে দর্শকদের জন্যও ছবিগুলো ততটাই বিনোদনদায়ী। ভাল ক্রাইম থ্রিলার হল সেগুলোই যাতে প্রতি মুহূর্তে থাকবে টুইস্ট আর সাসপেন্স। আর ভারতীয় প্রেক্ষাপটে ক্রাইম থ্রিলার বানানোর ক্ষেত্রে নিজেদের অনেকদূর এগিয়ে নিয়েছে মালায়ালাম ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি।

  • মুম্বাই পুলিশ (২০১৩)

এটি পুলিশের গল্প বলে মাসালা মুভি ভেবে ভুল করবেন না। কেননা এই সিনেমায় অ্যাকশনের চেয়ে বেশি রয়েছে সাসপেন্স। সিনেমাটি কেবল ক্রাইম থ্রিলারই নয়, তিন পুলিশ বন্ধুর সম্পর্কের গল্পও। ছবিটি পৃথ্বীরাজের ক্যারিয়ারের সেরা কাজগুলোর একটি।

সিনেমায় তিন বন্ধুর একজন খুন হয়। সেই খুনের তদন্ত করতে গিয়ে বের হয়ে আছে এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য যা কেউ স্বপ্নেও ভাবতে পারে না। ছবিটিতে আরোও অভিনয় করেছিলেন জয়াসুরিয়া, রহমান, মুকুন্দান, নিহাল পিল্লাই, মারিয়া রয় ও শ্বেতা মেনন।

  • দৃশ্যম (২০১৩)

দক্ষিণ কিংবা মালায়ালাম ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির তো বটেই গোটা ভারতের ইতিহাসেরই অন্যতম সেরা থ্রিলার হল দৃশ্যম। পরে ছবিটি হিন্দি-সহ আরো চারটি ভাষায় রিমেক করা হয়। জিথু জোসেফের নির্মানে ছবিটিতে আছেন সুপার স্টার মোহনলাল, অন্সিবা হাসান, এস্থার অনিল, আশা সরথ, সিদ্দিকি ও কালাভবন।

একজন ডিশ প্রোভাইডার ও তার পরিবারের গল্প নিয়ে সাজানো হয়েছে এই ছবি। পরিবার নিজেদের সুরক্ষার খোঁজেই একটি খুনের সাথে জড়িয়ে যায়। এরপর সেই ডিশ প্রোভাইডার বাবা নিজে পরিবারকে বাঁচানোর জন্য মরিয়া হয়ে মাঠে নামেন।

  • মেমোরিজ (২০১৩)

নির্দিষ্ট কিছু প্যাটার্নে বেশ কয়েকটা খুন হয়। পুলিশ খুনের কোনো সূত্র বা মোটিফ খুঁজে বের করতে পারছে না। ঠিক তখনই পুলিশ অফিসার স্যামের চরিত্রে আসেন মালায়ালামের সুপার স্টার পৃথ্বীরাজ। এই স্যামেরও একটা গল্প আছে। স্ত্রী-সন্তান হারিয়ে গোয়েন্দা পুলিশ অফিসারের চাকরী থেকে তিনি অবসরে চলে যান। নিজেকে ঠেলে দেন নেশার জগতে। তখনই এই রহস্যটা তাঁর সামনে আসে।

বিনা সংকোচে স্বীকার করতে হয় যে ছবিটির গল্প কিংবা অভিনয় কোনোটাই হলিউডের চেয়ে খুব একটা পিছিয়ে নেই। ২ ঘন্টা ২৩ মিনিটের এই ছবিটিতে আপনি প্রতিটি মুহূর্ত উত্তেজনার মধ্যে থাকতে বাধ্য। সিনেমায় আরো আছেন মিয়া জর্জ, বিজয়ারাঘবন ও মেঘনা রাজ।

  • গ্র্যান্ডমাস্টার (২০১২)

উন্নিকৃষ্ণান ভাস্কারানের নির্মানে ছবিটি কেন্দ্রীয় ভূমিকায় এক শীর্ষ পুলিশ কর্মকর্তার চরিত্রে ছিলেন মোহনলাল। সিনেমাটিতে আরো অভিনয় করেন অনুপ মেনন, রোমা আরশানি, প্রিয়ামনী,বাবু অ্যান্থনি ও নারাইন।

সিনেমায় একজন সিরিয়াল কিলারকে দেখানো হয় যিনি বর্ণমালার ক্রমানুসারে একটার পর একটা খুন করতে থাকেন। তাঁর হাত থেকে নিজের পরিবারকে বাঁচানোর জন্য মাঠে নামেন পুলিশ কর্মকর্তার চরিত্র করা মোহনলাল।

  • সেভেন্থ ডে (২০১৪)

এক ছেলের সাইবার ক্যাফের ব্যবসা। একদিন সেখানে পুলিশ পৌনে দুই কোটি রুপির খোঁজে অনুসন্ধান চালায়। সেই অর্থের জন্য অপরাধজগৎ থেকেও আসে মৃত্যুর হুমকি। লোভে পরে তারই এক বন্ধু আবার টাকাটা সরিয়ে ফেলে। পরে স্বীকার করলে যে জায়গায় টাকাটা রেখেছিল সেখানে গিয়ে কিছুই খুঁজে পায় না। সব বন্ধুরা মিলে পরে মহা এক বিপদে।

তখনই সিনেমায় আবির্ভূত হন পৃথ্বীরাজ। ৪২ বছর বয়সী সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা ডেভিড আব্রাহামের চরিত্র করেন। তাকে ঘিরে আবর্তিত হয়েছে ছবিটির গল্প। সিনেমার শেষে আপনার জন্য কি অপেক্ষা করছে সেটা আসলে যে কারোরই কল্পনার বাইরে। শ্যামধরের পরিচালনায় এই ছবিটিতে অভিনয় করেছেন টোভিনো থমাস, অনু মোহন, বিনয় ফোর্ট, ইয়োগ জেয়পি, জননী আইয়ার ও প্রবীন প্রেম।

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।